অ্যান্ড্রয়েড

আইফোন বেস্ট নাকি এন্ড্রোয়েড বেস্ট

আপনি যদি স্মার্টফোন ব্যবহাত করেন তবে একটা প্রশ্ন মাথায় আসবে, আইফোন ভাল নাকি এন্ড্রোয়েড ভাল? আর এই প্রশ্নের উত্তরের জন্যই আপনি এখানে এসেছেন। এখানে সম্পূর্ণ মতামতটি আমার নিজের। তাই বেশি আপনার সাথে না মিলে থাকলে বেশি প্যানিক নিবেন না। আপনার মতামত কমেন্টে জানিয়ে দিবেন।

মূলত আমার কাছে মনে হয় আইফোনের থেকে এন্ড্রোয়েড ফোন ব্যবহার করা আমাদের জন্য ভাল। কেননা আপনাকে ফোনের সাথে সাথে নিজের অবস্থানের একটা বাস্তবতায় আসা লাগবে। আমিও মেনে নিচ্ছি ফিচার ও সিকিউরিটির দিক দিয়ে আইফোন বেস্ট কিন্তু আমরা আজ এই বিষয়টা নিয়ে কথা বলবো না। কেননা এটা আমরা জানি।

আপনি যদি একজন আইফোন ইউজার হয়ে থাকেন, তবে আপনাকে বিভিন্ন ধরণের ঝামেলার সম্মুক্ষিন হতে হবে। যেমনঃ আপনি আপনার প্রয়োজনীয় অনেক এপস পাবেন না। এবার আসুন বাস্তব কথায়, আইফোন ইউরোপের কান্ট্রিতে চলে। কেননা তারা সব কিছু খোঁজে প্রিমিয়াম। কিন্তু আপনি বা আমি কি খুঁজি? ক্র্যাক!

আইফোনে আপনি ক্র্যাক সফটওয়্যার ইউজের কথা চিন্তা কইরেন না। ফ্রি ইউজ করেন বাকি গুলো কিনে ইউজ করেন। কিন্তু এন্ড্রোয়েড ব্যবহারকারীরা আরামে সব কিছু ইউজ করতে পারে। যদি কিছু ক্ষেত্রে সমস্যা হয়। তবে সেটা আইফোনের তুলনাই সামান্য।

আমরা একটা গান কিনে শোনার কথা ভাবিও না, কিন্তু আইফোন ইউজার হতে গেলে এটা ভেবেই ব্যবহার করা উচিৎ। কেননা এন্ড্রোয়েডে যেমন সিম্পল ভাবে ডাটা ট্রান্সফার বা ডাউনলোড করা যায়, আইফোনে এতটা সিম্পল না মোটেও।

আর যদি আপনি দামের কথা চিন্তা করেন, তাহলে তো আইফোন হচ্ছে বড় লোকের ব্যাটির লম্বা লম্বা চুল। কিন্তু বাস্তবে আমরা কি? সেই দিক থেকে আইফোন বেস্ট নাকি এন্ড্রোয়েড?

আর আপনি যদি একজন এডভান্স লেভেলের পাবলিক হয়ে থাকেন, তাহলে এন্ড্রোয়েডকে রুট করে যা ইচ্ছে বানাতে পারবেন। কিন্তু আইফোনে এমন সম্ভব না।

আসলে পয়েন্ট দিতে গেলে হাজারো পয়েন্ট দেয়া যাবে। কিন্তু তারপরেও ইচ্ছা ও শখ বলে একটা কথা আছে। যার যেটা ভাল লাগবে তারা সেটা কিনবে।

আইওস

কিভাবে একটি Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করবেন?

কিভাবে একটি Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করবেন?

Chromebook গুলি আনুষ্ঠানিকভাবে উইন্ডোজ সমর্থন করে না। আপনি সাধারণত এমনকি Chrome OS- এর জন্য পরিকল্পিত একটি বিশেষ ধরনের BIOS দিয়ে উইন্ডোজ-Chromebook শীপ গুলি ইনস্টল করতে পারবেন না। কিন্তু অনেকগুলি Chromebook মডেলগুলিতে উইন্ডোজ ইনস্টল করা যায়। আসুন জেনে নেই, কিভাবে Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করবেন।

আপনার এই প্রক্রিয়া সম্পর্কে কেন জানা উচিৎ?

Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল
Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল

আমরা এটি আবার বলবো যে: এটি আনুষ্ঠানিকভাবে অফিসিয়ালী সমর্থিত নয়। এটি করার জন্য, আপনার Chromebook এর জন্য একটি প্রতিস্থাপন BIOS ইনস্টল করতে হবে (টেকনিক্যালি এটি একটি UEFI ফার্মওয়্যার, যা ঐতিহ্যগত BIOS এর আধুনিক প্রতিস্থাপন)। এটি আপনাকে উইন্ডোজ বুট করবে এবং ইনস্টল করতে দেবে। প্রতিস্থাপনের BIOS কেবল Chromebook মডেলগুলিতে ইনস্টল করা যাবে যা এটি সমর্থন করে, তাই আপনি এটি Chromebook এর সব মডেলে করতে পারবেন না। আপনার কিছু অতিরিক্ত হার্ডওয়্যার এর প্রয়োজন হবে। উইন্ডোজ ইনস্টল করার জন্য আপনার একটি USB কীবোর্ড এবং মাউস দরকার হবে, কারণ আপনার Chromebook এর অন্তর্নির্মিত কীবোর্ড এবং মাউস ইনস্টলারের মধ্যে কাজ করবে না। এবং আপনার পিসিতে উইন্ডোজ চালানোর জন্য আপনার Chromebook এর জন্য USB ইনস্টলেশন মিডিয়া তৈরি করতে হবে।

এমনকি আপনি উইন্ডোজ ইনস্টল করার পরেও কাজ গুলি এই নিয়মের বাইরে হবে না। বিভিন্ন ধরণের হার্ডওয়্যারের জন্য উইন্ডোজ হার্ডওয়্যার ড্রাইভারের সাথে শীপ টি চালায় না, যেমন টাচপ্যাডগুলি অনেকগুলি Chromebook গুলিতে অন্তর্ভূক্ত হয় (এটি যা বোঝায়; তা হল, Chromebook নির্মাতারা এই উপাদানগুলির জন্য উইন্ডোজ ড্রাইভার তৈরির বিষয়ে বিরক্ত হয় না)। যদি আপনি ভাগ্যবান হন, তাহলে এই উপাদানগুলির জন্য উইন্ডোজ সমর্থন দেওয়ার জন্য আপনি একসাথে তৃতীয় পক্ষের ড্রাইভার হ্যাক করে কাজ চালাতে পারেন।এছাড়াও, স্পষ্টতই, আপনার Chromebook এ যা আছে সব মুছে যাবে, তাই নিশ্চিত করুন যে আপনার কাছে এই সংরক্ষণ টির মাঝে গুরুত্বপূর্ণ কিছু নেই। (আপনার উচিত, Chrome OS সাধারণত Google এর সাথে আপনার ডেটা সিঙ্ক না করা)।

বিশেষ টিপসঃ এই প্রক্রিয়াটি চলাকালীন যদি আপনার Chromebook কখনও আটকে যায় তবে তবে মনে রাখবেন যে আপনি পাওয়ার বোতাম টিপে, দশ সেকেন্ডের জন্য এটি ধরে রাখলে Chromebook টিকে বন্ধ করতে পারবেন। এবং প্রয়োজন হলে সেটাই করবেন।

এটি আপনার Chromebook এ কাজ করবে?

আপনার Chromebook মডেলটি যদি সমর্থিত হয়, শুধু মাত্র তবেই আপনার Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করা উচিৎ। আপনার Chromebook এর নির্দিষ্ট মডেলের নির্দেশাবলী অনুসরণ করা উচিত, কারণ বিভিন্ন মডেলের ধাপগুলি একটু ভিন্ন হবে।

এখানে কিছু সহায়ক নির্দেশাবলি দেওয়া হলঃ

  • Chromebooks- তে হার্ডওয়্যার সমর্থন সাপোর্ট তালিকা: এই ওয়েবসাইটটি Chromebook মডেলগুলি; যা আপনি তালিকাভুক্ত করে উইন্ডোজ-এ ইনস্টল করতে পারেন, কোনও বিল্ট-ইন হার্ডওয়্যার উপাদানগুলির সাথে সম্পৃক্ত এবং পরবর্তীতে কাজ করবে না এমন তথ্যগুলি সম্পন্ন করে।
  • Chromebook গুলি ইনস্টলেশন সহায়তাকারী জন্য উইন্ডোজ: এই ওয়েবসাইটটি আপনাকে Chromebook এর আপনার মডেল নির্বাচন করতে দেয় এবং উইন্ডোজ এর জন্য ইনস্টলেশন নির্দেশিকাগুলি পেতে দেয়, যা আপনার Chromebook এর নির্দিষ্ট মডেলের হার্ডওয়্যার সক্ষম করবে এমন লিঙ্কগুলির সাথে সম্পৃক্ত করবে।
  • Chrrabrabook উপধারা: Chromebook গুলোতে উইন্ডোজ ইনস্টল করার জন্য একটি সম্প্রদায় নিখুঁত। যদি আপনি উইন্ডোজ সমর্থন করার জন্য Chromebook বা নির্দিষ্ট হার্ডওয়্যার উপাদান তৈরি করতে পারেন সে সম্পর্কে আরো তথ্য জানতে চান, তবে এটি অনুসন্ধানের জন্য একটি ভাল জায়গা।

যদি আপনার Chromebook উইন্ডোজ সমর্থন করতে পারে, তবে আপনাকে অভিনন্দন। আমরা আপনার নির্দিষ্ট হার্ডওয়্যার মডেলের জন্য সঠিকভাবে সেট আপ করার জন্য নিশ্চিত করতে Coolstar ইনস্টলেশন সহায়তার সাইটগুলির মত একটি ইনস্টলেশন গাইড অনুসরণ করার সুপারিশ করব।  যাইহোক, যে ওয়েবসাইট এর নির্দেশাবলী আরো বিস্তারিত হতে পারে, তাই আপনি সম্ভবত এই নির্দেশিকা কিছু তথ্য পাবেন যা অন্য কোথাও উপস্থিত নেই। আমরা একটি এসার C910 Chromebook, কোডনাম YUNA এ উইন্ডোজ ইনস্টল করার প্রক্রিয়াটি চালনার মাধ্যমে সহায়তা প্রদান করব। এই প্রক্রিয়া Chromebook এর অন্যান্য মডেলের অনুরূপ হবে, তবে কিছু কিছু জিনিস যেমন- মাদারবোর্ডের স্ক্রুর সুরক্ষার অবস্থান-ভিন্ন হবে।

ধাপ এক: Write Protect Screw রিমুভ করুন।

Chromebook এর একটি বিশেষ হার্ডওয়্যার বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা আপনাকে BIOS সংশোধন করতে বাধা দেয়। write protection screw নিষ্ক্রিয় করার জন্য আপনি অধিকাংশ Chromebooks এ BIOS প্রতিস্থাপন করতে পারেন, আপনাকে Chromebook খুলতে হবে, মাদারবোর্ডে write protection screw সনাক্ত, এবং এটি রিমুভ করুন। কিছু Chromebook গুলিতে, আপনি এর পরিবর্তে একটি write protection switch খুঁজে পেতে পারেন। প্রথমে, আপনার Chromebook পুরোপুরি শাট ডাউন করে, বন্ধ করুন। মাদারবোর্ডে অ্যাক্সেস লাভ করার জন্য Chromebook কে ফ্লিপ করুন এবং নীচের স্ক্রোল করুন। প্লাস্টিকের প্যানেল মুছে ফেলার আগে, আমাদের Chromebook এ, এটি 18 screws সরানোর প্রয়োজন। তাদের সরাতে ভুলবেন না! (এটি মাদারবোর্ডের একটি ম্যাগনেটিক ট্রে অংশ যা একটি বিস্ময়কর জিনিস।)

write protect screw সন্ধান করুন (বা আপনার Chromebook এর নির্দেশিকাটিতে কী কী- নির্দেশিকা নির্দেশ করে তা নির্ভর করে সুইচ সুরক্ষিত রাখুন)। আপনি স্ক্রুর নির্দিষ্ট অবস্থান সম্পর্কে আরও ডকুমেন্টেশন পেতে পারেন। তার জন্য আপনার ডিভাইসের নামটি এবং আপনার Chromebook এর মডেল এবং “write protect screw” হিসাবে অনুসন্ধান করার জন্য- এটি ওয়েবে সার্চ করতে পারেন। আমাদের Acer Chromebook C910 এর জন্য, এই SuperUser আলোচনা screw অবস্থান আমাদের পয়েন্ট। কিছু অন্যান্য giveaways ছিল। write protect screw মাদারবোর্ডে অন্য screws থেকে দৃশ্যত ভিন্ন হওয়া উচিত। এই বিশেষ স্ক্রুটি আমাদের Chromebook এ একটি গাঢ় ধূসর রং দেখায়, মাদারবোর্ডে অন্য স্ক্রুগুলি উজ্জ্বল রূপালী। আপনি স্ক্রু নীচে একটি উজ্জ্বল রূপালী দেখতে পারেন, মাদারবোর্ডের অন্যান্য screws তাদের অধীনে একটি ব্রোঞ্জ রঙ আছে।

স্ক্রুটি সরান এবং আপনার Chromebook এ নীচে পুনরায় সংযুক্ত করুন আপনি এখন Chromebook এর BIOS- এ লিখতে এবং সংশোধন করতে পারেন। স্ক্রু রাখুন যদি আপনি আবারও পরে আপনার BIOS রক্ষা করতে বা লিখতে চান।

ধাপ দুই: Developer মোড এনাবল করুনঃ

আপনাকে এখন Developer মোডটি এনাবল করতে হবে যাতে আপনি Chromebook এর সফ্টওয়্যারটি পরিবর্তন করতে পারেন। এটি আধুনিক Chromebook- এ করার জন্য, Chromebook চালু হয়ে গেলে Esc + Refresh + Power টিপুন। (“Refresh” বোতামটি সেই স্থানে অবস্থিত যেখানে “F3” কী টি একটি স্বাভাবিক কীবোর্ডের উপর থাকবে।) আপনার Chromebook বুট করবে এবং একটি বার্তা প্রদর্শন করবে যা “Chrome OS is missing or damaged”। Ctrl + D টিপুন এবং তারপর “turn OS verification OFF” এন্টার করুন এবং ডেভেলপার মোড এনাবল করুন।  এটি আপনার ডিফল্ট সেটিংস এ পুনরায় সেট করার পরে, আপনার Chromebook আপনার সমস্ত ব্যক্তিগত তথ্য ফাইল মুছে ফেলবে। আপনাকে আবার আপনার Google একাউন্টের সাথে সাইন ইন করতে হবে। যাইহোক, আপনার সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ডেটা Chromebook এর উপর সঞ্চিত হওয়ার পরিবর্তে অনলাইন পরিষেবাদির সাথে সিঙ্ক হওয়া উচিত।

যখন আপনি Chrome OS এ বুট করবেন, তখন আপনি “OS verification is OFF” বার্তা দেখতে পাবেন। আপনার বারবার বুট করার সময় প্রতিটি পর্দার বাইপাস করার জন্য আপনাকে Ctrl + D চাপতে হবে। চিন্তা করবেন না – আপনি নতুন BIOS ফ্ল্যাশ করার পরে, এই বার্তাটি চলে যাবে এবং আপনার কাজ শেষ হলে আপনার Chromebook সরাসরি উইন্ডোতে বুট করবে।

ধাপ তিন: নতুন BIOS এ ফ্ল্যাশ করতে হবে।

ChromeOS এর মধ্যে থেকে, আপনি এখন আপনার Chromebook এর নতুন BIOS ফ্ল্যাশ করতে পারেন। একটি টার্মিনাল উইন্ডো খুলতে Ctrl + Alt + T টিপুন। টার্মিনাল এর মধ্যে টাইপ করুন “shell” এবং একটি শক্তিশালী লিনাক্স শেল পরিবেশ অ্যাক্সেস করতে “Enter” টিপুন। আপনার Chromebook এর BIOS প্রতিস্থাপিত হবে স্ক্রিপ্ট ডাউনলোড এবং চালান নিম্ন কমান্ড টার্মিনাল উইন্ডোতে এবং তারপর “এন্টার” টিপুন:

cd ~; curl -L -O http://mrchromebox.tech/firmware-util.sh; sudo bash firmware-util.sh

এই কমান্ডটি আপনার হোম ডিরেক্টরীতে পরিবর্তিত হয়, http://mrchromebox.tech/firmware-util.sh স্ক্রিপ্ট ফাইলটি ডাউনলোড করে, এবং এটি রান করে। কিভাবে এই স্ক্রিপ্ট কাজ করে সেই সম্পর্কে আরো ডকুমেন্টেশনের জন্য ডেভেলপার এর ওয়েবসাইট এর হেল্প সেন্টারে যান।

স্ক্রিপ্ট একটি সহায়ক ইন্টারফেস উপস্থাপন করে যা আপনাকে প্রক্রিয়াটি চালাতে পারে। “3” টাইপ করে এবং “এন্টার” টিপে “কাস্টম কোরবট ফার্মওয়্যার (পূর্ণ ROM)” আপশন টি নির্বাচন করুন। “Y” টাইপ করে আপনার ফার্মওয়্যার ফ্ল্যাশ করতে এবং তারপর UEFI ফার্মওয়্যার ইনস্টল করতে “U” টাইপ করুন। যদি আপনি উইন্ডোজ চালনা করতে চান তবে “Legacy” অপশন টি নির্বাচন করবেন না। স্ক্রিপ্টটি আপনার Chromebook এর স্টক ফার্মওয়্যারের ব্যাকআপ কপি তৈরির প্রস্তাব দেবে এবং এটি আপনার জন্য একটি USB ড্রাইভে স্থান করবে।

এই ব্যাকআপ অনুলিপিটি তৈরি করা নিশ্চিত করুন এবং এটি কোথাও নিরাপদে সংরক্ষণ করুন। এটি ভবিষ্যতে Chromebook এর মূল BIOS পুনরুদ্ধার করা সহজ করবে। আপনাকে USB ড্রাইভে BIOS ব্যাকআপ ছাড়তে হবে না। আপনি একটি ফাইল পাবেন আপনি প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হওয়ার পরে USB ড্রাইভটি কপি করে অন্য কোথাও নিরাপদে সংরক্ষণ করতে পারবেন। ব্যাকআপ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হওয়ার পরে, স্ক্রিপ্টটি কোরব্যাট ফরমওয়্যারটি প্রতিস্থাপন করবে এবং আপনার Chromebook এ এটি ফ্ল্যাশ করবে। এটি সমাপ্ত হলে Chromebook বন্ধ করুন।  এই মুহুর্তে, যদি আপনি চান তবে আপনি write protect screw পুনরায় ইনস্টল করতে পারেন।

ধাপ চারঃ একটি উইন্ডোজ ইনস্টলেশন ড্রাইভ তৈরি করুনঃ

আপনি এখন আপনার Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করতে পারেন, তবে আপনাকে প্রথমে উইন্ডোজ ইনস্টলেশন মিডিয়া তৈরি করতে হবে। তবে আপনি এটি মাইক্রোসফট এর অফিসিয়াল পদ্ধতি ব্যবহার করে করতে পারবেন না – আপনাকে একটি ISO ডাউনলোড করতে হবে এবং Rufus নামে একটি টুল ব্যবহার করে একটি USB ড্রাইভে এটি বার্ণ করতে হবে। আপনাকে উইন্ডোজ পিসিতে প্রসেসের এই অংশটি সম্পাদন করতে হবে। মাইক্রোসফট থেকে একটি উইন্ডোজ 10 আইএসও ডাউনলোড করুন “Download tool now” ক্লিক করুন, “Create installation media for another PC” নির্বাচন করুন এবং এটিকে আপনার জন্য একটি ISO ফাইল ডাউনলোড করতে কমান্ড দিন। উইন্ডোজ 8.1 এবং 7 আপনার Chromebook এবং এর ড্রাইভারগুলির সাথে কাজ নাও করতে পারে।  আপনাকে Rufus ইউটিলিটি ডাউনলোড এবং চালানোর দরকার হবে, যা আপনি আপনার উইন্ডোজ ইনস্টলার USB ড্রাইভ তৈরি করতে ব্যবহার করবেন।

পিসির মধ্যে একটি USB ড্রাইভ প্লাগ করুন। আপনি উইন্ডোজ ইনস্টলারের জন্য এই USB ড্রাইভটি ব্যবহার করবেন এবং এটিতে যেকোনো ফাইল মুছে ফেলা হবে। (তাই চালিয়ে যাওয়ার আগে নিশ্চিত করুন যে আপনি গুরুত্বপূর্ণ ফাইল গুলি কপি করে রেখেছেন কি-না!) Rufus চালু করুন, আপনার USB ড্রাইভ নির্বাচন করুন এবং “GPT partition scheme for UEFI” এবং “NTFS” নির্বাচন করুন। ডানদিকে বোতামটি ক্লিক করুন “Create a bootable disk using” সিলেক্ট করুন এবং আপনার ডাউনলোড করা উইন্ডোজ 10 ISO ইমেজ নির্বাচন করুন। Rufus এর এই অপশন টি “GPT partition scheme for UEFI” অবিরত করার আগে ডাবল চেক করুন। আপনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডিফল্ট সেটিংসে পরিবর্তন করতে পারেন যখন আপনি ISO ফাইলটি নির্বাচন করেন। যদি আপনার ডবল চেক করা সমস্ত সেটিংস সঠিক হয়, তবে একটি উইন্ডোজ ইনস্টলার USB ড্রাইভ তৈরি করতে “Start” বোতামটি ক্লিক করুন।

ধাপ পাঁচঃ উইন্ডোজ ইনস্টল করুন

আপনি এখন Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করার জন্য প্রস্তুত। আপনার Chromebook এ USB ড্রাইভ এবং আপনার Chromebook এ power প্লাগ করুন। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে USB ড্রাইভ থেকে বুট হবে, এবং আপনাকে উইন্ডোজ ইনস্টলার দেখাবে। যদি এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে USB ড্রাইভ থেকে বুট না করে, তবে আপনার পর্দায় “Select Boot Option” প্রদর্শিত হলে যেকোনো কী টিপুন। আপনি তারপর “Boot Manager” নির্বাচন করতে পারেন এবং আপনার USB ডিভাইসগুলি নির্বাচন করতে পারেন। আপনার Chromebook এ একটি USB মাউস, একটি USB কীবোর্ড, বা উভয়ই সংযুক্ত করুন। উইন্ডোজ ইনস্টল করার সময় আপনাকে এইগুলি ব্যবহার করতে হবে। একটি USB কীবোর্ডের সাহায্যে আপনি ইন্টারফেসটি নেভিগেট করতে Tab, arrow, এবং Enter কী ব্যবহার করতে পারেন। একটি মাউস দিয়ে, আপনি অন-স্ক্রীন কীবোর্ডটি টেনে আনতে এবং এটি টাইপ করতে ব্যবহার করতে পারেন।

উইন্ডোজ ইনস্টলেশনের প্রক্রিয়ায় যান, Chrome OS এর জায়গায় আপনার Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করুন। আপনি পছন্দ করেন তবে অভ্যন্তরীণ ড্রাইভ বিভাজনে বিনা দ্বিধায় সমস্ত অভ্যন্তরীণ পার্টিশন মুছে ফেলে এবং উইন্ডোজকে বরাদ্দকৃত স্থান ব্যবহার করে নিজেই ইনস্টল করতে বলেছি। মনে রাখবেন যে আপনার উইন্ডোজ ১০ ইনস্টল এবং ব্যবহার করার জন্য একটি প্রোডাক্ট কী দরকার নেই। আপনি সর্বদা একটি প্রোডাক্ট কী যোগ করতে পারেন অথবা মাইক্রোসফট থেকে একটি প্রোডাক্ট কী কিনে নিতে পারেন।  Chrome OS- এর ব্যাপারে উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই – যদি আপনি কখনও Chrome OS এর সাথে উইন্ডোজকে প্রতিস্থাপন করতে চান, তবে আপনি সহজেই ক্রোম চালানোর কম্পিউটারে Chrome OS পুনরুদ্ধারের ড্রাইভ তৈরি করতে পারেন এবং মূল Chrome OS অপারেটিং সিস্টেমটি পুনরুদ্ধার করতে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

উইন্ডোজ ইনস্টলার আংশিকভাবে পুনরায় চালু হবে। এটি আপনার USB ড্রাইভটি মুছে ফেলার ব্যাপারে নিশ্চিত হবে, অথবা এটি ইনস্টলারের শুরুতে পুনরায় আরম্ভ করবে। যদি আপনি আবার ইনস্টলার পর্দার প্রারম্ভ দেখতে পান, আপনার USB ড্রাইভটি সরান, আপনার Chromebook বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত পাওয়ার বোতামটি দীর্ঘক্ষণ চাপুন, এবং তারপরে এটি বুট করার জন্য পাওয়ার বোতাম টিপুন। এটি Chromebook এর অভ্যন্তরীণ ড্রাইভ থেকে উইন্ডোজকে বুট করা উচিত এবং সেটআপ প্রক্রিয়ার সমাপ্তি করা হবে।

ধাপ ছয়: আপনার হার্ডওয়্যারের জন্য তৃতীয়-পক্ষের ড্রাইভার ইনস্টল করুনঃ

আপনার এখন উইন্ডোজ ইনস্টল করা উচিত, এবং আপনার Chromebook এটি চালু করলে তা উইন্ডোতে বুট করা উচিত। আপনি প্রায় শেষ করে ফেলেছেন! আপনার যতো সম্ভব আপনার হার্ডওয়ার কাজ করার জন্য তৃতীয় পক্ষের ড্রাইভার ইনস্টল করতে হবে। এই ধাপের জন্য আপনাকে এখনও আপনার USB কীবোর্ড এবং মাউস এর প্রয়োজন হবে। এই তৃতীয় পক্ষের ড্রাইভার হিসাবে, তারা সঠিকভাবে স্বাক্ষরিত হয় না এবং উইন্ডোজ এ সাধারণত তাদের ইনস্টল করা যাবে না। আপনাকে তাদের ইনস্টল করার জন্য “test signing” সক্ষম করতে হবে। এই একটি ড্রাইভার; ড্রাইভার পরীক্ষার জন্য ডিজাইন করা হয়। এটি করার জন্য, অ্যাডমিনিস্ট্রেটর হিসাবে কমান্ড প্রম্পট খুলুন – স্টার্ট বাটনে ডান ক্লিক করুন বা Windows+X চাপুন এবং “Command Prompt (Administrator)” নির্বাচন করুন। নিম্নলিখিত কমান্ডটি চালান:

bcdedit -set testsigning on

এরপর আপনার Chromebook রিস্টার্ট করুন।

আপনি এখন তৃতীয় পক্ষের ড্রাইভার ইনস্টল করতে পারেন Chromebook ইন্সটলেশন গাইড Chromebook এর আপনার মডেলের জন্য সুপারিশ করে। উদাহরণস্বরূপ, আমাদের Acer C910 Chromebook এ, Chromebook এর চিপসেট, ইন্টেল এইচডি গ্রাফিক্স, রেপিড স্টোর টেকনোলোজি, কীবোর্ড, ট্র্যাকপ্যাড এবং রিয়েলটেক এইচডি অডিও জন্য ড্রাইভারগুলি ইনস্টল করতে হয়েছিল। ড্রাইভারগুলি ইনস্টল করার সময় উইন্ডোজ আপনাকে একটি নিরাপত্তা সতর্কতা দেখাবে। এটি যেহেতু এই অনাথিত, তৃতীয়-পক্ষের ড্রাইভার যা মাইক্রোসফ্ট দ্বারা স্বাক্ষরিত হয় না। যেকোনো ভাবে ড্রাইভার ইনস্টল করতে সম্মত হন। আপনি যদি শুধুমাত্র প্রস্তুতকারকের দ্বারা সরবরাহিত ড্রাইভার ব্যবহার করতে চান, তাহলে আপনি এটি প্রথম স্থানে করবেন না! পরে, Chromebook এর এই মডেলটি যথাযথভাবে কাজ করতে লাগলো আমরা USB কীবোর্ড এবং মাউস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে সক্ষম হচ্ছি এবং সাধারণত Chromebook ব্যবহার করি। Chromebook এর কীবোর্ডের “অনুসন্ধান” বোতাম এমনকি উইন্ডোজ কী-তে রূপান্তর হয়ে যায়।

যদিও কাজ টি যথেষ্ট কঠিন এবং ঝামেলাপূর্ণ; তবে এভাবে সকল নিয়ম গুলো ফলো করলে আশা করি নিজের লক্ষে পৌছাতে পারবেন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুনঃ 

আইওস

কিভাবে উইন্ডোজ, লিনাক্স ও ম্যাকে আপনার ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন করবেন?

ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন
ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন

কিভাবে উইন্ডোজ, লিনাক্স ও ম্যাকে আপনার ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন করবেন?

একটি ডিভাইসের MAC ঠিকানা প্রস্তুতকারী দ্বারা নির্ধারিত হয়, কিন্তু সঠিক নিয়ম জানা থাকলে আপনার প্রয়োজনে এই ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন কঠিন নয়। প্রতিটি নেটওয়ার্ক ইন্টারফেস আপনার নেটওয়ার্কে সংযুক্ত থাকে। এটি আপনার রাউটার, ওয়্যারলেস ডিভাইস, বা আপনার কম্পিউটারে নেটওয়ার্ক কার্ড-এর একটি অনন্য মিডিয়া অ্যাক্সেস কন্ট্রোল (MAC) ঠিকানা রয়েছে। এই MAC ঠিকানাগুলি কখনও কখনও শারীরিক বা হার্ডওয়্যার ঠিকানা হিসাবে পরিচিত। এদের কে ফ্যাক্টরিতে নিয়োগ করা হয়, কিন্তু আপনি সাধারণত সফ্টওয়্যারে ঠিকানা পরিবর্তন করতে পারেন। বিস্তারিত জানুনঃ

আপনি কি ইথ্যিক্যাল হ্যাকিং শিখতে চান? আমাদের এই আর্টিকেল গুলো পড়ুনঃ

 

ম্যাক অ্যাড্রেস কেন ব্যবহার করা হয়?

সর্বনিম্ন নেটওয়ার্কিং পর্যায়ে, নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসগুলি একে অপরের সাথে যোগাযোগ করার জন্য MAC অ্যাড্রেস ব্যবহার করে। যখন আপনার কম্পিউটারে একটি ব্রাউজার ইন্টারনেটের সার্ভার থেকে একটি ওয়েব পৃষ্ঠা ক্রয় করার প্রয়োজন হয়, উদাহরণস্বরূপ, যে অনুরোধ টিসিপি / আইপি প্রোটোকলের বিভিন্ন স্তরের মধ্য দিয়ে যায়। আপনার লেখা ওয়েব ঠিকানাটি সার্ভারের IP ঠিকানাতে অনুবাদ করা হয়। আপনার কম্পিউটার আপনার রাউটারের অনুরোধ পাঠায়, যা পরে এটি ইন্টারনেটে পাঠায়। আপনার নেটওয়ার্ক কার্ডের হার্ডওয়্যার পর্যায়ে, আপনার নেটওয়ার্ক কার্ড কেবল একই নেটওয়ার্কে ইন্টারফেসের জন্য অন্যান্য MAC ঠিকানার দিকে তাকায়। এটি আপনার রাউটারের নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসের MAC ঠিকানাতে অনুরোধ পাঠাতে জানে।

তাদের মূল নেটওয়ার্কিং ব্যবহারের পাশাপাশি, ম্যাক অ্যাড্রেসগুলি প্রায়ই অন্যান্য কাজের জন্য ব্যবহৃত হয়:

  • স্ট্যাটিক আইপি এসাইনমেন্ট: রাউটারগুলি আপনাকে আপনার কম্পিউটারগুলিতে স্ট্যাটিক আইপি অ্যাড্রেস প্রদান করতে অনুমতি দেয়। যখন একটি ডিভাইস সংযুক্ত হয়, তখন এটি একটি নির্দিষ্ট আইপি অ্যাড্রেস গ্রহণ করে থাকে যখন এটির একটি মিলিত MAC ঠিকানা থাকে।
  • ম্যাক অ্যাড্রেস ফিল্টারিং: নেটওয়ার্কে কেবলমাত্র MAC অ্যাড্রেস ফিল্টারিং ব্যবহার করতে পারবেন, শুধুমাত্র একটি নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত নির্দিষ্ট ম্যাক অ্যাড্রেস দিয়ে ডিভাইসগুলিকে অনুমতি দেয়। এটি একটি দুর্দান্ত নিরাপত্তা টুল নয় কারণ লোকরা তাদের MAC ঠিকানাগুলিকে স্পুফ করতে পারে।
  • MAC প্রমাণীকরণ: কিছু ইন্টারনেট পরিষেবা সরবরাহকারীকে একটি MAC ঠিকানা দিয়ে প্রমাণীকরণের প্রয়োজন হতে পারে এবং কেবলমাত্র সেই MAC ঠিকানা দিয়ে একটি যন্ত্র যা ইন্টারনেটের সাথে সংযোগ স্থাপন করার অনুমতি দেয়। সংযোগ করতে আপনার রাউটার বা কম্পিউটারের MAC ঠিকানা পরিবর্তন করতে হতে পারে।
  • ডিভাইস সনাক্তকরণ: এটির সনাক্তকরণে অনেক এয়ারপোর্ট ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক এবং অন্যান্য পাবলিক ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক ডিভাইসের MAC ঠিকানা ব্যবহার করে। উদাহরণস্বরূপ, একটি এয়ারপোর্ট ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে বিনামূল্যে 30 মিনিট অফার করতে পারে এবং তারপরে আপনার MAC ঠিকানাটি আরও Wi-Fi পাওয়ার জন্য নিষিদ্ধ করে। আপনার MAC ঠিকানা পরিবর্তন করুন এবং এক্ষেত্রে হয়ত আপনি আরও Wi-Fi পেতে পারেন (ফ্রি, সীমিত ওয়াই-ফাই ব্রাউজার কুকি বা অ্যাকাউন্ট সিস্টেম ব্যবহার করেও ট্র্যাক করা যেতে পারে।)
  • ডিভাইস ট্র্যাকিং: MAC ঠিকানা আপনি চায়লে ট্র্যাক করতে ব্যবহার করতে পারেন। আপনি যখন ঘুরে বেড়াবেন, আপনার স্মার্টফোন কাছাকাছি Wi-Fi নেটওয়ার্কগুলির জন্য স্ক্যান করবে এবং তার MAC ঠিকানাটি সম্প্রচার করবে। লেনদেন পুনর্নবীকরণ করা একটি কোম্পানিকে তাদের ম্যাক অ্যাড্রেসের ভিত্তিতে শহরের চারপাশে মানুষের আন্দোলনগুলি ট্র্যাক করতে লন্ডন শহরে ট্র্যাশ বিন্স ব্যবহার করে। অ্যাপলের আইওএস 8 এই ধরণের ট্র্যাকিং প্রতিরোধ করার জন্য এটির কাছাকাছি Wi-Fi নেটওয়ার্কে স্ক্যান করার সময় র্যান্ডম ম্যাক অ্যাড্রেস ব্যবহার করবে।

মনে রাখবেন প্রতিটি নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসের নিজস্ব MAC ঠিকানা রয়েছে। সুতরাং, একটি Wi-Fi রেডিও এবং একটি ওয়্যার্ড ইথারনেট পোর্ট উভয়ের সাথে একটি সাধারণ ল্যাপটপে, বেতার এবং ওয়্যার্ড নেটওয়ার্ক ইন্টারফেস প্রতিটির জন্যই তাদের নিজস্ব এবং অনন্য MAC ঠিকানা আছে।

কম্পিউটারের ফ্রি কোর্স করুনঃ

  1. কম্পিউটার কি, এর বৈশিষ্ট্য ও ইতিহাস
  2. কম্পিউটারের বিভিন্ন প্রকার  – Types Of Computer In Bangla.
  3. কম্পিউটারের ব্যবহার – Uses Of Computer In Bangla
  4. কম্পিউটারের সুবিধা এবং অসুবিধা
  5. কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে – বাংলাতে কম্পিউটারের কাজ সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য
  6. কম্পিউটারের জেনারেশন | Generations Of Computer In Bangla?
  7. কম্পিউটারের ব্যাসিক যন্ত্রাংশ
  8. কম্পিউটার সফটওয়্যার কি

উইন্ডোজে ম্যাক এড্রেস পরিবর্তন করুনঃ

সর্বাধিক নেটওয়ার্ক কার্ডগুলি আপনাকে ডিভাইস ম্যানেজারে তাদের কনফিগারেশন প্যানেগুলি থেকে একটি কাস্টম ম্যাক অ্যাড্রেস সেট করার অনুমতি দেয়, যদিও কিছু নেটওয়ার্ক ড্রাইভার এই বৈশিষ্ট্যটি সমর্থন করে না।

  • প্রথমত, ডিভাইস ম্যানেজার খুলুন উইন্ডোজ 8 এবং 10 এ, Windows + X টিপুন, এবং তারপরে পাওয়ার ইউজার মেনুতে “Device Manager” এ ক্লিক করুন।
  • উইন্ডোজ 7 এ, উইন্ডোজ কী টিপুন, এটির জন্য “Device Manager” টাইপ করুন, এবং সার্চ করুন। তারপরে “Device Manager” এন্ট্রিতে ক্লিক করুন।
  • ডিভাইস ম্যানেজার অ্যাপ্লিকেশনটি কোনও ব্যাপার দেখাবে না যেটি আপনি ব্যবহার করছেন এমন Windows এর কোন সংস্করণটি তা দেখাবে না।
  • “Network adapters” বিভাগের অধীনে ডিভাইস ম্যানেজারে, আপনি যে নেটওয়ার্ক ইন্টারফেস সংশোধন করতে চান তার ডান-ক্লিক করুন, এবং তারপর context মেনু থেকে “Properties” নির্বাচন করুন।
  • বৈশিষ্ট্য উইন্ডোতে, “Advanced” ট্যাবে এবং “Property” তালিকাতে “Network Address” এন্ট্রি নির্বাচন করুন। আপনি এই অপশন টি দেখতে না পেলে, আপনার নেটওয়ার্ক ড্রাইভার এই বৈশিষ্ট্যটি সমর্থন করে না।
  • Value option টি এনাবল করুন এবং কোনও পৃথক অক্ষর ছাড়া আপনার পছন্দসই MAC ঠিকানা টাইপ করুন। তবে উল্লেখ্যঃ কোন ড্যাশ বা কোলন ব্যবহার করবেন না। কাজ সম্পন্ন হলে “ওকে” ক্লিক করুন।

লিনাক্সে ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন করুনঃ

উবুন্টুর মতো আধুনিক লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশনগুলি সাধারণত নেটওয়ার্ক ম্যানেজার ব্যবহার করে, যা একটি MAC অ্যাড্রেসকে ঠেকানোর একটি গ্রাফিকাল উপায় প্রদান করে। উদাহরণস্বরূপ, উবুন্টুতে আপনি উপরের প্যানেলে নেটওয়ার্ক আইকনে ক্লিক করে “Edit Connections” ক্লিক করুন, আপনি যে নেটওয়ার্ক সংযোগটি পরিবর্তন করতে চান তা নির্বাচন করুন, এবং তারপরে “Edit” অপশনে ক্লিক করুন। ইথারনেট ট্যাবের উপর, আপনি “Cloned MAC address” ক্ষেত্রের একটি নতুন MAC ঠিকানা লিখুন, এবং তারপর আপনার পরিবর্তনগুলি সংরক্ষণ করুন। আপনি এই পুরোনো-জলাবদ্ধ উপায় ব্যবহার করতে পারেন। এর মধ্যে নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসটি নিচে নিয়ে যাওয়া, তার MAC ঠিকানাটি পরিবর্তন করার জন্য একটি কমান্ড চালানো এবং তারপর এটি ব্যাক আপ আনয়ন করা যায়। নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসের নামের সাথে “eth0” প্রতিস্থাপন নিশ্চিত করুন যা আপনি আপনার পছন্দের MAC ঠিকানা সংশোধন করতে এবং প্রবেশ করতে চান।

ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন
ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন

আপনি /etc/network/interfaces.d/ এর অধীনে উপযুক্ত কনফিগারেশন ফাইলটি পরিবর্তন করতে হলে / etc / network / interfaces ফাইল নিজেই পরিবর্তন করতে হবে যদি আপনি চান যে এই পরিবর্তনটি সর্বদা বুট সময় কার্যকর হবে। আপনি যদি না করেন তবে আপনার MAC ঠিকানা পুনঃসূচনা করার সময় পুনরায় সেট করা হবে।

ম্যাক ওএস এক্সে(Mac OS X) ম্যাক অ্যাড্রেস পরিবর্তন করুনঃ

ম্যাক ওএস এক্স এর সিস্টেম অভিরুচি প্যান প্রতিটি নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসের MAC ঠিকানা প্রদর্শন করে, কিন্তু এটি আপনাকে পরিবর্তন করতে দেয় না। যে জন্য, আপনার টার্মিনাল প্রয়োজন। একটি টার্মিনাল উইন্ডো খুলুন (কমান্ড + স্পেস টাইপ করুন, টাইপ করুন “Terminal,” এবং তারপর এন্টার চাপুন।) নিম্নলিখিত কমান্ডটি চালান, en0 আপনার নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসের নাম দিয়ে এবং আপনার নিজের MAC ঠিকানা পূরণ করে:

sudo ifconfig en0 xx:xx:xx:xx:xx:xx

নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসটি সাধারণত en0 বা en1 হবে, আপনি ম্যাকের Wi-Fi বা ইথারনেট ইন্টারফেস কনফিগার করতে চান কি না তা নির্ভর করে। আপনি যদি উপযুক্ত নেটওয়ার্ক ইন্টারফেসের নাম নিশ্চিত না হন তবে ইন্টারফেসগুলির তালিকা দেখতে ifconfig কমান্ডটি চালান। লিনাক্সের মতো, এই পরিবর্তনটি অস্থায়ী এবং পরবর্তী রিবুট হলে পুনরায় সেট করা হবে। যদি আপনি স্থায়ীভাবে আপনার ম্যাক অ্যাড্রেসটি পরিবর্তন করতে চান তবে আপনাকে এই লিস্টটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে বুট করার জন্য একটি স্ক্রিপ্ট ব্যবহার করতে হবে।

পরিশিষ্টঃ 

আপনি আপনার পরিবর্তনটি ভেরিফাই করে দেখতে পারেন এবং কমান্ড চালানোর দ্বারা আপনার নেটওয়ার্কের ইন্টারফেসের রিপোর্টগুলি কি তা পরীক্ষা করে এবং যাচাই করে দেখতে পারেন।  উইন্ডোজে, কমান্ড প্রম্পট উইন্ডোতে ipconfig / all কমান্ডটি চালান। লিনাক্স বা ম্যাক ওএস এক্স-এ, ifconfig কমান্ডটি চালান। এবং যদি আপনি আপনার রাউটারের MAC ঠিকানা পরিবর্তন করতে চান, তাহলে আপনি আপনার রাউটারের ওয়েব ইন্টারফেসে এই বিকল্পটি পাবেন।  যে কোন ধরণের হেল্পের জন্য আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করতে পারেন। আমাদের গ্রুপের লিংক ।ধন্যবাদ।

আরও পড়ুনঃ

অ্যান্ড্রয়েড

অ্যামাজন এর ফায়ার ওএস বনাম গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড: পার্থক্য কি?

অ্যামাজন এর ফায়ার ওএস বনাম গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড
অ্যামাজন এর ফায়ার ওএস বনাম গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড

অ্যামাজন এর ফায়ার ওএস বনাম গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড: পার্থক্য কি?

আমাজন এর ফায়ার ট্যাবলেটগুলি অ্যামাজন এর নিজস্ব “ফায়ার ওএস” অপারেটিং সিস্টেম চালায়। ফায়ার ওএসটি গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড ভিত্তিক, কিন্তু এটির কোনও Google এর অ্যাপস বা সার্ভিস নেই। এখানে মূলত এটাই বুঝা যায়, ঠিক কিভাবে তারা ভিন্ন। এটা সত্যিই সঠিক নয় যে আমাজন এর ফায়ার ট্যাবলেট অ্যান্ড্রয়েড চালানোর কথা বলে- কিন্তু, অন্য অর্থে, তারা অনেকটা অ্যান্ড্রয়েড কোড রান করে। সমস্ত অ্যাপ্লিকেশন যা আপনি একটি ফায়ার ট্যাবলেট এ চালান সেগুলোও কিন্তু অ্যান্ড্রয়েড এপস!

পার্থক্য কি?  

গড়ে প্রতিটি ব্যক্তির জন্য, এখানে বড় পার্থক্য হলো- এখানে Google Play Store উপস্থিত নয়। আপনি Amazon এর Appstore এবং সেখানে থাকা সীমাবদ্ধ অ্যাপ্লিকেশন গুলোই কেবল পাবেন। আপনি Google এর অ্যাপ্লিকেশান বা Google এর পরিষেবাগুলিতে অ্যাক্সেস পাবেন না। আপনাকে Amazon এর নিজস্ব অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার করতে হবে। উদাহরণস্বরুপঃ Chrome এর পরিবর্তে SIlk ব্রাউজার ব্যবহার করা লাগবে।

এছাড়াও অবশ্যই অন্যান্য পার্থক্য আছে। যেমন, অ্যামাজন অ্যানড্রয়েড ডিভাইসগুলিতে আপনি সাধারণত লঞ্চার পরিবর্তন করতে পারবেন না, তাই আপনাকে Amazon এর হোম স্ক্রিনের অভিজ্ঞতা ব্যবহার করা লাগবে। আমাজন এর হোম স্ক্রীন অভিজ্ঞতা অ্যাপ্লিকেশন একটি গ্রিড প্রদর্শন করতে পারে, কিন্তু এটা আপনাকে অডিও থেকে ভিডিও, সঙ্গীত, এবং ইবুক দেখাবে। হোম স্ক্রিনে আমাজন এর শপিং সাইটও রয়েছে, যা আরও বেশি জিনিস কিনতে সহজ করে তোলে – এবং আমাজনকে আরো বেশি অর্থ প্রদান করে।

ফায়ার অপারেটিং সিস্টেমের একটি চমৎকার, kid-friendly “Kindle FreeTime” বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা হাজার হাজার kid-friendly শিক্ষাগত অ্যাপস, বই, চলচ্চিত্র এবং টিভি অনুষ্ঠানের অ্যাক্সেসের জন্য একটি “আনলিমিটেড” সাবস্ক্রিপশন দিয়ে মিলিত হতে পারে। kid-friendly প্যারেন্টাল-কন্ট্রোল বৈশিষ্ট্যসমূহ হল ফায়ার ওএস এর আরো অনন্য বৈশিষ্ট্যগুলির একটি।

কিন্তু পার্থক্য আসলে কী বোঝায়? ওয়েল, যদি আপনি ওয়েব ব্রাউজ করার জন্য, ইমেলের মাধ্যমে যাচ্ছেন, এবং ভিডিওগুলি দেখার জন্য একটি সস্তা ট্যাবলেট চান তবে সেখানে বড় পার্থক্য নেই। যদি আপনি হুপ্স মাধ্যমে জাম্প ছাড়া অ্যানড্রইড অ্যাপ্লিকেশন সমগ্র ইকোসিস্টেম চান, সেক্ষেত্রে আপনি হয়ত একটি আরো সাধারণ অ্যান্ড্রয়েড ট্যাবলেট পেতে চাইতে পারেন। Amazon এর প্রস্তাবিত মানের উপর নির্ভর করে, আপনি একটি সস্তা, $ 50 মূল্যের কিন্ডল ফায়ার ট্যাবলেট পেতে পারেন – কিন্তু আপনাকে Google এর পরিবর্তে Amazon এর অ্যাপস্টোর এবং পরিষেবাগুলি ব্যবহার করতে হবে। এক্ষেত্রে ডিজিটাল বিক্রেতাদের মাধ্যমে আমাজন আপনার কাছে থেকে আরো অর্থ উপার্জন করবে।

ট্যাবলেটের সবচেয়ে সস্তা সংস্করণ এমনকি লক স্ক্রিনের বিজ্ঞাপন গুলি যদি আপনি সরাতে চান তবে সেক্ষেত্রে আপনাকে এর জন্য মূল্য পে করতে হবে। যদি আপনি জানেন যে আপনি কি করছেন, তবে আপনি Google এর পরিষেবাগুলি সেখানে রাখতে পারেন – কিন্তু অ্যামাজন তা করতে চায় না, এবং ভবিষ্যতে এই ফিচার গুলো আরও কঠিন হয়ে যেতে পারে। অ্যামাজন এর প্রস্তাবটি উপযুক্ত কিনা তা আপনার উপর নির্ভর করে এবং আপনি আপনার ট্যাবলেটের সাথে কি করতে চান সেটাও আপনার উপরই নির্ভর করে।

অ্যান্ড্রয়েড, গুগল মোবাইল সার্ভিসেস, এবং এওএসপিঃ

সত্যিই দুই Androids আছে গুগল “অ্যান্ড্রয়েড” সফ্টওয়্যার যা আপনি স্যামসাং, এলজি, এইচটিসি, সোনি, এবং অন্যান্য বড় ডিভাইস নির্মাতাদের ডিভাইসগুলিতে দেখতে পাবেন। এটি শুধু অ্যান্ড্রয়েড নয় – এটি একটি অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস যা নির্মাতারা গুগল দ্বারা প্রত্যয়িত করেছে। এটি “গুগল মোবাইল সার্ভিসেস” এর সাথে সংযুক্ত, যা্র মধ্যে গুগল প্লে স্টোর এবং অন্যান্য গুগল অ্যাপস যেমন জিমেইল এবং গুগল ম্যাপস অন্তর্ভুক্ত। কিন্তু অ্যান্ড্রয়েড একটি ওপেন সোর্স প্রকল্পও। ওপেন সোর্স প্রজেক্টটি কেবল “অ্যান্ড্রয়েড ওপেন সোর্স প্রোজেক্ট” বা AOSP হিসাবে যথেষ্ট পরিমাণে পরিচিত। AOSP কোড একটি অনুমতিপ্রসূত ওপেন-সোর্স লাইসেন্সের অধীনে লাইসেন্স করা হয় এবং কোনও নির্মাতা বা বিকাশকারী কোডটি গ্রহণ করতে পারে এবং এটি তাদের জন্য যেভাবে খুসি ব্যবহার করতে পারেন।

গুগল মোবাইল সার্ভিসেস অ্যান্ড্রয়েড ওপেন সোর্স প্রোজেক্টের অংশ নয়, এবং অনেকগুলি জিনিসকে মানুষ “অ্যান্ড্রয়েড” বলে মনে করে। কিন্তু গুগল প্লে স্টোর এবং গুগল এর সমস্ত সেবা সহ আরও বেশ কিছু ফিচার অ্যান্ড্রয়েডের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত নেই। তারা আলাদাভাবে লাইসেন্স পেয়েছেন। সবচেয়ে সস্তা অ্যানড্রইড ট্যাবলেট চীন এর একটি ফ্যাক্টরি থেকে সরাসরি পান – যেটা ঠিক এই AOSP কোড। যদি আপনি তাদের মধ্যে Google Play চান, তাহলে ট্যাবলেটটি পাওয়ার পর আপনাকে Google এর অ্যাপ্লিকেশনগুলিকে আলাদাভাবে ইনস্টল করতে হবে।

গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করার পরিবর্তে কেন অ্যামাজন ফায়ার ওএস তৈরি করেছে?

স্ক্র্যাচ থেকে শুরু করার পরিবর্তে, অ্যামাজন তার ট্যাবলেটগুলির জন্য নিজের অপারেটিং সিস্টেম তৈরি করতে চেয়েছিল। অ্যামাজন অ্যান্ড্রয়েড AOSP কোডটি গ্রহণ করে এবং “ফায়ার অপারেটিং সিস্টেম” তৈরি করার জন্য এটি পরিবর্তন করে Fire OS তৈরী করে। এটি অ্যামাজন সময় সংরক্ষণ করে কারণ তারা স্ক্র্যাচ থেকে শুরু করার পরিবর্তে Google এর প্রচেষ্টার বন্ধন বাড়াতে পারে। এর মানে হল যে সমস্ত বিদ্যমান অ্যানড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন সহজেই “পোর্টেড” ফায়ার ওএস এর জন্য হতে পারে, যা মূলত একইভাবে অ্যান্ড্রয়েডের মত একই জিনিস।

কিন্তু কেন অ্যামাজন গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করে না? কারণ, আমাজন সমগ্র অভিজ্ঞতা নিজেরাই নিয়ন্ত্রণ করতে চায়। অ্যাপ্লিকেশন কেনাকাটা, ভিডিও ভাড়া, সঙ্গীত ডাউনলোড এবং ইবুকগুলির জন্য আপনাকে Google Play এ হস্তান্তর করার পরিবর্তে, আমাজন আপনাকে Amazon Appstore, প্রাইম তাত্ক্ষণিক ভিডিও, অ্যামাজন সঙ্গীত এবং আমাজন প্রজেক্ট অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার করতে চায়। এটা অ্যামাজন ফায়ার ট্যাবলেট লাইনের বিন্দু, যাইহোক – এটি অ্যামাজন এর পরিষেবাগুলিতে একটি সস্তা উইন্ডো। আর সেই সাথে এই উইন্ডোর মাধ্যমে অ্যামাজন আরও বেশি অর্থ উপার্যন করতে পারে।

Google Play Services শুধুমাত্র Google এর Android এর জন্য

ক্রমবর্ধমান, আরো অনেক কিছু যা একটি সাধারণ ব্যক্তি “অ্যান্ড্রয়েড” হিসাবে বলে মনে করে তা আসলে Google Play Services এবং Google এর নিজস্ব অ্যাপ্লিকেশনগুলির অংশ। গুগল প্লেের বেশ কিছু সাধারণ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপগুলি জিপিএস অবস্থানে, পেমেন্ট এবং অন্যান্য অনেক কিছুতে অ্যাক্সেসের জন্য লিখিত ভাবে Google Play Services ব্যবহার করতে হয়। এই অ্যাপ্লিকেশনগুলিকে সরাসরি একটি ফায়ার OS ডিভাইসে রাখা যাবে না, যদি না সেখানে Google Play পরিষেবাগুলি উপস্থিত থাকে। এ্যামেক্সকে ডেভেলপারদের জন্য বিকল্প API সরবরাহ করতে হবে এবং ডেভেলপাররা তাদের অ্যানড্রয়েড অ্যাপগুলি অ্যামাজন ফায়ার ওএস থেকে গুগল প্লে স্টোর থেকে পোর্ট করার জন্য কিছুটা কাজ করতে হতে পারে। এটি প্রতিটি অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন উপস্থিত না থাকার একটি বড় কারণ।

অ্যামাজন অ্যাপস্টোর বনাম গুগল প্লেঃ

গড় Kindle ট্যাবলেট ব্যবহারকারীর জন্য, সবচেয়ে বড় পরিবর্তনটি Google Play এর পরিবর্তে Amazon এর Appstore এর উপস্থিতি হবে। অ্যানড্রয়েড অ্যাপ ডেভেলপাররা তাদের অ্যাপ্লিকেশনগুলি আমাজন অ্যাপস্টোরের পাশাপাশি গুগল প্লেতে তালিকাভুক্ত করতে পারেন। অনুশীলনের মধ্যে, এর অর্থ হল আপনার কাছে এমন অনেক অ্যানড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশান এর অ্যাক্সেস নেই যা আপনি সাধারণত একটি অ্যানড্রইড ট্যাবলেটের সাথে পাবেন – কিন্তু আপনার বেশ কয়েকটি অ্যাক্সেস আছে। আপনি যে অ্যাপ্লিকেশানগুলি ব্যবহার করেন তা Amazon এর Appstore এ আছে কিনা তা দেখার জন্য আপনি ওয়েব এ Amazon Appstore অনুসন্ধান করতে পারেন।

আমাজন এছাড়াও ডাউনলোডের জন্য তার “Appstore” অ্যাপ্লিকেশন উপলব্ধ। আপনি সাধারণত অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেটগুলিতে আমাজন অ্যাপস্টোর ইনস্টল করতে পারেন এবং Google Play এর পরিবর্তে সেখানে অ্যাপ্লিকেশনগুলি ডাউনলোড করতে পারেন। যেহেতু তারা অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস, এগুলো অ্যান্ড্রয়েড ও ফায়ার OS উভয় এই চালানো যাবে।

কিন্তু আপনি একটি “গুগল অ্যান্ড্রয়েড” ডিভাইসের মধ্যে একটি ফায়ার ট্যাবলেট চালু করতে পারেনঃ

যেহেতু ফায়ার অপারেটিং সিস্টেম তাই অ্যান্ড্রয়েডের কাছে খুব কাছাকাছি, Google Play Store এবং Google প্লে সার্ভিসগুলি ফায়ার ট্যাবলেটের দিকে সহজেই ছড়িয়ে দিতে পারে। তারা একটি সাধারণ অ্যান্ড্রয়েড ট্যাবলেটের মতোই কাজ করবে যেমনটি আপনাকে পুরো Google Play Store এবং Google পরিষেবাগুলির অ্যাক্সেস প্রদান করে। এটি আনুষ্ঠানিকভাবে গুগল বা আমাজন দ্বারা সমর্থিত নয়, কিন্তু এটি অবশ্যই সম্ভব। এটি এমনকি আপনার ডিভাইস rooting প্রয়োজন হয় না। এখানে বড় পার্থক্য হলো, এটি করার জন্য আপনাকে কিছুটা কাজ করতে হবে। এবং, অবশ্যই, এটা সম্ভব যে অ্যাডমিনিস্ট্রেটর ভবিষ্যতে ফায়ার ওএসের ভার্চুয়াল সংস্করণে এটির নিচে ফাটল ধরতে পারে এবং এটি আরো কঠিন করে তুলতে পারে।

ভিডিও দেখার জন্য, বই পড়ার জন্য, সঙ্গীত শোনার জন্য, ওয়েব ব্রাউজ করার জন্য, ইমেল চেক করা এবং ফেসবুকে ব্যবহার করার জন্য একটি সস্তা ট্যাবলেটের জন্য, আমাজন এর কিন্ডল ফায়ার ট্যাবলেটগুলি একটি চমৎকার চুক্তি। অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা যারা হ্যাকিং ছাড়া সম্পূর্ণ প্লে স্টোর এবং গুগল এর সকল অ্যাপস অ্যাক্সেস করতে চান, তাদের জন্য এটি অনন্য!

ধন্যবাদ।

আরও পড়ুনঃ

আইওস

সর্বশেষ উইন্ডোজ ৭ আইএসও আপনার যেকোন সময় প্রয়োজন হবেঃসুবিধার রোলআপ স্লিপ স্ট্রীম কিভাবে করবেন?

উইন্ডোজ ৭ আইএসও
উইন্ডোজ ৭ আইএসও

সর্বশেষ উইন্ডোজ ৭ আইএসও আপনার যেকোন সময় প্রয়োজন হবেঃসুবিধার রোলআপ স্লিপ স্ট্রীম কিভাবে করবেন?  

মাইক্রোসফ্ট অবশেষে উইন্ডোজ ৭ আইএসও এর জন্য একটি “সুবিধার রোলআপ” মুক্তি দেয় যা গত কয়েক বছরে আপডেটগুলি এক প্যাকেজে (একটি সার্ভিস প্যাকের মতো)সাথে যুক্ত করে। মাইক্রোসফট এই আপডেটগুলি সমন্বিত ISO ইমেজগুলি অফার করে না, তবে আপনি কয়েকটি সহজ ধাপে নিজেই তৈরি করতে পারেন।  এই ভাবে, যখনই আপনি ভবিষ্যতে উইন্ডোজ 7 এর একটি নতুন অনুলিপি ইনস্টল করবেন, তখন আপনি আপডেটের কয়েক বছরের মূল্যবোধ ডাউনলোড (এবং বহুবার রিবুট) করার জন্য অপেক্ষা করতে হবে না।

আপনার কি প্রয়োজন হবে? 

এই প্রক্রিয়াটির জন্য উইন্ডোজ ৭ ডিস্ক বা আইএসও ফাইলটি সার্ভিস প্যাক ১ সমন্বিত লাগে। এই সময়ে এটি পাওয়া খুব সহজ। আপনি মাইক্রোসফট থেকে এই পদ্ধতিগুলি ব্যবহার করে বৈধভাবে উইন্ডোজ 7 ISO ইমেজ ডাউনলোড করতে পারেন, এবং এই ডিস্ক ইমেজগুলিতে ইতিমধ্যেই পরিষেবা প্যাক 1 সমন্বিত রয়েছে। চালিয়ে যাওয়ার আগে আপনাকে সার্ভিসিং স্ট্যাক আপডেট এবং সুবিধার রোলআপ প্যাকেজ ডাউনলোড করতে হবে। আপনার ব্যবহার করা ISO- র সংস্করণের সঙ্গে মিলিত প্যাকেজগুলি আপনার প্রয়োজন হবে। উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনি ৬৪-বিট ইনস্টলার ডিস্ক তৈরি করতে যাচ্ছেন, তাহলে আপনার ৬৪-বিট আপডেট প্যাকেজগুলির প্রয়োজন হবে।  অবশেষে, উইন্ডোজ ৭ এর জন্য উইন্ডোজ AIK ডাউনলোড এবং ইন্সটল করতে হবে (এমনকি যদি আপনি উইন্ডোজ ৮ বা ১০ এ এই পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করেন তবুও।) মাইক্রোসফট একটি ISO ফাইল হিসাবে ডাউনলোডের জন্য এটি উপলব্ধ করে তোলে, তাই আপনি সফ্টওয়্যারটি ইনস্টল করতে ISOটি মাউন্ট করতে বা একটি ISO- তে ডিভিডি বার্ণ করতে পারেন, তারপর থেকে সফ্টওয়্যার ইনস্টল করুন।

ধাপ একঃ ডিস্ক বা আইএসও থেকে ফাইলগুলি এক্সট্র্যাক্ট করুন।

আপনাকে প্রথমে ISO ইমেজ বিষয়বস্তু নিষ্কাশন করতে হবে- অথবা একটি বন্ধ ডিস্ক ফাইল কপি করুন। যদি আপনার কোন ISO ফাইল থাকে, তাহলে আপনি সামগ্রীটি এক্সট্রাক্ট করার জন্য 7-জিপের মত একটি প্রোগ্রাম খুলতে পারেন (অথবা এটি উইন্ডোজ 8 এবং 10 এ মাউন্ট করুন)। যদি আপনার একটি ডিস্ক থাকে, আপনি ডিস্কের সমস্ত ফাইলগুলি নির্বাচন করতে পারেন, তাদের অনুলিপি করে আপনার কম্পিউটারে একটি ফোল্ডারে আটকান। নীচের স্ক্রিনশটটিতে, আমরা আমাদের কম্পিউটারে C: \ Win7SP1ISO– এর একটি নতুন ফোল্ডারে একটি উইন্ডোজ 7 এসপি 1 ডিস্ক থেকে সমস্ত ফাইল কপি করেছি। আমরা নীচের আমাদের উদাহরণে সেই ফোল্ডার ব্যবহার করব। আমরা C: \ Update নামক একটি ফোল্ডার তৈরি করেছি যেখানে আমরা সার্ভিসিং স্ট্যাক আপডেট এবং সুবিধার রোলআপ প্যাকেজ স্থাপন করেছি।

C: \ Update file
C: \ Update file

ধাপ দুই: আপডেটগুলি একত্রিত করতে Dism ব্যবহার করুন।

এরপর, অ্যাডমিনিস্ট্রেটর হিসাবে কমান্ড প্রম্পট উইন্ডো চালু করুন। স্টার্ট মেনু খুলুন, এটির জন্য “Command Prompt” টাইপ করুন, “Command Prompt” শর্টকাটটি ডান-ক্লিক করুন এবং “Run as Administrator” নির্বাচন (Select) করুন। আপনি যে ফাইলগুলি ফোল্ডারে রেখেছেন তার পাথ ব্যবহার করে নিম্নোক্ত কমান্ডটি চালান (আমাদের ক্ষেত্রে, সি: \ Win7SP1ISO):


Dism /Get-WIMInfo /WimFile:C:\Win7SP1ISO\sources\install.wim

এটি আপনাকে ছবিতে উইন্ডোজ ৭ সংস্করণটির নাম বলবে, যা আপনার এর পরেই প্রয়োজন হবে। নীচে স্ক্রিনশট এ, আপনি দেখতে পারেন আমরা উইন্ডোজ ৭ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টল মিডিয়া ব্যবহার করছি। আপনার একটি উইন্ডোজ ৭ হোম, পেশাগত, বা আলটিমেট সংস্করণ ব্যবহার করতে হতে পারে। (যদি আপনার ডিস্কের মধ্যে একাধিক সংস্করণ থাকে তবে আপনি যেটি ISO তৈরি করতে চান তা নোট করুন।)

এন্টারপ্রাইজ ইনস্টল মিডিয়া
এন্টারপ্রাইজ ইনস্টল মিডিয়া

আপনাকে এখন অফলাইনে ইমেজটি মাউন্ট করতে হবে। প্রথমে এটি আনপ্যাক করতে একটি ডিরেক্টরি তৈরি করুন:


mkdir C:\Win7SP1ISO\offline
এখন, ফাইলগুলি আনপ্যাক করুন যাতে ডিআইএসএম কমান্ড তাদের সাথে কাজ করতে পারে:

Dism /Mount-WIM /WimFile:C:\Win7SP1ISO\sources\install.wim /Name:”Windows 7 ENTERPRISE” /MountDir:C:\Win7SP1ISO\offline


আবার, C: \ Win7SP1ISO- র পরিবর্তে আপনার ফাইলগুলি এক্সট্রাক্ট করা ফোল্ডার এবং উইন্ডোজ 7 এন্টারপ্রাইজটি পূর্বের কমান্ড থেকে পাওয়া উইন্ডোজ সংস্করণে প্রতিস্থাপন করুন। আপনাকে এখন ডাউনলোড করা সার্ভিসিং স্ট্যাক আপডেট-KB3020369 আপডেট-উইন্ডোজ 7 ইন্সটলেশন ফাইলগুলি যোগ করতে হবে। একটি 64 বিট প্যাকেজ সংহত করতে:


Dism /Image:C:\Win7SP1ISO\offline /Add-Package /PackagePath:C:\updates\Windows6.1-KB3020369-x64.msu

একটি 32-বিট প্যাকেজ সংহত করার জন্য:

Dism /Image:C:\Win7SP1ISO\offline /Add-Package /PackagePath:C:\updates\Windows6.1-KB3020369-x86.msu

এটি 64-বিট বা 32-বিট ইনস্টলেশন মিডিয়া নির্মাণের উপর নির্ভর করে, আপনাকে শুধুমাত্র উপরের কমান্ডগুলির মধ্যে একটি ব্যবহার করতে হবে। যে ফোল্ডারটি আপনি সার্ভিং স্ট্যাক আপডেটটি সংরক্ষণ করেছেন তার সাথে প্যাকেজ পাথটি প্রতিস্থাপন করুন। পরবর্তী, ডাউনলোড করা সুবিধার রোলআপ আপডেট প্যাকেজটি যোগ করুন- KB3125574 এই অংশ একটি সময় নিতে পারে। একটি 64 বিট প্যাকেজ সংহত করতে:

Dism /Image:C:\Win7SP1ISO\offline /Add-Package /PackagePath:C:\updates\windows6.1-kb3125574-v4-x64_2dafb1d203c8964239af3048b5dd4b1264cd93b9.msu

একটি 32-বিট প্যাকেজ সংহত করার জন্য:

Dism /Image:C:\Win7SP1ISO\offline /Add-Package /PackagePath:C:\updates\windows6.1-kb3125574-v4-x86_ba1ff5537312561795cc04db0b02fbb0a74b2cbd.msu

শুধু শেষ ধাপের মত, আপনার নিজস্ব ফোল্ডারগুলি প্রতিস্থাপন করুন, এবং শুধুমাত্র উপরের কমান্ডগুলির একটি চালান। আপনি তৈরি করছেন যে ইনস্টলেশনের মিডিয়া, তার জন্য উপযুক্ত যেকোন একটি ব্যবহার করুন- ৩২-বিট বা ৬৪-বিট।  পরিশেষে, পরিবর্তনগুলি করুন এবং ছবিটি আনমাউন্ট করুন:

Dism /Unmount-WIM /MountDir:C:\Win7SP1ISO\offline /Commit

ছবিটি আনমাউন্ট করুন
ছবিটি আনমাউন্ট করুন

ধাপ তিন: একটি আপডেট ISO ফাইল তৈরি করুন।

আপনি এখন যে ডিরেক্টরীতে কাজ করছেন তা install.wim ফাইলটিতে সুবিধার রোলআপ প্যাকেজটি একত্রিত করা হয়েছে। আমরা আপনার moded install.wim ফাইল সমন্বিত একটি নতুন ISO ইমেজ তৈরি করতে Windows AIK- এর সাথে অন্তর্ভুক্ত করা oscdimg সরঞ্জামটি ব্যবহার করব। প্রথমে, Administrator হিসাবে স্থাপনার সরঞ্জাম কমান্ড প্রম্পট চালু করুন।  Head to Start > All Programs > Microsoft Windows AIK. তারপর, “Deployment Tools Command Prompt” শর্টকাট রাইট ক্লিক করুন এবং “Run as Administrator.” নির্বাচন (Select) করুন।  প্রম্পটে নিম্নোক্ত কমান্ডটি চালান, C: \ Win7SP1ISO- র পরিবর্তে আপনার ব্যবহৃত ডাইরেক্টরিতে পাথ দিয়ে। আপনি C: \ Windows7Updated.iso প্রতিস্থাপন করতে পারেন যা কোনও স্থানে আপনি যার ফলে ডিস্ক ইমেজ তৈরি করতে চান।

oscdimg -m -u2 -bC:\Win7SP1ISO\boot\etfsboot.com C:\Win7SP1ISO\ C:\Windows7Updated.iso

আপনার এখন একটি আপডেট করা উইন্ডোজ 7 ISO ফাইল আছে।  আপনি উইন্ডোজ-এ সমন্বিত সরঞ্জামগুলি ব্যবহার করে একটি ডিস্কে এটি বার্ণ করতে পারেন, অথবা মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ ইউএসবি / ডিভিডি ডাউনলোড টুল দিয়ে এটি থেকে বুটযোগ্য ইউএসবি ড্রাইভ তৈরি করতে পারেন। এই ISO টি একটি নিরাপদ স্থানে সংরক্ষণ করা নিশ্চিত করুন, যাতে আপনি পুনরায় ইনস্টল করতে হলে পরে আপনি এটি আবার ব্যবহার করতে পারেন!

উইন্ডোজ 7 ISO ফাইল
উইন্ডোজ 7 ISO ফাইল

এখন মাইক্রোসফট উইন্ডোজ 7 ডাউনলোডের জন্য ISO ইমেজ প্রদান করে, এটি চমৎকার হবে যদি মাইক্রোসফট নিজে এই ছবিগুলি সর্বশেষ প্যাচগুলির সাথে আপডেট করে। যাইহোক, মাইক্রোসফট কিছুই একটি জন্য সার্ভিস প্যাক (বা একটি “বিল্ড” উইন্ডোজ ১০ এর জন্য) এটি করেনি, তাই আমরা আমাদের শ্বাস অধিষ্ঠিত করছি না।
অবশেষে বলি, এই প্রক্রিয়া টি যথেষ্ট জটিল। এখানে যতটুকু সম্ভব সহজ করে তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। আপনি চায়লে এই প্রক্রিয়া টি চেষ্টা করে,  কমেন্ট করে আপনার অভিজ্ঞতা জানাতে পারেন। আমরা পরবর্তিতে আর্‌ও সহজ করে তুলে ধরার চেষ্টা করব। আমাদের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।

আর্‌ও পড়ুনঃ 

 

Uncategorized

Apple I Pencil – এপেল আই পেন্সিল, এটা কি এবং কিভাবে কাজ করে? দেখে আসুন

প্রিয় বন্ধুরা, প্রথমে সালাম নিবেন। অন্যান্য ব্লগারদের মতো অযথা বকবক করে সময় নষ্ট না করে একেবারে ডিরেক্ট চলে যাই আসল টপিক এ..!!

এপেল আই পেন্সিল

এপেল পেন্সিলঃ

Apple কথাটি শোনে নাই এমন মানুষ নাই বললে ই চলে এখনকার দিনে। আজ আমি একটা টপিক নিয়ে একটু বিস্তারিত আলোচনা করতে যাচ্ছি যেইটা আমাদের দেশে এখনো তেমনভাবে প্রচলিত হয়নি এখনো। প্রোডাক্টটির নাম Apple Pencil (এপেল আই পেন্সিল). ২০১৫ এর নভেম্বর মাসের ১১ তারিখে বাজারে আসে প্রোডাক্ট টি। দুঃখ জনক হলেও সত্যি যে, পেন্সিলটি শুধু আইপ্যেড-প্রো এর সাথে এ কাজ করে। অন্য কোন Apple ডিভাইস এর সাথে নয়। এটির ডিজাইন টা অনেক প্রিমিয়াম। সাদা গ্লোসি প্লাস্টিক দিয়ে তৈরী হওয়ায় পেন্সিলটি দেখতে অনেক চমকপ্রদ। পেন্সিলটির সাইজ একটি নরমাল পেন্সিলের মতোই। তাই ধরতে কোনরকম আনকম্ফার্ট ফিল হবে না। পেন্সিল্টির ৩ টি পার্ট আছে। বাক্স খুললে ই সেট করার নিয়ম ছবি সহ দেওয়া আছে।( নিচে ছবি দেখুন)

এপেল আই পেন্সিল

এপেল আই পেন্সিল

এপেল আই পেন্সিল

চার্জ়িং ব্যবস্থাঃ

এপেল আই পেন্সিল

 

পেনসিল্টি প্রধানত চার্জ এ চলে। তবে মাত্র ১৫ সেকেন্ড চার্জ দিলেই ৩০ মিনিট অনায়াসে চলবে। ফুল চার্জে প্রায় ১২ ঘন্টা একটানা ব্যবহার করা যাবে। চার্জ দেবার ২ টা পদ্ধতি আছে। ১. চার্জিং এডেপ্টার দিয়ে, ২.আইফোন অথবা আইপ্যেড এর চার্জিং পোর্ট এরর মধ্যে ঢুকিয়ে দিয়ে। এটি একটি বিপদজনক কারন, একটু অঘটন ঘটলে ই পেনসিল এর চারজিং পোর্ট টি ভেঙ্গে যাবার সম্ভবনা আছে। এটির জন্য প্রোডাক্টিকে বাতিল করার ও সিদ্ধান্ট নেওয়া হয়েছিলো একবার। চার্জিং পোর্টটি ঢাকার জন্য একটি ক্যপ আছে যাতে চুম্বক ব্যবহার করা হয়েছে। ( ছবিতে দেখুন)

এপেল আই পেন্সিল

পেনসিলটি ব্লুটুথ এর সাথে কানেক্ট করে কাজ চালাতে হয়। কানেক্ট করার সময় আইপ্যেড এর চার্জিং পোর্ট এর মধ্যে ঢুকিয়ে পেয়ার করে নিতে হয়। তারপর কাজ সুরু করে। পেনসিলটিতে কোন প্রকারের আলো ব্যবজার করা হয়নি। তবে আপনি যদি এর চার্জ এর পরিমান দেখতে চান, তবে আইপ্যাড এর নোটিফিকেশন প্যেনাল থেকে দেখতে পারবেন।

এপেল আই পেন্সিল

এপেল আই পেন্সিল

আরো পড়ে আসতে পারেনঃ

 

যেভাবে কাজ করে এপেল আই পেন্সিল (I-Pencil)

এপেল আই পেন্সিল

এপেল আই পেন্সিল টির মধ্যে অনেক উচ্চমানের সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে। যেটি এতোটাই স্মুতলি কাজ করে যে, আপনার মনে হবে যেন আপনি কাগজের উপর ই কাজ করছেন একটি অরডিনারি পেনসিল দিয়ে। পেনসিলটি সেন্সরটি ডিসটেন্স, পজিশন, ফোর্স এবং টিল্ট মানে আপনি কেমনভাবে ধরে আছেন, এগুলি বুঝতে পারে। আপনি যত আস্তে চাপ দিয়ে আঁকবেন, ততটাই সরু এবং হালকা রেজাল্ট পাবেন আর যত বেশি চাপ দিয়ে কাজ করবেন ততটাই ডিপ এবং বোল্ড রেজাল্ট পাবেন। আবার পেনসিলটি বাকা করে নিলে নরমাল পেনসিলের মত ই আবছা আঁকানোর মত ফিনিসিং পাবেন। ৬০ ফ্রেম/ সেকেন্ড এ চলার কারনে আপনার কখন মনে ই হবেনা যে আপনি ভারচুয়ালি কাজ করছেন।

প্রথমত আপনি নোটস নামের বিল্ড-ইন এপস টাতে পেনসিল ইউজ করে ড্র করতে পারবেন। কিন্তু নোটশ এপস টাতে বেশি ফিচার নেই, একটু ভালোভাবে কাজ করার জন্য আপনাকে এপ স্টোর থেকে পেইড এপস ডাউনলোড করে নিতে হবে। তাছাড়া আপনি আঙুলের বদলে ও পেনসিলের কাজ করতে পারবেন, কিন্তু সোয়াইপ করে নোটিফিকেশন প্যানাল ইয়ে আসা যাবে না। সেক্ষেত্রে আপনার আঙুল ব্যবহার করতে হবে।

 

সর্বপরি এপেল আই পেন্সিলটি অনেকের কাছে অনেক কার্যকর বলে মনে হয়েছে। অনেক গ্রাফিক্স ডিজাইনার ইতোপূর্বে এর ব্যবহার করেছেন এবং তাদের কাছ থেকে আশানুরুপ উত্তর পাওয়া গেছে। এটি ৯৯ ডলার মানে আমাদের দেশে প্রাই ৭৫০০-৭৯০০ টাকা মুল্যে বাজারে এসেছিলো।

লেখকের মতামর:

আমার কাছে কয়েকটি বিষয় একটু উইয়ার্ড লেগেছে। চার্জিং সিসটেম টা এমন না করে নরমালি চার্জ দেবার মত করলে একটু ভালো হতো। রিস্ক টা একটু কম থাকত। সনি অথবা নেক্সাস এর সাথে দেওয়া পেনসিলের মত এর পেছনে ইরেজার এর সিসটেমটা দিলে একটু সুবিধা হত। আর এটি যাতে সকল Apple ডিভাইস এ চলে, এমনভাবে তৈরী করলে আরেকটু বেশি আগ্রহ হত গ্রাহকগন।

আশা করি ভালো লেগেছে, কোন প্রশ্ন অথবা সাজেশন থাকলে কমেন্ট এ জানাতে ভুল করবেন না….!! ভালো থাকবেন

টেকহিলস এর সাথেই থাকবেন।

আইওস

অবশেষে আসছে আইফোন ৭ ও ৭ প্লাস, সাথে এপেল ওয়াচ ২

 

[dropcap]এ[/dropcap]পেল এবার নিয়ে আসছে আইফোন ৭ এটা কোন নতুন খবর না, এটা আমরা জানি। কিন্তু কত তারিখে তারা এটা রিলিজ করবে বা কি কি নতুন ফিচার থাকছে এতে এটা আমরা জানি না। আসুন তাহলে জেনে আসি আইফোন নিয়ে বিত্তান্ত।

কত তারিখে আসছে আইফোন ৭

imac-apple-mockup-app-38544

কিছু দিন আগেই টম কুক বলেছে আইফোন ৭ এর উদ্ভোধন হবে ৭ই সেপ্টেমবর। তবে এটা বাজারে আসতে আসতে ১৯-২১ই সেপ্টেম্বর হতে পারে। আগামী ৭ তারিখে ফেন্সিস্কো তে ১০ টার সময় ইভেন্টের মাধ্যমে তারা আইফন ৭ উদ্ভোধন করবে। তারা একই সাথে এপেল ওয়াচ ও ২ রিলিজ করবে।

কি কি থাকছে আইফোন ৭ এ

pexels-photo

অনেকে অনেক কিছু ভাবছেন আইফোন ৭ নিয়ে, ভাবাটাই স্বাবাভিক কেননা আইফোন বলে কথা এটা কি আর যেমন তেমন হয়। কিন্তু না আইফোন ৭ এ তেমন কিছুই নতুন ফিচার যুক্ত হয়নি। হালকা কিছু পরির্বতন আর আইওএস ১০ ছাড়া তেমন কিছুই যুক্ত হয়নি এর সাথে। তারা যা যুক্ত করেছে এটা অনেক আগেই অনেকেই তাদের ফোন গুলোতে যুক্ত করেছিল। তাহলে আসুন দেখে আসি কি কি থাকছে নতুন আইফোন ৭এ।

  • আইফোন ৭ এ থাকছে ৪.৭” ও ৫.৫” ডিস্প্লে। আইফোন ৭ এ ৪.৭ ও আইফোন ৭ প্লাস এ ৫.৫” ডিস্প্লে ব্যবহার করা হবে।
  • এটাতে কোন হোম বাটন থাকছে না। আইফোন এর ইতিহাসে হইত এটা নতুন হতে পারে কিন্তু এখন প্রায় সকল ফোনেই আর হম বাটন থাকে না। তাই এটাকে নতুন্ত বলা যায় না।
  • আইফোন ৭ এ সব থেকে নতুন্ত ফিচার গুলোর মধ্য একটা হচ্ছে তাদের ক্যামেরা। তারা সব থেকে বেশি ইম্প্রুভ করেছে তাদের ক্যামেরা টা। কেননা তারা এবার ব্যবহার করছে ডুয়েল লেন্স ক্যামেরা। যদিও সেটা আইফোন ৭ এ পাবে না গ্রাহকেরা এটা শুধু আইফোন ৭ প্লাস এর গ্রাহকেরাই পাবে। তাই বুঝাই যাচ্ছে তারা পরির্বতন আনলেও সুবিধা দিতে পাচ্ছে না গ্রাহক দের।
  • এদের আরেকটা বড় পরির্বতন হচ্ছে, এতে কোন প্লাগ ইন জ্যাক নেই। তার মানে হেড ফোন ব্যবহার করা যাবে কোন জ্যাক বাদে। কিন্তু এতে কি ধরনের টেকনোলোজি ব্যবহার করা হয়েছে তা তারা এখন ও বলেনি।
  • ৩ডি (3D) টার্চ স্কিন আছে এতে।
  • স্টোরেজ ক্যাপাসিটি সেই আগের মতই আছে প্রায়, এতে ৩২ জিবি থেকে ২৫৬ জিবি রাখা হয়েছে।
  • এতে থাকছে হাইস্পিড এ১০ (A10) প্রসেসর।
  • এটাতে আইওএস ১০ ব্যবহার করা হয়েছে।

ইউজার দের জন্য কি এটি ভাল মানের ফোন হয়ে উঠবে

person-woman-eyes-face

গ্রাহকদের কথা চিন্তা করলে হয়তো অনেকেই আইফোন ৭ নিয়ে মেতে আছেন বা আশা নিয়ে আছেন। কিন্তু না এটা নিয়ে আশা করার তেমন কিছুই নেই কেননা আইফোন ৭ এ তেমন কিছুই নতুন ফিচার তারা যোগ করতে পারিনি। চলুন তাদের ফিচার গুলো একটু আলোচনা করি।

ডিজাইন

  • ওয়াটার প্রুভ  (Water prove)
  • মেটাল বডি

এগুলা ছাড়া তেমন কিছুই নতুন কিছু নাই এতে, তাই বলাই যায় যারা এটাকে নিয়ে বেশি ভেবেছিল তাদের জন্য দূঃ সংবাদ। তবে এবার এপেল হইত নীল (Blue) রঙ যুক্ত করবে। এর মুল কারণ হিসাবে ধরে নেয়া হয়ে হয়েছে এপেল ওয়াচ ২ কেননা এপেল ওয়াচ ২ নীল কালার ছাড়বে এপেল। তাই হয়ত আইফোন প্রেমীরা নতুন একটা আইফোন কালার পেতে যাচ্ছে।

হেডফোন

আইফোন-৭-ও-৭-প্লাস

হেডফোন কে এই জন্যই তুলে আনতে হচ্ছে কেননা এবার আইফোনেই হইত শুধু মাত্র জ্যাক বাদে হেডফোন কানেক্ট করাচ্ছে। যদিও এর আগে হুয়াই তাদের ফোনে লাইটিং কানেক্ট হেডফোন দিয়ে ছিল, কিন্তু তারা ৩.৫ মিলি হেডফোন জ্যাক রেখে দিয়েছিল। কিন্তু এপেল তা করছেনা তারা জ্যাক একেবারেই আর রাখছে না। তারা এপেল earbuds ও ব্যবহার করতে পারে হেডফোন কানেক্ট করার জন্য কিন্তু এখনো সঠিক ভাবে বলা যাচ্ছে আসলে কি ব্যবহার করা হয়েছে আইফোন ৭ এ। সব দিক দিয়ে ভাবলে দেখা যাচ্ছে যে হেডফোন এ যদি জ্যাক না থাকে তবে গ্রাহকেরা একটু অসুবিধার মধ্য পরবে।

ক্যামেরা

frogs-love-valentine-s-day-pose

ক্যামেরা যদিও ডুয়েল লেন্স করেছে আইফোন কিন্তু এপেল এর আগে হুয়াই, স্যমসাং ব্যবহার করেছে এই ডুয়েল লেন্স ক্যামেরা। আইফোন তাদের ক্যামেরা অনেক ভালমানের করলেও তারা এটা ইউজার দের জন্য সুবিধা জনক করে তুলতে পারেনি। ডুয়েল লেন্স করলেও আলো যদি বেশি না থাকে তবে ছবি ভাল তোলার আশা এবার ছাড়তে হবে আইফোন প্রেমী দেরকে। কিন্তু ডুয়েল লেন্স থাকার কারণে এবার হইত আগের থেকে ভাল মানের ক্যামেরা পাওয়া যাবে আশা করা যাচ্ছে।

এপেল ওয়াচ ২

pexels-photo(1)

এপেল ওয়াচ ২ আইফোন ৭ এর সাথেই উদ্ভোধন হবার কথা রয়েছে। এপেল ওয়াচ ২ তে এবার ব্যবহার করা হয়েছে apple watch OS 3। এতে আপনি পাচ্ছেন জিপিএস ট্রেক করা, আই ক্লাউড এর ব্যবহার করার সুবিধা সহ অনেক কিছু। তবে এর দাম হতে পারে তা এখনো সঠিক ভাবে বলা যাচ্ছেনা ।

শেষ কথা

সব দিকে বিবেচনা করলে দেখা যাচ্ছে আইফোন ৭ কে আমাদের যেমন আশা ছিল তা কিন্তু এপেল পুরো করতে পারছে না। সবাই হইত আশা করে ছিলাম এপেল আইফোন ৭ এ নতুন কিছু যুক্ত করবে কিন্তু তারা এর কিছুই করে পারছে না। তাদের হইত এত তারাতারি আইফোন ৭ টা রিলিজ করার দরকার ছিল না কিন্তু স্যামসাং ও হুয়াই এর সাথে মার্কেট ধরে রাখার জন্যই হইত তারা আইফোন ৭ কে একটু যলদি রিলিজ করে ফেলেছে।

Add your widget here