কম্পিউটিং

কিছু প্রয়োজনীয় Computer Shortcut Key। যা আপনার কাজে লাগতে পারে।

আপনি যদি একজন কম্পিউটার ইউজার হয়ে থাকেন, তবে কম্পিউটার চালানোর সময় আপনাকে অনেক Shortcut Key ব্যবহার করতে হয়। সব থেকে বড় কথা Computer Shortcut Key একজন ব্যবহারকারীকে ব্যবহার করা লাগবেই। এর সব থেকে বড় কারণ Computer Shortcut Key আপনার কম্পিউটারে কাজের সময় আরো কমিয়ে দেয় ও কাজ কে অনেক দ্রুত করে তোলে। একেক অপারেটিং সিস্টেমের জন্য একেক রকম Shortcut Key থাকে, কিন্তু সকল অপারেটিং সিস্টেমের shortcut key সাধারণত প্রায় একই হয়ে থাকে। এছাড়াও বিভিন্ন সফটওয়্যারের জন্য Shortcut Key থাকে, যা দিয়ে আপনি ওই সব সফটওয়্যার গুলো সহজে ব্যবহার করতে পারেন।

নিচে কিছু সফটওয়্যারের Shortcut Key দেওয়া হলোঃ

 

List of basic computer shortcut key:

basic shortcut of computer
basic shortcut of computer
  • Alt + F–File menu options in the current program.
  • Alt + E–Edits options in the current program.
  • Ctrl + (Left arrow) — Move one word to the left at a time.
  • Ctrl + (Right arrow) — Move one word to the right at a time.
  • F1–Universal help (for any sort of program).
  • Ctrl + A–Selects all text.
  • Shift + Home — Highlight from the current position to beginning of the line.
  • Shift + End — Highlight from the current position to end of the line.
  • Ctrl + X–Cuts the selected item.
  • Ctrl + Del–Cut selected item.
  • End — Go to the end of the current line.
  • Ctrl + End — Go to the end of a document.
  • Ctrl + C–Copy the selected item.
  • Ctrl + V–Paste the selected item.
  • Shift + Ins — Paste the selected item.
  • Ctrl + Ins– Copy the selected item.
  • Home — Takes the user to the beginning of the current line.
  • Ctrl + Home–Go to the beginning of the document.

Microsoft Word shortcut keys

  • Ctrl + A — Select all contents of the page.
  • Ctrl + B — Bold highlighted selection.
  • Ctrl + C — Copy selected text.
  • Ctrl + D — Font options.
  • Ctrl + E — Align selected text or line to the center.
  • Ctrl + F — Open find box.
  • Ctrl + I — Italicise highlighted selection.
  • Ctrl + G — Find and replace options.
  • Ctrl + K — Insert link.
  • Ctrl + X — Cut selected text.
  • Ctrl + N — Open new/blank document.
  • Ctrl + O — Open options.
  • Ctrl + P — Open the print window.
  • Ctrl + U — Underline highlighted selection.
  • Ctrl + V — Paste.
  • Ctrl + R — Align selected text or line to the right.
  • Ctrl + M — Indent the paragraph.
  • Ctrl + T — Hanging indent.
  • Ctrl + Y — Redo the last action performed.
  • Ctrl + Z — Undo last action.
  • Ctrl + H — Find and replace options.
  • Ctrl + J — Justify paragraph alignment.
  • Ctrl + L — Align selected text or line to the left.
  • Ctrl + Q — Align selected paragraph to the left.
  • F1 — Open Help.
  • Shift + F3 — Change case of selected text.
  • Shift + Insert — Paste.
  • F4 — Repeat the last action performed (Word 2000+).
  • F7 — Spell check selected text and/or document.
  • Shift + F7 — Activate the thesaurus..
  • Alt + Shift + D — Insert the current date.
  • Alt + Shift + T — Insert the current time.
  • Ctrl + W — Close document.
  • F12 — Save as.
  • Ctrl + S — Save.
  • Shift + F12 — Save
  • Ctrl + Shift + F — Change the font.
  • Ctrl + Shift + > — Increase selected font +1.
  • Ctrl + ] — Increase selected font +1.
  • Ctrl + [ — Decrease selected font -1.
  • Ctrl + Shift + * — View or hide non printing characters.
  • Ctrl + (Left arrow) — Move one word to the left.
  • Ctrl + (Right arrow) — Move one word to the right.
  • Ctrl + (Up arrow) — Move to the beginning of the line or paragraph.
  • Ctrl + (Down arrow) — Move to the end of the paragraph.
  • Ctrl + Del — Delete the word to the right of the cursor.
  • Ctrl + Backspace — Delete the word to the left of the cursor.
  • Ctrl + End — Move the cursor to end of the document.
  • Ctrl + Home — Move the cursor to the beginning of the document.
  • Ctrl + Space — Reset highlighted text to default font.
  • Ctrl + 1 — Single-space lines.
  • Ctrl + 2 — Double-space lines.
  • Ctrl + Alt + 1 Change text to heading 1.
  • Ctrl + Alt + 2 Change text to heading 2.
  • Ctrl + Alt + 3 Change text to heading 3.

Microsoft Windows shortcut keys list

  • Alt + Tab — Switch between open applications.
  • Alt + Shift + Tab — Switch backwards between open applications.
  • Alt + Print Screen — Create screenshot for the current program.
  • F2 — Rename selected icon.
  • F3 — Start find from the desktop.
  • F4 — Open the drive selection when browsing.
  • F5 — Refresh contents.
  • Alt + F4 — Close current open program.
  • Shift + F10 — Simulate right-click on selected item.
  • Shift + Del — Delete programs/files permanently.
  • Holding Shift During Boot up — Boot safe mode or bypass system files.
  • Holding Shift During Boot up — When putting in an audio CD, will prevent CD Player from playing.
  • Ctrl + F4 — Close window in program.
  • Ctrl + Plus Key– Automatically adjust widths of all columns in Windows Explorer.
  • Alt + Enter — Open the properties window of selected icon or program.
  • Ctrl + Alt + Del — Reboot/Windows task manager.
  • Ctrl + Esc — Bring up the start menu.
  • Alt + Esc — Switch between applications on the taskbar.

WINKEY shortcuts:

  • WINKEY + D — Bring desktop to the top of other windows.
  • WINKEY + M — Minimize all windows.
  • WINKEY + SHIFT + M — Undo the minimize done by WINKEY + M and WINKEY + D.
  • WINKEY + E — Open Microsoft Explorer.
  • WINKEY + F1 — Display the Microsoft Windows help.
  • WINKEY + R — Open the run window.
  • WINKEY + Pause /Break — Open the system properties window.
  • WINKEY + U — Open utility manager.
  • WINKEY + L — Lock the computer (Windows XP & later).
  • WINKEY + Tab — Cycle through open programs on the taskbar.
  • WINKEY + F — Display the Windows Search/Find feature.
  • WINKEY + CTRL + F — Display the search for computers window.

কম্পিউটারের ফ্রি কোর্স করুনঃ

  1. কম্পিউটার কি, এর বৈশিষ্ট্য ও ইতিহাস
  2. কম্পিউটারের বিভিন্ন প্রকার  – Types Of Computer In Bangla.
  3. কম্পিউটারের ব্যবহার – Uses Of Computer In Bangla
  4. কম্পিউটারের সুবিধা এবং অসুবিধা
  5. কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে – বাংলাতে কম্পিউটারের কাজ সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য
  6. কম্পিউটারের জেনারেশন | Generations Of Computer In Bangla?
  7. কম্পিউটারের ব্যাসিক যন্ত্রাংশ
  8. কম্পিউটার সফটওয়্যার কি

Outlook shortcut keys

  • Alt + S — Send the email.
  • Ctrl + C — Copy selected text.
  • Ctrl + X — Cut selected text.
  • Ctrl + P — Open print dialog box.
  • Ctrl + Shift + I — Open the inbox.
  • Ctrl + Shift + K — Add a new task.
  • Ctrl + Shift + C — Create a new contact.
  • Ctrl + Shift+ J — Create a new journal entry.
  • Ctrl + R — Reply to an email.
  • Ctrl + F — Forward an email.
  • Ctrl + N — Create a new email.
  • Ctrl + Shift + A — Create a new appointment to your calendar.
  • Ctrl + Shift + O — Open the outbox.
  • Ctrl + K — Complete name/email typed in address bar.
  • Ctrl + B — Bold highlighted selection.
  • Ctrl + I — Italicize highlighted selection.
  • Ctrl + U — Underline highlighted selection.

Excel shortcut keys

  • F2 — Edit the selected cell.
  • F5 — Go to a specific cell.
  • F7 — Spell check selected text and/or document.
  • F11 — Create chart
  • Ctrl + Shift + ; — Enter the current time.
  • Ctrl + ; — Enter the current date
  • Alt + Shift + F1 — Insert new worksheet.
  • Shift + F3 — Open the Excel formula window.
  • Shift + F5 — Bring up the search box
  • Ctrl + A — Select all contents of a worksheet.
  • Ctrl + B — Bold highlighted selection.
  • Ctrl + I — Italicize highlighted selection.
  • Ctrl + C — Copy selected text.
  • Ctrl + V — Paste
  • Ctrl + D — Fill
  • Ctrl + K — Insert link
  • Ctrl + F — Open find and replace options.
  • Ctrl + G — Open go-to options.
  • Ctrl + H — Open find and replace options.
  • Ctrl + U — Underline highlighted selection.
  • Ctrl + Y — Underline selected text.
  • Ctrl + 5 — Strikethrough highlighted selection.
  • Ctrl + O — Open options.
  • Ctrl + N — Open new document.
  • Ctrl + P — Open print dialog box.
  • Ctrl + S — Save.
  • Ctrl + Z — Undo last action.
  • Ctrl + Space — Select entire column.
  • Shift + Space — Select entire row.
  • Ctrl + W — Close document.
  • Ctrl + Shift + ! — Format number in comma format.
  • Ctrl + Shift + $ — Format number in currency format.
  • Ctrl + Shift + # — Format number in date format.
  • Ctrl + Shift + % — Format number in percentage format.
  • Ctrl + Shift + ^ — Format number in scientific format.
  • Ctrl + Shift + @ — Format number in time format.
  • Ctrl + (Right arrow) — Move to next section of text.
  • Ctrl + Page up & Page Down — Move between Excel worksheets in the same document.
  • Ctrl + Tab — Move between two or more open Excel files
  • Alt + = — Create the formula to sum all of the above cells.
  • Ctrl + — Insert the value of above cell into the current cell.
  • Ctrl + F9 — Minimize current window.
  • Ctrl + F10 — Maximize currently selected window.
  • Ctrl + F6 — Switch between open workbooks/windows.
আইওস

কিভাবে একটি Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করবেন?

কিভাবে একটি Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করবেন?

Chromebook গুলি আনুষ্ঠানিকভাবে উইন্ডোজ সমর্থন করে না। আপনি সাধারণত এমনকি Chrome OS- এর জন্য পরিকল্পিত একটি বিশেষ ধরনের BIOS দিয়ে উইন্ডোজ-Chromebook শীপ গুলি ইনস্টল করতে পারবেন না। কিন্তু অনেকগুলি Chromebook মডেলগুলিতে উইন্ডোজ ইনস্টল করা যায়। আসুন জেনে নেই, কিভাবে Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করবেন।

আপনার এই প্রক্রিয়া সম্পর্কে কেন জানা উচিৎ?

Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল
Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল

আমরা এটি আবার বলবো যে: এটি আনুষ্ঠানিকভাবে অফিসিয়ালী সমর্থিত নয়। এটি করার জন্য, আপনার Chromebook এর জন্য একটি প্রতিস্থাপন BIOS ইনস্টল করতে হবে (টেকনিক্যালি এটি একটি UEFI ফার্মওয়্যার, যা ঐতিহ্যগত BIOS এর আধুনিক প্রতিস্থাপন)। এটি আপনাকে উইন্ডোজ বুট করবে এবং ইনস্টল করতে দেবে। প্রতিস্থাপনের BIOS কেবল Chromebook মডেলগুলিতে ইনস্টল করা যাবে যা এটি সমর্থন করে, তাই আপনি এটি Chromebook এর সব মডেলে করতে পারবেন না। আপনার কিছু অতিরিক্ত হার্ডওয়্যার এর প্রয়োজন হবে। উইন্ডোজ ইনস্টল করার জন্য আপনার একটি USB কীবোর্ড এবং মাউস দরকার হবে, কারণ আপনার Chromebook এর অন্তর্নির্মিত কীবোর্ড এবং মাউস ইনস্টলারের মধ্যে কাজ করবে না। এবং আপনার পিসিতে উইন্ডোজ চালানোর জন্য আপনার Chromebook এর জন্য USB ইনস্টলেশন মিডিয়া তৈরি করতে হবে।

এমনকি আপনি উইন্ডোজ ইনস্টল করার পরেও কাজ গুলি এই নিয়মের বাইরে হবে না। বিভিন্ন ধরণের হার্ডওয়্যারের জন্য উইন্ডোজ হার্ডওয়্যার ড্রাইভারের সাথে শীপ টি চালায় না, যেমন টাচপ্যাডগুলি অনেকগুলি Chromebook গুলিতে অন্তর্ভূক্ত হয় (এটি যা বোঝায়; তা হল, Chromebook নির্মাতারা এই উপাদানগুলির জন্য উইন্ডোজ ড্রাইভার তৈরির বিষয়ে বিরক্ত হয় না)। যদি আপনি ভাগ্যবান হন, তাহলে এই উপাদানগুলির জন্য উইন্ডোজ সমর্থন দেওয়ার জন্য আপনি একসাথে তৃতীয় পক্ষের ড্রাইভার হ্যাক করে কাজ চালাতে পারেন।এছাড়াও, স্পষ্টতই, আপনার Chromebook এ যা আছে সব মুছে যাবে, তাই নিশ্চিত করুন যে আপনার কাছে এই সংরক্ষণ টির মাঝে গুরুত্বপূর্ণ কিছু নেই। (আপনার উচিত, Chrome OS সাধারণত Google এর সাথে আপনার ডেটা সিঙ্ক না করা)।

বিশেষ টিপসঃ এই প্রক্রিয়াটি চলাকালীন যদি আপনার Chromebook কখনও আটকে যায় তবে তবে মনে রাখবেন যে আপনি পাওয়ার বোতাম টিপে, দশ সেকেন্ডের জন্য এটি ধরে রাখলে Chromebook টিকে বন্ধ করতে পারবেন। এবং প্রয়োজন হলে সেটাই করবেন।

এটি আপনার Chromebook এ কাজ করবে?

আপনার Chromebook মডেলটি যদি সমর্থিত হয়, শুধু মাত্র তবেই আপনার Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করা উচিৎ। আপনার Chromebook এর নির্দিষ্ট মডেলের নির্দেশাবলী অনুসরণ করা উচিত, কারণ বিভিন্ন মডেলের ধাপগুলি একটু ভিন্ন হবে।

এখানে কিছু সহায়ক নির্দেশাবলি দেওয়া হলঃ

  • Chromebooks- তে হার্ডওয়্যার সমর্থন সাপোর্ট তালিকা: এই ওয়েবসাইটটি Chromebook মডেলগুলি; যা আপনি তালিকাভুক্ত করে উইন্ডোজ-এ ইনস্টল করতে পারেন, কোনও বিল্ট-ইন হার্ডওয়্যার উপাদানগুলির সাথে সম্পৃক্ত এবং পরবর্তীতে কাজ করবে না এমন তথ্যগুলি সম্পন্ন করে।
  • Chromebook গুলি ইনস্টলেশন সহায়তাকারী জন্য উইন্ডোজ: এই ওয়েবসাইটটি আপনাকে Chromebook এর আপনার মডেল নির্বাচন করতে দেয় এবং উইন্ডোজ এর জন্য ইনস্টলেশন নির্দেশিকাগুলি পেতে দেয়, যা আপনার Chromebook এর নির্দিষ্ট মডেলের হার্ডওয়্যার সক্ষম করবে এমন লিঙ্কগুলির সাথে সম্পৃক্ত করবে।
  • Chrrabrabook উপধারা: Chromebook গুলোতে উইন্ডোজ ইনস্টল করার জন্য একটি সম্প্রদায় নিখুঁত। যদি আপনি উইন্ডোজ সমর্থন করার জন্য Chromebook বা নির্দিষ্ট হার্ডওয়্যার উপাদান তৈরি করতে পারেন সে সম্পর্কে আরো তথ্য জানতে চান, তবে এটি অনুসন্ধানের জন্য একটি ভাল জায়গা।

যদি আপনার Chromebook উইন্ডোজ সমর্থন করতে পারে, তবে আপনাকে অভিনন্দন। আমরা আপনার নির্দিষ্ট হার্ডওয়্যার মডেলের জন্য সঠিকভাবে সেট আপ করার জন্য নিশ্চিত করতে Coolstar ইনস্টলেশন সহায়তার সাইটগুলির মত একটি ইনস্টলেশন গাইড অনুসরণ করার সুপারিশ করব।  যাইহোক, যে ওয়েবসাইট এর নির্দেশাবলী আরো বিস্তারিত হতে পারে, তাই আপনি সম্ভবত এই নির্দেশিকা কিছু তথ্য পাবেন যা অন্য কোথাও উপস্থিত নেই। আমরা একটি এসার C910 Chromebook, কোডনাম YUNA এ উইন্ডোজ ইনস্টল করার প্রক্রিয়াটি চালনার মাধ্যমে সহায়তা প্রদান করব। এই প্রক্রিয়া Chromebook এর অন্যান্য মডেলের অনুরূপ হবে, তবে কিছু কিছু জিনিস যেমন- মাদারবোর্ডের স্ক্রুর সুরক্ষার অবস্থান-ভিন্ন হবে।

ধাপ এক: Write Protect Screw রিমুভ করুন।

Chromebook এর একটি বিশেষ হার্ডওয়্যার বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা আপনাকে BIOS সংশোধন করতে বাধা দেয়। write protection screw নিষ্ক্রিয় করার জন্য আপনি অধিকাংশ Chromebooks এ BIOS প্রতিস্থাপন করতে পারেন, আপনাকে Chromebook খুলতে হবে, মাদারবোর্ডে write protection screw সনাক্ত, এবং এটি রিমুভ করুন। কিছু Chromebook গুলিতে, আপনি এর পরিবর্তে একটি write protection switch খুঁজে পেতে পারেন। প্রথমে, আপনার Chromebook পুরোপুরি শাট ডাউন করে, বন্ধ করুন। মাদারবোর্ডে অ্যাক্সেস লাভ করার জন্য Chromebook কে ফ্লিপ করুন এবং নীচের স্ক্রোল করুন। প্লাস্টিকের প্যানেল মুছে ফেলার আগে, আমাদের Chromebook এ, এটি 18 screws সরানোর প্রয়োজন। তাদের সরাতে ভুলবেন না! (এটি মাদারবোর্ডের একটি ম্যাগনেটিক ট্রে অংশ যা একটি বিস্ময়কর জিনিস।)

write protect screw সন্ধান করুন (বা আপনার Chromebook এর নির্দেশিকাটিতে কী কী- নির্দেশিকা নির্দেশ করে তা নির্ভর করে সুইচ সুরক্ষিত রাখুন)। আপনি স্ক্রুর নির্দিষ্ট অবস্থান সম্পর্কে আরও ডকুমেন্টেশন পেতে পারেন। তার জন্য আপনার ডিভাইসের নামটি এবং আপনার Chromebook এর মডেল এবং “write protect screw” হিসাবে অনুসন্ধান করার জন্য- এটি ওয়েবে সার্চ করতে পারেন। আমাদের Acer Chromebook C910 এর জন্য, এই SuperUser আলোচনা screw অবস্থান আমাদের পয়েন্ট। কিছু অন্যান্য giveaways ছিল। write protect screw মাদারবোর্ডে অন্য screws থেকে দৃশ্যত ভিন্ন হওয়া উচিত। এই বিশেষ স্ক্রুটি আমাদের Chromebook এ একটি গাঢ় ধূসর রং দেখায়, মাদারবোর্ডে অন্য স্ক্রুগুলি উজ্জ্বল রূপালী। আপনি স্ক্রু নীচে একটি উজ্জ্বল রূপালী দেখতে পারেন, মাদারবোর্ডের অন্যান্য screws তাদের অধীনে একটি ব্রোঞ্জ রঙ আছে।

স্ক্রুটি সরান এবং আপনার Chromebook এ নীচে পুনরায় সংযুক্ত করুন আপনি এখন Chromebook এর BIOS- এ লিখতে এবং সংশোধন করতে পারেন। স্ক্রু রাখুন যদি আপনি আবারও পরে আপনার BIOS রক্ষা করতে বা লিখতে চান।

ধাপ দুই: Developer মোড এনাবল করুনঃ

আপনাকে এখন Developer মোডটি এনাবল করতে হবে যাতে আপনি Chromebook এর সফ্টওয়্যারটি পরিবর্তন করতে পারেন। এটি আধুনিক Chromebook- এ করার জন্য, Chromebook চালু হয়ে গেলে Esc + Refresh + Power টিপুন। (“Refresh” বোতামটি সেই স্থানে অবস্থিত যেখানে “F3” কী টি একটি স্বাভাবিক কীবোর্ডের উপর থাকবে।) আপনার Chromebook বুট করবে এবং একটি বার্তা প্রদর্শন করবে যা “Chrome OS is missing or damaged”। Ctrl + D টিপুন এবং তারপর “turn OS verification OFF” এন্টার করুন এবং ডেভেলপার মোড এনাবল করুন।  এটি আপনার ডিফল্ট সেটিংস এ পুনরায় সেট করার পরে, আপনার Chromebook আপনার সমস্ত ব্যক্তিগত তথ্য ফাইল মুছে ফেলবে। আপনাকে আবার আপনার Google একাউন্টের সাথে সাইন ইন করতে হবে। যাইহোক, আপনার সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ডেটা Chromebook এর উপর সঞ্চিত হওয়ার পরিবর্তে অনলাইন পরিষেবাদির সাথে সিঙ্ক হওয়া উচিত।

যখন আপনি Chrome OS এ বুট করবেন, তখন আপনি “OS verification is OFF” বার্তা দেখতে পাবেন। আপনার বারবার বুট করার সময় প্রতিটি পর্দার বাইপাস করার জন্য আপনাকে Ctrl + D চাপতে হবে। চিন্তা করবেন না – আপনি নতুন BIOS ফ্ল্যাশ করার পরে, এই বার্তাটি চলে যাবে এবং আপনার কাজ শেষ হলে আপনার Chromebook সরাসরি উইন্ডোতে বুট করবে।

ধাপ তিন: নতুন BIOS এ ফ্ল্যাশ করতে হবে।

ChromeOS এর মধ্যে থেকে, আপনি এখন আপনার Chromebook এর নতুন BIOS ফ্ল্যাশ করতে পারেন। একটি টার্মিনাল উইন্ডো খুলতে Ctrl + Alt + T টিপুন। টার্মিনাল এর মধ্যে টাইপ করুন “shell” এবং একটি শক্তিশালী লিনাক্স শেল পরিবেশ অ্যাক্সেস করতে “Enter” টিপুন। আপনার Chromebook এর BIOS প্রতিস্থাপিত হবে স্ক্রিপ্ট ডাউনলোড এবং চালান নিম্ন কমান্ড টার্মিনাল উইন্ডোতে এবং তারপর “এন্টার” টিপুন:

cd ~; curl -L -O http://mrchromebox.tech/firmware-util.sh; sudo bash firmware-util.sh

এই কমান্ডটি আপনার হোম ডিরেক্টরীতে পরিবর্তিত হয়, http://mrchromebox.tech/firmware-util.sh স্ক্রিপ্ট ফাইলটি ডাউনলোড করে, এবং এটি রান করে। কিভাবে এই স্ক্রিপ্ট কাজ করে সেই সম্পর্কে আরো ডকুমেন্টেশনের জন্য ডেভেলপার এর ওয়েবসাইট এর হেল্প সেন্টারে যান।

স্ক্রিপ্ট একটি সহায়ক ইন্টারফেস উপস্থাপন করে যা আপনাকে প্রক্রিয়াটি চালাতে পারে। “3” টাইপ করে এবং “এন্টার” টিপে “কাস্টম কোরবট ফার্মওয়্যার (পূর্ণ ROM)” আপশন টি নির্বাচন করুন। “Y” টাইপ করে আপনার ফার্মওয়্যার ফ্ল্যাশ করতে এবং তারপর UEFI ফার্মওয়্যার ইনস্টল করতে “U” টাইপ করুন। যদি আপনি উইন্ডোজ চালনা করতে চান তবে “Legacy” অপশন টি নির্বাচন করবেন না। স্ক্রিপ্টটি আপনার Chromebook এর স্টক ফার্মওয়্যারের ব্যাকআপ কপি তৈরির প্রস্তাব দেবে এবং এটি আপনার জন্য একটি USB ড্রাইভে স্থান করবে।

এই ব্যাকআপ অনুলিপিটি তৈরি করা নিশ্চিত করুন এবং এটি কোথাও নিরাপদে সংরক্ষণ করুন। এটি ভবিষ্যতে Chromebook এর মূল BIOS পুনরুদ্ধার করা সহজ করবে। আপনাকে USB ড্রাইভে BIOS ব্যাকআপ ছাড়তে হবে না। আপনি একটি ফাইল পাবেন আপনি প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হওয়ার পরে USB ড্রাইভটি কপি করে অন্য কোথাও নিরাপদে সংরক্ষণ করতে পারবেন। ব্যাকআপ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হওয়ার পরে, স্ক্রিপ্টটি কোরব্যাট ফরমওয়্যারটি প্রতিস্থাপন করবে এবং আপনার Chromebook এ এটি ফ্ল্যাশ করবে। এটি সমাপ্ত হলে Chromebook বন্ধ করুন।  এই মুহুর্তে, যদি আপনি চান তবে আপনি write protect screw পুনরায় ইনস্টল করতে পারেন।

ধাপ চারঃ একটি উইন্ডোজ ইনস্টলেশন ড্রাইভ তৈরি করুনঃ

আপনি এখন আপনার Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করতে পারেন, তবে আপনাকে প্রথমে উইন্ডোজ ইনস্টলেশন মিডিয়া তৈরি করতে হবে। তবে আপনি এটি মাইক্রোসফট এর অফিসিয়াল পদ্ধতি ব্যবহার করে করতে পারবেন না – আপনাকে একটি ISO ডাউনলোড করতে হবে এবং Rufus নামে একটি টুল ব্যবহার করে একটি USB ড্রাইভে এটি বার্ণ করতে হবে। আপনাকে উইন্ডোজ পিসিতে প্রসেসের এই অংশটি সম্পাদন করতে হবে। মাইক্রোসফট থেকে একটি উইন্ডোজ 10 আইএসও ডাউনলোড করুন “Download tool now” ক্লিক করুন, “Create installation media for another PC” নির্বাচন করুন এবং এটিকে আপনার জন্য একটি ISO ফাইল ডাউনলোড করতে কমান্ড দিন। উইন্ডোজ 8.1 এবং 7 আপনার Chromebook এবং এর ড্রাইভারগুলির সাথে কাজ নাও করতে পারে।  আপনাকে Rufus ইউটিলিটি ডাউনলোড এবং চালানোর দরকার হবে, যা আপনি আপনার উইন্ডোজ ইনস্টলার USB ড্রাইভ তৈরি করতে ব্যবহার করবেন।

পিসির মধ্যে একটি USB ড্রাইভ প্লাগ করুন। আপনি উইন্ডোজ ইনস্টলারের জন্য এই USB ড্রাইভটি ব্যবহার করবেন এবং এটিতে যেকোনো ফাইল মুছে ফেলা হবে। (তাই চালিয়ে যাওয়ার আগে নিশ্চিত করুন যে আপনি গুরুত্বপূর্ণ ফাইল গুলি কপি করে রেখেছেন কি-না!) Rufus চালু করুন, আপনার USB ড্রাইভ নির্বাচন করুন এবং “GPT partition scheme for UEFI” এবং “NTFS” নির্বাচন করুন। ডানদিকে বোতামটি ক্লিক করুন “Create a bootable disk using” সিলেক্ট করুন এবং আপনার ডাউনলোড করা উইন্ডোজ 10 ISO ইমেজ নির্বাচন করুন। Rufus এর এই অপশন টি “GPT partition scheme for UEFI” অবিরত করার আগে ডাবল চেক করুন। আপনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডিফল্ট সেটিংসে পরিবর্তন করতে পারেন যখন আপনি ISO ফাইলটি নির্বাচন করেন। যদি আপনার ডবল চেক করা সমস্ত সেটিংস সঠিক হয়, তবে একটি উইন্ডোজ ইনস্টলার USB ড্রাইভ তৈরি করতে “Start” বোতামটি ক্লিক করুন।

ধাপ পাঁচঃ উইন্ডোজ ইনস্টল করুন

আপনি এখন Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করার জন্য প্রস্তুত। আপনার Chromebook এ USB ড্রাইভ এবং আপনার Chromebook এ power প্লাগ করুন। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে USB ড্রাইভ থেকে বুট হবে, এবং আপনাকে উইন্ডোজ ইনস্টলার দেখাবে। যদি এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে USB ড্রাইভ থেকে বুট না করে, তবে আপনার পর্দায় “Select Boot Option” প্রদর্শিত হলে যেকোনো কী টিপুন। আপনি তারপর “Boot Manager” নির্বাচন করতে পারেন এবং আপনার USB ডিভাইসগুলি নির্বাচন করতে পারেন। আপনার Chromebook এ একটি USB মাউস, একটি USB কীবোর্ড, বা উভয়ই সংযুক্ত করুন। উইন্ডোজ ইনস্টল করার সময় আপনাকে এইগুলি ব্যবহার করতে হবে। একটি USB কীবোর্ডের সাহায্যে আপনি ইন্টারফেসটি নেভিগেট করতে Tab, arrow, এবং Enter কী ব্যবহার করতে পারেন। একটি মাউস দিয়ে, আপনি অন-স্ক্রীন কীবোর্ডটি টেনে আনতে এবং এটি টাইপ করতে ব্যবহার করতে পারেন।

উইন্ডোজ ইনস্টলেশনের প্রক্রিয়ায় যান, Chrome OS এর জায়গায় আপনার Chromebook এ উইন্ডোজ ইনস্টল করুন। আপনি পছন্দ করেন তবে অভ্যন্তরীণ ড্রাইভ বিভাজনে বিনা দ্বিধায় সমস্ত অভ্যন্তরীণ পার্টিশন মুছে ফেলে এবং উইন্ডোজকে বরাদ্দকৃত স্থান ব্যবহার করে নিজেই ইনস্টল করতে বলেছি। মনে রাখবেন যে আপনার উইন্ডোজ ১০ ইনস্টল এবং ব্যবহার করার জন্য একটি প্রোডাক্ট কী দরকার নেই। আপনি সর্বদা একটি প্রোডাক্ট কী যোগ করতে পারেন অথবা মাইক্রোসফট থেকে একটি প্রোডাক্ট কী কিনে নিতে পারেন।  Chrome OS- এর ব্যাপারে উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই – যদি আপনি কখনও Chrome OS এর সাথে উইন্ডোজকে প্রতিস্থাপন করতে চান, তবে আপনি সহজেই ক্রোম চালানোর কম্পিউটারে Chrome OS পুনরুদ্ধারের ড্রাইভ তৈরি করতে পারেন এবং মূল Chrome OS অপারেটিং সিস্টেমটি পুনরুদ্ধার করতে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

উইন্ডোজ ইনস্টলার আংশিকভাবে পুনরায় চালু হবে। এটি আপনার USB ড্রাইভটি মুছে ফেলার ব্যাপারে নিশ্চিত হবে, অথবা এটি ইনস্টলারের শুরুতে পুনরায় আরম্ভ করবে। যদি আপনি আবার ইনস্টলার পর্দার প্রারম্ভ দেখতে পান, আপনার USB ড্রাইভটি সরান, আপনার Chromebook বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত পাওয়ার বোতামটি দীর্ঘক্ষণ চাপুন, এবং তারপরে এটি বুট করার জন্য পাওয়ার বোতাম টিপুন। এটি Chromebook এর অভ্যন্তরীণ ড্রাইভ থেকে উইন্ডোজকে বুট করা উচিত এবং সেটআপ প্রক্রিয়ার সমাপ্তি করা হবে।

ধাপ ছয়: আপনার হার্ডওয়্যারের জন্য তৃতীয়-পক্ষের ড্রাইভার ইনস্টল করুনঃ

আপনার এখন উইন্ডোজ ইনস্টল করা উচিত, এবং আপনার Chromebook এটি চালু করলে তা উইন্ডোতে বুট করা উচিত। আপনি প্রায় শেষ করে ফেলেছেন! আপনার যতো সম্ভব আপনার হার্ডওয়ার কাজ করার জন্য তৃতীয় পক্ষের ড্রাইভার ইনস্টল করতে হবে। এই ধাপের জন্য আপনাকে এখনও আপনার USB কীবোর্ড এবং মাউস এর প্রয়োজন হবে। এই তৃতীয় পক্ষের ড্রাইভার হিসাবে, তারা সঠিকভাবে স্বাক্ষরিত হয় না এবং উইন্ডোজ এ সাধারণত তাদের ইনস্টল করা যাবে না। আপনাকে তাদের ইনস্টল করার জন্য “test signing” সক্ষম করতে হবে। এই একটি ড্রাইভার; ড্রাইভার পরীক্ষার জন্য ডিজাইন করা হয়। এটি করার জন্য, অ্যাডমিনিস্ট্রেটর হিসাবে কমান্ড প্রম্পট খুলুন – স্টার্ট বাটনে ডান ক্লিক করুন বা Windows+X চাপুন এবং “Command Prompt (Administrator)” নির্বাচন করুন। নিম্নলিখিত কমান্ডটি চালান:

bcdedit -set testsigning on

এরপর আপনার Chromebook রিস্টার্ট করুন।

আপনি এখন তৃতীয় পক্ষের ড্রাইভার ইনস্টল করতে পারেন Chromebook ইন্সটলেশন গাইড Chromebook এর আপনার মডেলের জন্য সুপারিশ করে। উদাহরণস্বরূপ, আমাদের Acer C910 Chromebook এ, Chromebook এর চিপসেট, ইন্টেল এইচডি গ্রাফিক্স, রেপিড স্টোর টেকনোলোজি, কীবোর্ড, ট্র্যাকপ্যাড এবং রিয়েলটেক এইচডি অডিও জন্য ড্রাইভারগুলি ইনস্টল করতে হয়েছিল। ড্রাইভারগুলি ইনস্টল করার সময় উইন্ডোজ আপনাকে একটি নিরাপত্তা সতর্কতা দেখাবে। এটি যেহেতু এই অনাথিত, তৃতীয়-পক্ষের ড্রাইভার যা মাইক্রোসফ্ট দ্বারা স্বাক্ষরিত হয় না। যেকোনো ভাবে ড্রাইভার ইনস্টল করতে সম্মত হন। আপনি যদি শুধুমাত্র প্রস্তুতকারকের দ্বারা সরবরাহিত ড্রাইভার ব্যবহার করতে চান, তাহলে আপনি এটি প্রথম স্থানে করবেন না! পরে, Chromebook এর এই মডেলটি যথাযথভাবে কাজ করতে লাগলো আমরা USB কীবোর্ড এবং মাউস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে সক্ষম হচ্ছি এবং সাধারণত Chromebook ব্যবহার করি। Chromebook এর কীবোর্ডের “অনুসন্ধান” বোতাম এমনকি উইন্ডোজ কী-তে রূপান্তর হয়ে যায়।

যদিও কাজ টি যথেষ্ট কঠিন এবং ঝামেলাপূর্ণ; তবে এভাবে সকল নিয়ম গুলো ফলো করলে আশা করি নিজের লক্ষে পৌছাতে পারবেন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুনঃ 

ইন্টারনেট

কিভাবে google Chrome এ কম ব্যাটারি, মেমরি এবং CPU ব্যবহার করা যায়?

কিভাবে google Chrome এ কম ব্যাটারি, মেমরি এবং CPU ব্যবহার করা যায়?
কিভাবে google Chrome এ কম ব্যাটারি, মেমরি এবং CPU ব্যবহার করা যায়?

কিভাবে google Chrome এ কম ব্যাটারি, মেমরি এবং CPU ব্যবহার করা যায়?

google Chrome শুধুমাত্র একটা ব্রাউজারই না । আসলে এই নাম টির পিছনে কারণ হলো, ক্রোম নামে এটি আপনার পছন্দের কাজটি করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছিল । এটি শুধু ১টা ব্রাউজার না বরং এটি একটি সম্পূর্ণ অ্যাপ্লিকেশন প্ল্যাটফর্ম । গুগল এর ব্রাউজার টি-তে বেশ কিছুটা ব্যাটারি লাইফ খাওয়াচ্ছে বলে মনে করা হয়, বিশেষত Macs এর ক্ষেত্রে । সেই সাথে মেমরি হাঙ্গারও বটে! যার ফলে কম পরিমাণে RAM দিয়ে চালানো পিসি গুলোর ক্ষতি হতে পারে । এই সমস্যা সমাধানের টিপস দেওয়া হল এখানেঃ

ব্যাকগ্রাউন্ড এপস গুলো অবিরত চালিয়ে যাবেন নাঃ

আপনি সাধারণত আপনার ক্রোম ব্রাউজার টি বন্ধ করার পরও ক্রোমটি সাধারণত পটভূমিতে চলতে থাকে । আপনি যদি উইন্ডোজে চালান তবে আপনার সিস্টেম ট্রেতে একটি ছোট ক্রোম আইকন দেখতে পাবেন – এটি তীর আইকনের পিছনে ক্লিক করে বন্ধ করা যেতে পারে । আপনার সমস্ত Chrome উইন্ডো বন্ধ করার পরেও Chrome নিজেও পটভূমিতে চলবে । আপনি যদি একটি সীমিত পরিমাণের RAM সহ একটি পিসিতে মেমরি মুক্ত করতে চান তবে, এটি একটি সমস্যা । এর মানে হল যে, যখন এটি পটভূমিতে চলে তখন ক্রোমটি আপনার সিস্টেমের ব্যাটারির উপর প্রভাব ফেলে। Chrome বন্ধ করতে, আপনি ক্রোম আইকনে ডান ক্লিক করতে পারেন এবং Chrome এর Exit সিলেক্ট করে বন্ধ করতে পারেন । যাইহোক, যদি আপনি আসলে “Chrome apps” ইনস্টল করেন যা ব্যাকগ্রাউন্ডে চালানো এবং তাদের 24/7 চালানো প্রয়োজন, তবে আপনি এই বৈশিষ্ট্যটি ডিজেইবল করতে পারেন । এটি করার জন্য, Chrome এর সিস্টেম ট্রে আইকনে ডান-ক্লিক করুন এবং “Let Google Chrome run in the background” নির্বাচন করুন । যখন আপনি আপনার Chrome ব্রাউজার উইন্ডো বন্ধ করবেন, তখন Chrome নিজেও বন্ধ হয়ে যাবে ।

Chrome ব্রাউজার উইন্ডো বন্ধ
Chrome ব্রাউজার উইন্ডো বন্ধ

ব্রাউজার এক্সটেনশানগুলি রিমুভ করুনঃ

এটাকে যথেষ্ট বলা যাবে না যে- ব্রাউজার এক্সটেনশানগুলি আপনার ব্রাউজারটিকে ধীর করে দেবে; বরং এটি আরো মেমোরিটি গ্রহণ করবে এবং সিস্টেম রিসোর্সগুলি সরিয়ে দেবে । ক্রোমের মেনু আইকনে ক্লিক করে, More tools দিকে নির্দেশ করে এবং টাস্ক ম্যানেজার নির্বাচন করুন । তাহলে আপনার ব্রাউজারের সাথে চলমান Extension গুলি কে আপনি দেখতে পাবেন ।

এক্সটেনশন
এক্সটেনশন

উদাহরণস্বরূপ, এখানে উপরে আমরা দেখতে পাচ্ছি যে কোন এক্সটেনশন কত মেগাবাইট RAM এর ব্যবহার করছে । যদিও এখানে অতিরিক্ত এক্সটেনশন গুলো কে সরিয়ে রেখেছি । আপনার পিসি তে যে পরিমাণ এক্সটেনশন রাখবেন তাঁর উপর ভিত্তি করে আপনার র‍্যাম খরচ হবে । এছাড়া অতিরিক্ত এক্সটেনশন গুলো কম্পিউটারের CPU এর 1 থেকে 2 শতাংশ ব্যবহার করে ক্রমাগতভাবে এটির উপর চাপ ফেলে, তাই এটি অপ্রয়োজনীয়ভাবে ব্যাটারি শক্তিও হ্রাস করে । সূতরাং, অযাথা অযাচিত এক্সটেনশন গুলো না রাখাই উত্তম ।

এই তালিকার প্রতিটি ব্রাউজার এক্সটেনশন প্রদর্শিত হবে না । কিছু এক্সটেনশানগুলি তাদের নিজস্ব প্রসেস হিসাবেও চলতে থাকে না । পরিবর্তে,  যখন আপনি তাদের বৈশিষ্ট্যগুলি সরবরাহ করার জন্য ওয়েব পৃষ্ঠাগুলিকে লোড করেন, তখন তারা স্ক্রিপ্টগুলি চালায় । আপনার লোড করা প্রত্যেক ওয়েব পৃষ্ঠা অতিরিক্ত স্ক্রিপ্ট চালানোর জন্য আরো CPU এর উপর চাপ ফেলবে এবং এইভাবে আপনার ব্যাটারি আরো নিষ্কাশন করতে থাকবে । মেনু বাটনে ক্লিক করে, More tools সিলেক্ট করে এবং Extensions ক্লিক করার মাধ্যমে আপনার এক্সটেনশন পৃষ্ঠাটি দেখুন । টাস্ক ম্যানেজারে সংস্থানগুলি স্পষ্টভাবে hogging করে এবং আপনার দরকারী এক্সটেনশন গুলো কে রেখে, বাকী গুলো কে আনইনস্টল করে দিন । এতে আপনার ক্রোম ব্রাউজার টি হালকা হয়ে যাবে ।

এক্সটেনশন
এক্সটেনশন

ব্যাকগ্রাউন্ড পেইজ মুছে ফেলুনঃ

আপনি যদি আপনার Chrome টাস্ক ম্যানেজার পরীক্ষা করেন তবে আপনি “Background Page” নামক কিছু দেখতে পাবেন । এটি একটি এক্সটেনশন বা অ্যাপ্লিকেশান থেকে আলাদা । এখানে, আমরা দেখতে পাই যে একটি “Background Page: Google Drive” প্রক্রিয়াটি কিছুটা মেমরি খরচ করে এবং কিছুটা CPU ব্যবহার করে। Google ড্রাইভের আপনার ডকুমেন্ট গুলো অফলাইন অ্যাক্সেস সক্ষম করার মাধ্যমে Google ড্রাইভের পশ্চাদপট পৃষ্ঠাটি তৈরি করা হয় । এটি একটি ব্যাকগ্রাউন্ড পেইজ তৈরি করে যা চলমান থাকে, এমনকি যখন আপনার সমস্ত Google ড্রাইভ ট্যাব বন্ধ থাকে তখনও এটি চলতে থাকে । ব্যাকগ্রাউন্ড এর এই প্রক্রিয়া Google ড্রাইভে আপনার অফলাইন ক্যাশে সিঙ্ক করার জন্য দায়ী । যদি আপনি অফলাইন ডকুমেন্ট বৈশিষ্ট্যটি ব্যবহার না করেন এবং পরিবর্তে ডায়েট এ Chrome করেন সেক্ষেত্রে আপনি গুগল ড্রাইভ এর ওয়েব সাইট এ যেতে পারেন । সেটিংস স্ক্রিনে যান এবং অফলাইনে অপশন টি নির্বাচন করুন । ব্যাকগ্রাউন্ড পৃষ্ঠা অদৃশ্য হয়ে যাবে, তবে আপনার Google ড্রাইভের ডকুমেন্ট অফলাইনে আর অ্যাক্সেস থাকবে না ।

“Click-to-Play Plug-ins” এনাবল করুনঃ

Chrome এ ক্লিক-টু-প্লে প্লাগ-ইনগুলিকেও সক্ষম করতে ভুলবেন না । এটি অ্যাডোবি ফ্ল্যাশ এবং অন্যান্য প্লাগইনগুলিকে পটভূমিতে স্টার্ট এবং চলমান থেকে প্রতিরোধ করবে । ভারী ফ্ল্যাশ নোটিফিকেশন গুলি পটভূমিতে চলার কারণে আপনার ব্যাটারির ক্ষতি হবে না ।  শুধুমাত্র ফ্ল্যাশ সামগ্রী যা আপনি বিশেষভাবে অনুমতি দিয়েছেন তা চালাতে সক্ষম হবে । এটি করার জন্য, Chrome- এর সেটিংস পৃষ্ঠাটি খুলুন, “Show advanced settings” ক্লিক করুন, “Content settings” ক্লিক করুন এবং প্লাগইনগুলির অধীনে “Let me choose when to run plugin content” সিলেক্ট করুন ।

একসাথে অনেক গুলো ট্যাব খুলবেন নাঃ

এটিতে একসাথে ২০ টি ট্যাব খুলা যাবে । তবে যদি আপনি মেমরি সংরক্ষণ করতে চান তবে একসাথে অনেকগুলি ট্যাব চালাতে পারবেন না – অনেকগুলি ট্যাব চালানো বন্ধ করুন যাতে অনেকগুলি মেমোরি ব্যবহার না হয় । অন ব্যাটারিতে নিয়মিতভাবে খোলা ট্যাব সংখ্যা ছাঁটাই করার চেষ্টা করুন যাতে আপনার পটভূমিতে চলমান ওয়েব পৃষ্ঠাগুলির একটি গুচ্ছ না থাকে । যেহেতু আপনি টাস্ক ম্যানেজারের মধ্যে দেখতে পারেন, ব্যাকগ্রাউন্ডে চলমান ওয়েব পেজগুলি সম্ভাব্য CPU সম্পদগুলি ব্যবহার করে এবং আপনার ব্যাটারী নিষ্কাশন করতে পারে, তাই আপনার অবশ্যই সচেতন হয়ে যাওয়া উচিৎ । আপনি বরং তাদের বুক মার্ক করে রাখতে পারেন । যাতে পরে যখন তখন আপনি চালু করতে পারেন । আপনার সচেতনতাই আপনার আসল সুরক্ষা ।

একটি ভিন্ন ব্রাউজার ব্যবহারের চেষ্টা করুনঃ

যদি ক্রোম কে আপনার সুবিধে মনে না হয়, তবে আপনি অন্য ব্রাউজার চালানোর চেষ্টা করতে পারেন – বিশেষ করে যদি আপনার কাছে সহজ কোন কাজের প্রয়োজন থাকে এবং অযাচিতভাবে Chrome এর ব্রাউজার এক্সটেনশান বা শক্তিশালী বৈশিষ্ট্যগুলির প্রয়োজন না হয়, তবে অন্য কোন ব্রাউজার ব্যবহার করে দেখতে পারেন । উদাহরণস্বরূপ, অন্তর্ভুক্ত রয়েছে Safari ব্রাউজার Macs- এ অনেক বেশি ব্যাটারি-দক্ষ । মোজিলার ফায়ারফক্স উইন্ডোজে কম মেমরি ব্যবহার করে, তাই যদি আপনি পিসিতে কম পরিমাণ RAM উপস্থিত থাকে তবে এটি আপনার জন্য সহায়ক হবে ।

পরিশেষে, যতক্ষন আপনার যথেষ্ট মেমরি থাকবে, আধুনিক পিসিতে অতিরিক্ত মেমরির ব্যবহার অপ্রাসঙ্গিক । অব্যবহৃত মেমরি, মেমরির অপচয় করে । কিন্তু ব্যাটারি লাইফের উপর ক্রোমের প্রভাবটি দুর্ভাগ্যজনক । আশা করি গুগল ভবিষ্যতে এই মোকাবেলা করবে ।

আরও পড়ুনঃ

টিপস এন্ড ট্রিকস

কিভাবে আপনার স্মার্টফোন থেকে কোন ডকুমেন্ট ফ্যাক্স করবেন?

স্মার্টফোন থেকে কোন ডকুমেন্ট ফ্যাক্স
স্মার্টফোন থেকে কোন ডকুমেন্ট ফ্যাক্স

কিভাবে আপনার স্মার্টফোন থেকে কোন ডকুমেন্ট ফ্যাক্স করবেন

ফ্যাক্স করার জন্য আপনি আপনার ফোন, ট্যাবলেট, বা অন্য কোনও কম্পিউটার থেকে পিডিএফ ডাইরেক্টরীতে সাইন ইন করতে পারেন এবং এটি ইমেল করে কাউকে বন্ধ করতে পারেন। কিন্তু কিছু সংস্থা এখনও ইমেলের মাধ্যমে ডকুমেন্ট ফ্যাক্স গুলো গ্রহণ করে না – সেক্ষেত্রে আপনার ইমেইল এর পরিবর্তে ডকুমেন্ট গুলি ফ্যাক্স করতে হতে পারে। তবে উল্লেখ্য, আপনি একটি ফ্যাক্স মেশিন বা ডায়াল-আপ মডেম হিসাবে আপনার স্মার্টফোনের ফোন সংযোগ ব্যবহার করতে পারবেন না। আপনার জন্য ফ্যাক্সিং করে এমন একটি অ্যাপ্লিকেশন বা তৃতীয় পক্ষের পরিষেবাতে নির্ভর করতে হবে, যেমন আপনি আপনার পিসি থেকে মাঝে মাঝে ফ্যাক্স পাঠাবেন। বিস্তারিত জানুনঃ

এটা কি খরচসাপেক্ষ

আপনি একটি অ্যাপ্লিকেশন পাবেন না যা আপনাকে একদম বিনামূল্যে সীমাহীন সংখ্যক ফ্যাক্স পাঠাতে দেয়। এখানে আপনি পাবেন প্রতিটি অ্যাপ্লিকেশন নিয়মিতভাবে ব্যবহার করার জন্য আপনাকে অর্থ খরচ করবে। কিছু অ্যাপ্লিকেশন আপনাকে বিনামূল্যে একটি মুষ্টিমেয় পৃষ্ঠাগুলি পাঠাতে পারে, কিন্তু এটি এরকম। এই পরিষেবাগুলি আপনার জন্য টেলিফোন নেটওয়ার্ক দিয়ে ফোন নম্বর এবং ইন্টারফেস বজায় রাখতে হবে। আপনার স্মার্টফোন ডায়াল-আপ মোডেম হিসাবে কাজ করতে পারে না, তাই অনেকগুলো ফ্যাক্স পাঠানোর জন্য আপনাকে পরিষেবাগুলির সার্ভারগুলির উপর নির্ভর করে থাকতে হবে। কিন্তু, এর জন্য আপনাকে পয়সা খরচ করতে হবে। যদিও, এটি আপনি টাকা সংরক্ষণ এবং বিকল্প তুলনায় আরো সুবিধাজনক হতে পারে।

বিকল্প একটি দোকানে ফ্যাক্স মেশিন ব্যবহার, বা আপনার নিজের ফ্যাক্স মেশিন ক্রয় এবং একটি টেলিফোন ল্যান্ডলাইন এর জন্য এটি hooking পরিশোধ করা হয়। উভয় সম্ভবত উল্লেখযোগ্যভাবে আরো ব্যয়বহুল হবে যদি আপনি শুধু মাত্র কয়েকটি ফ্যাক্স পাঠাতে চান। এই পদ্ধতিটি আপনাকে সম্পূর্ণরূপে ইলেক্ট্রনিকভাবে সবকিছু করতে দেয়। আপনি আপনার ফোনে পিডিএফ ডকুমেন্ট সাইন এবং পূরণ করতে পারেন এবং তাদের ফ্যাক্স করতে পারেন। বা, কাগজ নথি স্ক্যান এবং তাদের ফ্যাক্স আপনার ফোন এর ক্যামেরা ব্যবহার করতে পারবেন।

আইফোন বা অ্যান্ড্রয়েড এপস

App Store এ “fax” লিখে অনুসন্ধান করুন এবং আপনি বেশ কয়েকটি অপশন পাবেন, তবে কোনও অ্যাপ্লিকেশন আসলেই বিনামূল্যে নয়। কোন অ্যাপ্লিকেশন হয়ত আপনাকে বিনামূল্যে নির্দিষ্ট কিছু পৃষ্ঠা ফ্যাক্স করার সুযোগ দিবে। কিন্তু এর পর থেকেই তাঁরা আপনাকে ফ্যাক্স পাঠানোর জন্য চার্জ করা শুরু করবে। কিন্তু একটি বড় সমস্যা আছে – যখন আপনি কিছু ফ্যাক্স করার প্রয়োজন তখন বেশিরভাগ সময়, আপনি খুব ব্যক্তিগত তথ্য সম্বলিত একটি ডকুমেন্ট ফ্যাক্সিং করছেন- এটি স্বাস্থ্যসেবা এবং যে ফ্যাক্সিং জিনিস প্রয়োজন তাঁর প্রতি ঝোঁক আছে, এবং তারা আপনার ব্যক্তিগত তথ্য’এর সঙ্গে ডিল করে। আপনার ফ্যাক্সে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য পরিচালনা করার জন্য কেবলমাত্র আপনার বিশ্বাস করা উচিত নয়। তাই আমরা আপনার জন্য কিছু সুপারিশ করছি।

Power Users: RingCentral Fax

মনে করুন, আপনি সব সময় সংবেদনশীল ফ্যাক্স পাঠাতে চাচ্ছেন, অথবা আপনি একটি কোম্পানির জন্য কাজ করছেন এবং আপনি একটি পরিষেবা তৈরি করার চেষ্টা করছেন, এক্ষেত্রে আপনি RingCentral ফ্যাক্স বেঁছে নিতে পারেন। AT&T এর মালিকানাধীন, সম্ভবত এটাই আপনার প্রয়োজন এর জন্য সর্বোত্তম পছন্দ হবে, বিশেষ করে তাদের অনেকগুলি নিরাপত্তা সুবিধা রয়েছে এবং বিভিন্ন ফ্যাক্স লাইনের একাধিক ব্যবহারকারীর জন্য সমর্থন রয়েছে। ফ্যাক্সিং এর সাথে সামঞ্জস্য করার সবচেয়ে ভাল উপায়গুলির মধ্যে একটি সত্যিকারের স্লিক মোবাইল অ্যাপও রয়েছে, অথবা আপনি ইমেলের মাধ্যমে ফ্যাক্সগুলি তার পরিবর্তে পাঠাতে পারেন। এটির অন্যান্য সমস্ত বৈশিষ্ট্য যা আপনি কল্পনা করতে পারেন, আউটলুক, গুগল ড্রাইভ, ড্রপবক্স, বক্স, এবং এমনকি আপনি একটি টোল-ফ্রী নম্বর পেতে পারেন। এটি এমন অনেক নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ব্যবসার জন্য বা নিরাপদ তথ্য প্রেরণকারী ব্যক্তিদের জন্য উপযোগী হবে। অবশ্যই, যদি আপনি কিছু ফ্যাক্স পাঠাতে চান, তবে আপনি তাদের সস্তা পরিকল্পনাগুলির জন্য সাইন আপ করতে পারেন যা প্রতি মাসে $ 7 এর নিচে শুরু হয় … এবং তারপর এক মাসে বা দুই মাস পর পরিষেবা টি বাতিল করে দিন।

Occasional User

আপনি যদি এখন শুধু কয়েকটা ফ্যাক্স পাঠাতে চান, তাহলে আপনি eFax নির্বাচন করতে পারেন, যা মূলত ফ্যাক্সিং ডিজিটালরূপে উদ্ভাবিত কোম্পানির নামে পরিচিত। তাদের একটি চমৎকার মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে যা আপনাকে ফ্যাক্স পাঠাতে ও গ্রহণ করতে দেয়।  আপনি শুধুমাত্র মাঝে মাঝে ফ্যাক্স পাঠানোর প্রয়োজন হলে, আমরা মাই ফ্যাক্সের পরামর্শও দিই, যা আপনাকে অর্থ প্রদান ছাড়াই বিনামূল্যের 10 টি পৃষ্ঠা পাঠাতে দেয়। যদিও এটি খুব বেশি পরিমাণে না। কিন্তু আপনি যদি আপনি যদি প্রতি মাসে আরও বেশি পৃষ্ঠা পাঠাতে চান, তাহলে আপনি একটি নিয়মিত পরিকল্পনাতে আপগ্রেড করতে পারেন। এই প্রদানকারীর উভয়ই সম্মানিত এবং একই বৃহৎ সংস্থা দ্বারা মালিকানাধীন যারা বছর ধরে এই সেবা দিচ্ছেন। রিংটেন্টেলের সমস্ত নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্যগুলি তাদের কাছে থাকতে পারে না, তবে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য কে কে নিয়ে নিচ্ছে তা নিয়ে চিন্তিত হওয়ার প্রয়োজন নেই।

ইমেইল দিয়ে ফ্যাক্সিং

আপনি যদি উইন্ডোজ ফোন, ব্ল্যাকবেরি, ফায়ার ট্যাবলেট, বা অন্য অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি সবসময় RingCentral, eFax, বা MyFax এর জন্য সাইন আপ করতে পারেন এবং তারপর ফ্যাক্স পাঠাতে তাদের ওয়েবসাইট ব্যবহার করতে পারেন – অথবা আপনি তাদের বৈশিষ্ট্য গুলোর দ্বারা ইমেলের মাধ্যমে ফ্যাক্স ব্যবহার করতে পারেন। প্রায় সব সরবরাহকারী; আপনি ফ্যাক্স করার চেষ্টা করছেন এমন একটি নম্বরে ইমেল পাঠিয়ে, কাস্টম শেষের সাথে মিলিয়ে আপনাকে ফ্যাক্স পাঠাতে দেয়।  উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনি 800-555-12২২ তে কিছু ফ্যাক্স করতে চান তবে আপনি ডকুমেন্টটি [email protected] (কোনও প্রকৃত ঠিকানা না) মত একটি ইমেল পাঠাতে পারবেন। ইমেলের মাধ্যমে ফ্যাক্সগুলি পাঠাতে সক্ষম হওয়া মানে যে কোনও মোবাইল ডিভাইস একটি অতিরিক্ত অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করার প্রয়োজনে ফ্যাক্সগুলি সহজেই পাঠাতে পারে।

পরিশেষে, প্রত্যেকের জন্য কোন একক সেরা ফ্যাক্স অ্যাপ্লিকেশন নেই যদি আপনি একটি চলমান ভিত্তিতে বেশ কয়েকটি পৃষ্ঠা পাঠাতে চান, RingCentral বা eFax মত একটি সাবস্ক্রিপশন ভিত্তিক সেবা সেরা হতে পারে। যদি আপনি শুধু একটি দ্রুত ফ্যাক্স পাঠাতে চান, মাইফ্যাক্স সম্ভবত আপনার সেরা হবে। যদি আপনি অন্য স্মার্টফোন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করেন (যেমন উইন্ডোজ ফোন), আপনার সর্বোত্তম বাজিটি একটি ফ্যাক্স পরিষেবা খুঁজে বের করে যা আপনাকে ইমেল দ্বারা ফ্যাক্স করতে দেয়, যা সাধারণত ফ্যাক্সগুলি পাঠাতে সবচেয়ে সহজ এবং সর্বোত্তম উপায়।

সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

আরও পড়ূনঃ

অ্যান্ড্রয়েড

অ্যান্ড্রোয়েড এর নতুন সংস্করণ ওরিও ৮ আসছে বাজারে।ফিচার গুলো জেনে নিন

অ্যান্ড্রোয়েড ওরিও ৮
অ্যান্ড্রোয়েড ওরিও ৮

অ্যান্ড্রোয়েড এর নতুন সংস্করণ ওরিও ৮ আসছে বাজারে। জেনে নিন, লেটেস্ট ফিচার গুলো। 

গুগল নিয়ে এলো ভিন্ন স্বাদে মজাদার ওরিও! কি ভাবছেন? না, ভাই! আমি ওরিও কুকিজের কথা বলিনি। এই ওরিও আপনি খেতে পারবেন না, শুধু ব্যবহার করতে পারবেন! অবশেষে গুগল অ্যান্ড্রোয়েড নতুন অপারেটিং সিস্টেম বাজারে আনতে চলেছে ‘অ্যান্ড্রোয়েড ওরিও ৮।‘ অনেক দিন ধরেই কানাঘুষা চলছিল গুগলের Android O অপারেটিং সিস্টেমের ব্যাপারে। কিন্তু, এই ‘O’ বর্ণ দিয়ে আসলে কি নাম রাখা হবে তা নিয়ে কৌতূহল ছিল মানুষের মাঝে। গুগলের প্রমোশনাল ভিডিও প্রকাশের পর অনেকের মনে জল্পনা তৈরি হয়েছিল যে অ্যান্ড্রয়েড ৮ সংস্করণটির নাম হতে পারে অ্যান্ড্রয়েড ওরিও কিংবা ওটমিল কুকি জাতীয় কিছু। শেষ পর্যন্ত ‘ও’ দিয়ে একটি নাম ঠিক করেছে গুগল। ‘ও’ দিয়ে নাম রেখেছে ‘ওরিও’।

ওরিও কি আমরা সবাইই জানি। ওরিও হচ্ছে বিশ্ব বিখ্যাত মজাদার কুকি। গুগলের অপারেটিং সিস্টেম গুলোর নাম রাখা হয় সাধারণত খাবার বা মিষ্টির নাম অনুসারে। অতীতে আমরা দেখেছি, কিটক্যাট, ললিপপ, নোগাট, মার্সম্যালো, স্যান্ডউইচ, জেলি বিন, ইত্যাদি খাবারের নামে বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমের নাম রাখতে। সেই আভিজাত্য বজায় রেখে এবারও গুগল ব্যাতিক্রম না করে বিখ্যাত বিস্কেট ওরিও’র নামে নাম রাখলো।

অ্যান্ড্রয়েড ‘ও’ মোবাইল অপারেটিং সিস্টেমের বিটা বিল্ড সংস্করণ উন্মুক্ত করার প্রায় পাঁচ মাস পর এর নাম ঠিক করলো গুগল। তবে মনে হতে পারে গুগল হঠাত কুকিজের নামেই বা নাম রাখতে গেল কেন? গুগল মনে করে, তাদের এই প্ল্যাটফর্ম যত খানি স্মার্ট, ক্ষিপ্র এবং শক্তিশালী, ততখানিই না-কি তারা মিষ্টি। তাই বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় কুকিজকে এ বারে থিম করা হয়েছে। এবং নাম দেওয়া হয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ৮.০ ওরিও।

গত মার্চে এর বিটা সংস্করণ আসে। এটি আসার পর এটিকে এটি পাঁচটি ডেভেলপার প্রিভিউয়ের মধ্য দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। বরাবরের মত  গুগল নতুন সংস্করণ টিকে প্রথমে ডেভেলপারদের ব্যবহার করতে দিয়েছিল, যাতে তাঁরা এই অপারেটিং সিস্টেম এবং ডিজাইনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ  অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করতে পারেন। পাঁচটি ডেভেলপার প্রিভিউয়ের মধ্য দিয়ে নিয়ে যাওয়ার পর গত মাসের শুরুর দিকে এর সর্বশেষ প্রিভিউ টি এসেছে। গুগল এর সংস্করণটিতে বেশ কিছু নতুন ফিচার যুক্ত করেছে। নতুন এই সংস্করণে পিকচার-ইন-পিকচার মোড, উন্নত ব্যাটারি অপটিমাইজেশনসহ বিভিন্ন ফিচার উন্নত করা হয়েছে। গুগলের পরবর্তী পিক্সেল স্মার্টফোনে অ্যান্ড্রয়েড ওরিও সংস্করণ থাকবে। এর উন্নত ফিচার গুলি নিশ্চয় ব্যবহারকারিদের আকৃষ্ট করতে পারবে। চলুন এক নজরে দেখে নেওয়া যাক, কী কী ফিচার আছে এই ভার্সনটিতেঃ

পিকচার ইন পিকচারঃ

পিকচার ইন পিকচার ফিচার, এর নামে হল- আপনি একই সময়ে একই সাথে দু’টো এপস এ কাজ করতে পারবেন। বুঝেন নি?মনে করুন, আপনি আপনার বন্ধু বা কারও সাথে ইমোতে ভিডিও চ্যাট করছে। ঠিক একই সময়ে আপনি ফেসবুক বা হোয়াটস আপস বা অন্য কোন এপসেও কাজ করতে পারবেন। এই ফিচার টা সত্যিই বিশেষ কাজে দিবে, যদি আপনার একাধিক গার্ল ফ্রেন্ড থেকে থাকে! 😛

 

অ্যান্ড্রোয়েড ওরিও ৮
পিকচার ইন পিকচার

 

নোটিফিকেশনঃ 

কোন এপসের নোটিফিকেশন আসলে এটি ডট সাইন দেখাবে। সেটাতে ক্লিক করলে আপনাকে সরাসরি সেটা এপস এ নিয়ে যাবে। এছাড়া আপনি এই নোটিফিকেশন ফিচারের মাধ্যমে সহজেই আপনার বিভিন্ন এপসের নোটিফিকেশন গুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। মনে করুন, আপনাকে ফেসবুকে কে ট্যাগ করলো, কে কোন গ্রুপে এড করলো এই নোটিফিকেশন গুলো বন্ধ রেখে, অন্যান্য নোটীফিকেশন গুলোকে অন রাখবেন। তবে সহজেই আপনি এটা করতে পারবেন। এটা যথেষ্ট প্রয়োজনীয় একটি ফিচার, যা ব্যবহারকারীদের আকৃষ্ট করতে পারে। এই ফিচারটির ব্যাখ্যা করে গুগল লিখেছেন: “ব্যবহারকারীরা একসঙ্গে সমস্ত অ্যাপস’র নোটিফিকেশন পরিচালনার পরিবর্তে ব্যবহারকারীর প্রতিটি চ্যানেলে আচরণ পরিবর্তন বা নিয়ন্ত্রন করতে পারে।”

অ্যান্ড্রোয়েড ওরিও ৮
অ্যান্ড্রোয়েড ওরিও ৮

ব্যাকগ্রাউন্ড লিমিটঃ

অ্যান্ড্রোয়েড ওরিও ৮
অ্যান্ড্রোয়েড ওরিও ৮

এই ফিচারটি ব্যাকগ্রাউন্ডে চলতে থাকা এপ্লিকেশনগুলোর উপর কাজ করবে-বিশেষত ব্যাকগ্রাউন্ড সার্ভিসের নিয়মানুসারে এবং লোকেশন সার্ভিস ব্যবহারের ক্ষেত্রে গুরুত্ব বহন করবে। আপনি যে অ্যাপ্লিকেশানগুলিকে সর্বদা কম ব্যবহার করেন তাতে পটভূমির কার্যকলাপ হ্রাস করতে সহায়তা করবে এই ফিচার। এই পরিবর্তনটি এমন কিছু অ্যাপ্লিকেশন  তৈরি করা সহজ করে দেবে যা  ব্যবহারকারীর ডিভাইস এবং ব্যাটারিতে কম প্রভাব ফেলে।

 

অটোফিলঃ

এটি দারুন একটি ফিচার। অটোফিল সুপারসনিক গতিতে আপনার পছন্দের অ্যাপ্লিকেশানগুলিতে আপনার লগইন কী-ওয়ার্ড গুলি মনে করে রেখে আপনার লগইন করা সহজ করে দিবে। আরেকটু খুলে বলি, মূলত আমরা যেভাবে ডিফল্ট কিবোর্ড নির্বাচন করতে পারছি, ঠিক তেমনি বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনে লগইনের সময় আইডি-পাসওয়ার্ড দেয়ার জন্য পাসওয়ার্ড ম্যানেজার অ্যাপ নির্বাচন করা যাবে। এই পাসওয়ার্ড ম্যানেজার অ্যাপ টি তখন আপনার সেই অ্যাপের জন্য ইউজারনেম-পাসওয়ার্ড এন্টার করবে। এভাবে অটোফিল কাজ করবে। এটি আপনার পছন্দের পাসওয়ার্ড ম্যানেজার অ্যাপ্লিকেশনগুলিকে অ্যানড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের সাথে কাজ করার অনুমতি দেবে, যাতে আপনি তাদের অ্যাক্সেস করতে পারেন।

অ্যাডাপটিভ আইকনঃ

আরেকটি প্রত্যাশিত বৈশিষ্ট্য অ্যাডাপটিভ আইকন যোগ করা। এর মানে হল ডেভেলপাররা বিভিন্ন আকারের অ্যাপ্লিকেশন আইকন ব্যবহার করতে সক্ষম হবে। অ্যাপ আইকন ব্যাজ নোটিফিকেশনগুলিও সমর্থন করবে, যেমনটি পূর্বে উল্লিখিত হয়েছে। এটি সকল ফোনেই বিভিন্ন ইন্টারফেসে কাজ করবে। নতুন আইকন অ্যানিমেটেড করা যাবে যা আরো প্রাণবন্ত হবে।

বেটার কীবোর্ড নেভিগেশনঃ

আরেকটি বড় পরিবর্তন হল কীবোর্ড নেভিগেশনের উন্নতি। Google এর মতে, আরও অনেক ব্যবহারকারীরা Google Chrome OS এ প্লে স্টোরের আগমনের জন্য একটি ফিজিক্যাল  কীবোর্ড ব্যবহার করে অ্যাপ্লিকেশানগুলিতে নেভিগেট করছে।

বেটার ব্লুটুথ অডিওঃ

গুগল এছাড়াও সনি এর LDAC কোডেক যুক্ত করেছে, যা জাপানী টেক জায়ান্ট এন্ড্রোয়েড কে দান করেছে। যা বর্তমানে ব্যবহৃত ব্লুটুথ A2DP প্রোটোকল এর চে’য়ে অনেক ভাল কাজ করবে। এছাড়া, অ্যান্ড্রয়েড ও’ উচ্চমানের ব্লুটুথ অডিও কোডেক সমর্থন করবে। কোম্পানীটি আউডিয়ো প্রবর্তন করছে, যা উন্নত নিম্ন-স্বচ্ছতা অডিওতে পরিণত হবে। ফার্মটি বলছে এটি একটি “নতুন নেটিভ এপিআই যা বিশেষভাবে অ্যাপ্লিকেশনগুলির জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

রিলিজ ডেটঃ

পিক্সেল এবং পিক্সেল এক্সেলে’র পাশাপাশি নেক্সাস 6 পি, নেক্সাস 5 এক্স, নেক্সাস প্লেয়ার এবং পিক্সেল সি এর জন্য প্রথমে অ্যান্ড্রয়েড ওরিও আপডেটটি চালু করা হয়েছে। অন্যান্য ডিভাইস গুলোতে কবে এর আপডেট পাওয়া যাবে তা বিভিন্ন কারণের উপর নির্ভর করছে। যেমন ধরুন, আপনার ফোন প্রস্তুতকারকের হালনাগাদ ট্র্যাক রেকর্ড,  আপনি কি ফোন ব্যবহার করছেন, আপনার ফোনটি আনলক বা ক্যারিয়ার-ব্র্যান্ডেড,  আপনার লোকেশন ইত্যাদির উপর নির্ভর করে। তবে, আশা করা যায়, এই মাসের শেষের দিকে আমরা অ্যান্ড্রোয়েড ও বা ওরিও’র আপডেট পেয়ে যাব।

পরিশেষে, নতুন আপডেট কখন পাবো, আর ফিচার গুলো কেমন হবে তা দেখা এখন শুধু সময়ের ব্যাপার। তবে, সঠিক সময়ে আপডেট দিতে পারলে আশা করা যায়, ব্যবহারকারীদের এই সংস্করণ টি নজর কাড়তে পারবে। জয়তু অ্যান্ড্রোয়েড মামা।

আরও পড়ুনঃ

টিপস এন্ড ট্রিকস

কিভাবে ফোনের ফেসবুক এপস ব্যবহার করে পাবলিক ওয়াই ফাই খুঁজে পাবেন?

ফোনের ফেসবুক এপস ব্যবহার করে পাবলিক ওয়াই ফাই খুঁজে পান
ফোনের ফেসবুক এপস ব্যবহার করে পাবলিক ওয়াই ফাই খুঁজে পান

কিভাবে ফোনের ফেসবুক এপস ব্যবহার করে পাবলিক ওয়াই ফাই খুঁজে পাবেন?

আমাদের প্রায় সবারই স্মার্ট ফোনে ফেসবুক এপস টি আছে। কেমন হয়, যদি আমরা ফোনের ফেসবুক এপস ব্যবহার করে পাবলিক ওয়াই ফাই খুঁজে পায়? হ্যাঁ! ভাই, ঠিকই শুনেছেন। আপনার ফোনে থাকা ফেসবুক এপস টি ব্যবহার করে আপনি সহজেই আপনার আশেপাশের ফ্রী পাবলিক ওয়াই ফাই পরিশেবা দিয়ে থাকে এমন লোকাল ওয়াই ফাই গুলো খুঁজে পেতে পারেন। টুলটি আপনি কিভাবে ব্যবহার করবেন, তা এই পোষ্টে স্ক্রীন শট সহ দেওয়া আছে।

ফেইসবুকের ওয়াই-ফাই টুলটি একটি বিল্ট-ইন মিনি-অ্যাপস এর একটি গুচ্ছ। ফেসবুক এখানে একটি লিস্ট রাখে যা ফ্রী, পাবলিক ওয়াই ফাই, হটস্পট গুলো আপনার সামনে তুলে ধরে। সার্ভার গুলিকে; তাদের ব্যবসার প্রোফাইল পৃষ্ঠাগুলির মাধ্যমে নিশ্চিত করতে হবে যে তারা Wi-Fi প্রদান করে এবং তাদের সর্বজনীন নেটওয়ার্কের নাম অন্তর্ভুক্ত করে। সুতরাং যদি আপনি ফেইসবুকের অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে Wi-Fi খুঁজে পান, তাহলে আপনি নিশ্চিত হতে পারেন যে সেখানে একটি খোলা ফ্রী ওয়াই ফাই নেটওয়ার্ক রয়েছে। এবং আপনি সেটা তখন ব্যবহার করতে পারবেন।

কিভাবে টুলটি ব্যবহার করবেন?

Wi-Fi finder টুলটি খুঁজতে, ফেসবুক অ্যাপ্লিকেশনটি খুলুন এবং উপরে ডানদিকের কোণায় মেনু বোতামটি চাপুন।

Menu
Menu

অ্যাপস বিভাগে স্ক্রোল করুন See All চাপুন এবং তালিকায় ওয়াই ফাই  Find Wi-Fi অপশন টি খুঁজে, সেটা চাপুন।

Wi-Fi finder
Wi-Fi finder

আপনি যখন প্রথমবার Find Wi-Fi অপশন টি ব্যবহার করবেন, তখন আপনাকে ওয়াই-ফাই স্পটগুলি খুঁজতে আপনার বর্তমান লোকেশন এবং অবস্থান হিস্টোরি ব্যবহার করার অনুমতি দিতে হবে। যদি আপনি অনুমতি না দেন, তবে ফেসবুক আপনার অবস্থান অ্যাক্সেস করবে না। (এটি আপনাকে ট্র্যাকিং করতে পারে; এই অনুমতি যতক্ষন না আপনি টুল টি-কে দিচ্ছেন, ততক্ষন এটি আপনাকে এক্সেস করবে না)  তবে আপনি যদি পরবর্তীতে এটি ব্যবহার করতে না চান, তবে এটি বন্ধ করতে পারেন।

Enable Wi-Fi finder
Enable Wi-Fi finder

যদি লোকেশন অন না থাকে, তবে এরপর আপনাকে লোকেশন অন করার জন্য বলবে। তখন লোকেশন টা অন করে দিন।

Turn on location
Turn on location

প্রথমত, আপনি আপনার চারপাশের নেটওয়ার্কে একটি তালিকা দেখতে পাবেন যা পাবলিক Wi-Fi অফার করে। আপনি store hours এবং নেটওয়ার্ক নাম দেখতে পাবেন, যাতে যখন আপনি সার্চ করবেন তখন আপনি সহজেই এটি খুঁজে পেতে পারেন। এই তালিকা আপনার বর্তমান অবস্থান থেকে দূরত্ব দ্বারা আদেশ প্রদর্শিত হবে। অর্থাৎ একটা নির্দিষ্ট দূরুত্ব পর্যন্ত এটা ওয়াইফাই এর জন্য সার্চ করবে,।

বিকল্পভাবে, আপনি একটি মানচিত্রে অবস্থানগুলি দেখতে এবং অন্যান্য এলাকার অন্বেষণ করতে ম্যাপ অপশন টি ট্যাপ করতে পারেন।

মানচিত্রের স্ক্রীনে, আপনি প্রায় প্যান করতে পারেন এবং আরও ফ্রী Wi-Fi গুলো খুঁজে পেতে এই এলাকাটি অনুসন্ধান করতে পারেন।  মনে করুন, আপনি শহরের কোন এক জায়গা তে গিয়েছেন, এখন আপনার বিশেষ কোন কারনে নেটে ঢুকার প্রয়োজন। কিন্তু আপনার কাছে নেট কানেকশন নেই বা মডেম আনতে ভুলে গেছেন। আপনার ল্যাপটপে কাজ করার জন্য একটি জায়গা খুঁজতে হবে। সেক্ষেত্রে ওয়াই-ফাই প্রদান করে এমন নেটওয়ার্কে সম্পর্কে তথ্য খুঁজতে আপুনার ফোনের Find Wi-Fi অপহনের কোনের দিকে একটা বিন্দু দেখতে পাবেন, সে বিন্দুতে চাপুন। তাহলেই এটি আশেপাশের নেটয়ার্ক গুলো কে সার্চ করতে শুরু করবে এবং কোন ফ্রী ওয়াই ফাই পরিশেবা আছে কি-না তা দেখাবে।

উল্লেখ্য, যখন এই নেটওয়ার্কগুলি তাদের ব্যবসার(ওয়াই ফাই) তালিকা পৃষ্ঠা অনুসারে সর্বজনীনভাবে উপলভ্য না হয়, এবং এক্সেস পাবার জন্য পাসওয়ার্ড চায় (অনেক পাবলিক নেটওয়ার্ক আছে দেখবেন, যেটা এক্সেস করার জন্যও পাসওয়ার্ড এর দরকার হয়। যেমন, আমাদের কুষ্টিয়া সরকারী কলেজের ওয়াইফাই পাবলিক করা, কিন্তু এক্সেস পেতে পাসওয়ার্ড লাগে। যারা পাসওয়ার্ড জানে, শুধু তারাই ব্যবহার করতে পারে।) । এক্ষেত্রে দুর্ভাগ্যবশত, ফেসবুক এই তথ্য প্রদান করে না। অর্থাৎ, কোন পাবলিক নেটওয়ার্ক আছে কি-না তা দেখাবে না। ফেসবুক শুধু সে গুলোকেই দেখায়, যেগুলো তে আপনি সরাসরি কোন শর্ত ছাড়াই এক্সেস করতে পারবেন। যাইহোক, বিশেষ প্রয়োজনে আপনি ওয়াইফাই প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান টির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন অথবা আপনি যখন সেখানে পৌঁছাবেন তখন কারো সাথে পাসওয়ার্ড টির জন্য যোগাযোগ করতে পারেন। পাবলিক নেটয়ার্কের পাসওয়ার্ড অনেকেরই জানা থাকে।

আপনি ওয়াইফাই টির খোঁজ পেয়ে গেলে, আপনি সাধারণত আপনার ফোন বা ল্যাপটপের মতো Wi-Fi নেটওয়ার্কে লগ ইন করতে পারেন। ফেসবুক স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনাকে কোনও নেটওয়ার্কে সংযোগ করে না, তবে এটি এমন একটি সহজ সরঞ্জাম যা আপনার শহরের কাছাকাছি যেখানে খোলা ওয়াই ফাই রয়েছে তা খুঁজে দেয়।

কিভাবে Find Wi-Fi’s Location Tracking টার্ন অফ করবেন?

মনে করুন আপনি- আপনার নির্দিষ্ট একটা জায়গার মধ্যে একটি Wi-Fi নেটওয়ার্ক খুঁজে প্রয়োজন, কিন্তু আপনি চায়ছেন না-যে ফেসবুক আপনার অবস্থান এর উপর নজর রাখুক। আপনি আপনার ফেসবুক সেটিংস এ গিয়ে তা অক্ষম করতে পারেন। এটি দেখার জন্য, উপরের মেনু আইকনটিতে ক্লিক করুন (যেমনটি আপনি প্রথম ধাপে করেছেন) সেই ভাবে, অ্যাকাউন্ট সেটিংস খোঁজার জন্য নিচে স্ক্রোল করুন।

Account Setting
Account Setting

এরপর Location এ ট্যাপ করুন।

Location
Location

পৃষ্ঠার মাঝখানে, আপনি একটি টগলড দেখতে পাবেন যা Location History পড়বে। এই টগলটি ডিজেইবল করুন। আপনি একটি প্রম্পট দেখতে পাবেন যা আপনাকে জানতে দেয় যে কোন ফেসবুক মিনি “apps” এর আপনি অ্যাক্সেস হারাবেন (এবং, ফলস্বরূপ, আপনার অবস্থানের অ্যাক্সেস থাকবে না)। টার্ন অফ  করে  Ok বাটন চাপুন।

এখন, এই পরিষেবাগুলি ব্যবহার করে ফেসবুক আপনার অবস্থানটি ট্র্যাকিং করবে না। যদি আপনি আবার ফেসবুকের অবস্থান সরঞ্জামগুলি ব্যবহার করতে চান তবে এটি আপনার কাছে আপনার অবস্থান ব্যবহার করার আগে এটি করার অনুমতি নেবে। আশা করি পোষ্ট টি বুঝতে আপনার কোন সমস্যা হয়নি। আরো পোষ্ট পেতে নিয়মিত ভাবে আমাদের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুনঃ

টিপস এন্ড ট্রিকস

কেন আপনার সেল ফোন অন্য ক্যারিয়ারে পরিবর্তন করা যাবে না? কারণ জানুন।

কেন আপনার সেল ফোন অন্য ক্যারিয়ারে পরিবর্তন করা যাবে না?
কেন আপনার সেল ফোন অন্য ক্যারিয়ারে পরিবর্তন করা যাবে না?

কেন আপনার সেল ফোন অন্য ক্যারিয়ারে পরিবর্তন করা যাবে না? কারণ জানুন।

আপনি একটি ল্যাপটপ বা ওয়াই ফাই ট্যাবলেট কিনতে এবং বিশ্বের যে কোন জায়গায় Wi-Fi এ এটি ব্যবহার করতে পারেন। তবে কেন মোবাইল ফোন এবং মোবাইল ডেটা দিয়ে ডিভাইস একই দেশের বিভিন্ন সেলুলার নেটওয়ার্কগুলির মধ্যে পোর্টেবল না? Wi-Fi এর থেকে ভিন্ন, অনেকগুলি প্রতিযোগিতামূলক সেলুলার নেটওয়ার্ক মান আছে – দুনিয়াব্যাপী দেশগুলির মধ্যে দুটোই রয়েছে। সেলুলার ক্যারিয়ারগুলি আপনাকে তাদের নির্দিষ্ট নেটওয়ার্কে লক করে রাখে এবং এটি সরানো কঠিন করে তুলছে। এটা মূলত তাদের চুক্তির জন্য। তাই আপনি চায়লেও আপনার সেল ফোন কে অন্য ক্যারিয়ারে পরিবর্তন করতে পারবেন না। এর পিছনে কিছু কারণ আছে। জেনে নিনঃ

ফোন লকিংঃ

অনেকগুলি ফোন একটি নির্দিষ্ট নেটওয়ার্কে লক করা হয়। যখন আপনি একটি সেলুলার ক্যারিয়ার থেকে একটি ফোন কিনবেন, তারা প্রায়ই ফোন তাদের নেটওয়ার্কের মধ্যে লক করে রাখে ফলে আপনি তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী এর নেটওয়ার্ক এ এই ফোন নিতে পারবেন না। আপনি একটি আলাদা সেলুলার প্রদানকারীতে এটি স্থানান্তরিত করার আগে এই ফোন টিকে আনলক করতে হবে অথবা এটি একটি ভিন্ন দেশে নিয়ে যাবার জন্য রোমিং এর পরিবর্তে একটি স্থানীয় সরবরাহকারীতে এটি ব্যবহার করবে। সেলুলার বাহক সাধারণত আপনার জন্য আপনার ফোনটি আনলক করবে যখন আপনার সাথে তাদের সাথে তাদের চুক্তি শেষ হয়ে যাবে। যাইহোক, আপনার ক্যারিয়ারের অনুমতি ছাড়া একটি সেল ফোন আনলক করা বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একটি অপরাধ।

জিএসএম বনাম সিডিএমএঃ

কিছু সেলুলার নেটওয়ার্কগুলি জিএসএম (গ্লোবাল সিস্টেম ফর মোবাইল কমিউনিকেশন) স্ট্যান্ডার্ড ব্যবহার করে, যখন কিছু সিডিএমএ (কোড-ডিভিডি একাধিক অ্যাক্সেস) ব্যবহার করে। বিশ্বব্যাপী, অধিকাংশ সেলুলার নেটওয়ার্ক জিএসএম ব্যবহার করে। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জিএসএম এবং সিডিএমএ উভয় জনপ্রিয়। Verizon, স্প্রিন্ট, এবং অন্যান্য বাহক যারা তাদের নেটওয়ার্কের ব্যবহার করে CDMA ব্যবহার করে। AT & T, T-Mobile, এবং অন্যান্য ক্যারিয়ারগুলি যেগুলি তাদের নেটওয়ার্কের ব্যবহার করে তা জিএসএম ব্যবহার করে। এই দুটি প্রতিযোগিতার মান এবং আন্তঃঅর্থনযোগ্য নয়। এর মানে হল যে আপনি কেবল Verizon থেকে T-Mobile এ ফোনটি বা AT & T থেকে স্প্রিন্ট পর্যন্ত নিতে পারবেন না। এই বাহক এর অসঙ্গত ফোন।

সিডিএমএ নিষেধাজ্ঞাঃ

জিএসএমের তুলনায় সিডিএমএ বেশি সীমাবদ্ধ। জিএসএম ফোনে সিম কার্ড রয়েছে। সহজেই ফোনটি খুলুন, সিম কার্ডটি বের করুন, এবং বাহকগুলি পরিবর্তন করতে নতুন সিম কার্ডে ঢুকিয়ে পপ করুন। ব্যাস! হিয়ে গেলো! সিডিএমএ ফোনে এই ধরনের অপসারণযোগ্য মডিউল নেই। সমস্ত সিডিএমএ ফোনগুলি একটি নির্দিষ্ট নেটওয়ার্কে লক করা যায় এবং আপনি তাদের পুরোনো ক্যারিয়ার এবং আপনার নতুন ক্যারিয়ারকে তাদের মধ্যে ফোনের সুইচ করতে সহায়তা করতে পারেন। বাস্তবিকই, অনেক লোক সিডিএমএ ফোনগুলি বিবেচনা করে একটি নির্দিষ্ট ক্যারিয়ারে চিরতরে লক করে রাখে।

ফ্রিকোয়েন্সিঃ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এবং বাকি বিশ্বের বিভিন্ন সেলুলার নেটওয়ার্ক বিভিন্ন ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে। এই রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি আপনার ফোন এর হার্ডওয়্যার বা আপনার ফোন দ্বারা সমর্থিত হতে হবে কেবল যারা ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে একটি নেটওয়ার্কের উপর কাজ করতে পারে না। অনেক জিএসএম ফোন ফ্রিকোয়েন্সি তিন বা চার ব্যান্ড সমর্থন করে – 900/1800/1900 MHz, 850/1800/1900 মেগাহার্জ, অথবা 850/900/1800/1900 MHz। এইগুলিকে কখনও কখনও “বিশ্ব ফোন” বলা হয় কারণ তারা সহজে রোমিংকে অনুমতি দেয়। এটি প্রস্তুতকারকের একটি ফোন উত্পাদন করতে পারে যা বিশ্বজুড়ে সমস্ত জিএসএম নেটওয়ার্কে সমর্থন করবে এবং তাদের গ্রাহকদের সেই ফোনের সাথে ভ্রমণের অনুমতি দেবে। যদি আপনার ফোন যথাযথ ফ্রিকোয়েন্সি সমর্থন না করে, তবে এটি নির্দিষ্ট নেটওয়ার্কে কাজ করবে না।

LTE ব্যান্ডঃ

নতুন, দ্রুত এলটিই নেটওয়ার্কগুলির ক্ষেত্রে, বিভিন্ন ফ্রিকোয়েন্সি এখনও একটি উদ্বেগের বিষয়। LTE ফ্রিকোয়েন্সি সাধারণত “এলটিই ব্যান্ড” হিসাবে পরিচিত হয়। একটি নির্দিষ্ট LTE নেটওয়ার্কে একটি স্মার্টফোন ব্যবহার করার জন্য, যে স্মার্টফোনের যে LTE নেটওয়ার্ক এর ফ্রিকোয়েন্সি সমর্থন করতে হবে বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন এলটিই নেটওয়ার্কে কাজ করার জন্য ফোনগুলির বিভিন্ন মডেল প্রায়ই তৈরি করা হয়। যাইহোক, ফোনে সাধারণত আরো বেশি এলটিই নেটওয়ার্ক সমর্থন করে এবং সময়ের সাথে আরও বেশি আন্তঃক্রিয়ার হয়ে উঠছে।

সিম কার্ডের সাইজঃ 

জিএসএম ফোনগুলিতে ব্যবহৃত সিম কার্ড বিভিন্ন আকারে আসে। নতুন ফোনে স্থান বাঁচাতে এবং আরও কমপ্যাক্ট হতে ছোট সিম কার্ড ব্যবহার করে। তার একটি বড় বাধা নয়, যেহেতু সিম কার্ডগুলির বিভিন্ন আকার – পূর্ণ-আকারের সিম, মিনি সিম, মাইক্রো-সিম এবং ন্যানো সিম আসলে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তাদের মধ্যে একমাত্র পার্থক্য সিম এর চিপের পার্শ্ববর্তী প্লাস্টিকের আকার। এর বেশি কিছু নয়! আসল চিপ সব সিম কার্ডের মধ্যে একই আকার। এর মানে আপনি একটি পুরানো সিম কার্ড নিতে পারেন এবং এটি কেটে ছোট আকারের সিম কার্ড করে ফেলুন, যা একটি আধুনিক ফোনটিতে ফিট করে।

কাটার সময় খেয়াল রাখিতে হবে যেন এটি সঠিক মাপে কাটা হয়। তানাহলে আপনার সীম কার্ড এর ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। সঠিকভাবে কাজ করুন এবং কাজের সময় খুব সচেতন থাকুন। আপনার সেলুলার ক্যারিয়ার প্রায়ই আপনার সিম কার্ডটি কাটাতে বা একটি নতুন ফোন দিতে সক্ষম হবে যদি আপনি একটি নতুন ফোন এ পুরোনো সিম কার্ড ব্যবহার করতে চান। আশা করি তারা এই পরিষেবাটির জন্য আপনাকে জোরপূর্বক বাঁধা প্রদান করবে না।

পরিশিষ্টঃ

নেটওয়ার্কের মধ্যে এটি স্থানান্তর করার চেষ্টা করার আগে আপনার ফোনের সমর্থনগুলি কি ধরনের নেটওয়ার্ক, ফ্রিকোয়েন্সি, এবং LTE ব্যাণ্ডগুলি পরীক্ষা করে তা নিশ্চিত করুন। নির্দিষ্ট সেলুলার বাহকদের মধ্যে চলার সময় আপনাকে একটি নতুন ফোন কিনতে হতে পারে। আশা করি আর্টিক্যাল টি বুঝতে পেরেছেন। সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। আরও ভালো ভালো আর্টিক্যাল পেতে টেকহিলসের সাথেই থাকুন। আমরা সর্বদা নতুন নতুন জ্ঞান মূলক আর্টিক্যাল তৈরী করার চেষ্টা করি। তাই পাশে থেকে আমাদের অনুপ্রাণিত করুন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুনঃ 


অ্যান্ড্রয়েড

অ্যামাজন এর ফায়ার ওএস বনাম গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড: পার্থক্য কি?

অ্যামাজন এর ফায়ার ওএস বনাম গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড
অ্যামাজন এর ফায়ার ওএস বনাম গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড

অ্যামাজন এর ফায়ার ওএস বনাম গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড: পার্থক্য কি?

আমাজন এর ফায়ার ট্যাবলেটগুলি অ্যামাজন এর নিজস্ব “ফায়ার ওএস” অপারেটিং সিস্টেম চালায়। ফায়ার ওএসটি গুগল এর অ্যান্ড্রয়েড ভিত্তিক, কিন্তু এটির কোনও Google এর অ্যাপস বা সার্ভিস নেই। এখানে মূলত এটাই বুঝা যায়, ঠিক কিভাবে তারা ভিন্ন। এটা সত্যিই সঠিক নয় যে আমাজন এর ফায়ার ট্যাবলেট অ্যান্ড্রয়েড চালানোর কথা বলে- কিন্তু, অন্য অর্থে, তারা অনেকটা অ্যান্ড্রয়েড কোড রান করে। সমস্ত অ্যাপ্লিকেশন যা আপনি একটি ফায়ার ট্যাবলেট এ চালান সেগুলোও কিন্তু অ্যান্ড্রয়েড এপস!

পার্থক্য কি?  

গড়ে প্রতিটি ব্যক্তির জন্য, এখানে বড় পার্থক্য হলো- এখানে Google Play Store উপস্থিত নয়। আপনি Amazon এর Appstore এবং সেখানে থাকা সীমাবদ্ধ অ্যাপ্লিকেশন গুলোই কেবল পাবেন। আপনি Google এর অ্যাপ্লিকেশান বা Google এর পরিষেবাগুলিতে অ্যাক্সেস পাবেন না। আপনাকে Amazon এর নিজস্ব অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার করতে হবে। উদাহরণস্বরুপঃ Chrome এর পরিবর্তে SIlk ব্রাউজার ব্যবহার করা লাগবে।

এছাড়াও অবশ্যই অন্যান্য পার্থক্য আছে। যেমন, অ্যামাজন অ্যানড্রয়েড ডিভাইসগুলিতে আপনি সাধারণত লঞ্চার পরিবর্তন করতে পারবেন না, তাই আপনাকে Amazon এর হোম স্ক্রিনের অভিজ্ঞতা ব্যবহার করা লাগবে। আমাজন এর হোম স্ক্রীন অভিজ্ঞতা অ্যাপ্লিকেশন একটি গ্রিড প্রদর্শন করতে পারে, কিন্তু এটা আপনাকে অডিও থেকে ভিডিও, সঙ্গীত, এবং ইবুক দেখাবে। হোম স্ক্রিনে আমাজন এর শপিং সাইটও রয়েছে, যা আরও বেশি জিনিস কিনতে সহজ করে তোলে – এবং আমাজনকে আরো বেশি অর্থ প্রদান করে।

ফায়ার অপারেটিং সিস্টেমের একটি চমৎকার, kid-friendly “Kindle FreeTime” বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা হাজার হাজার kid-friendly শিক্ষাগত অ্যাপস, বই, চলচ্চিত্র এবং টিভি অনুষ্ঠানের অ্যাক্সেসের জন্য একটি “আনলিমিটেড” সাবস্ক্রিপশন দিয়ে মিলিত হতে পারে। kid-friendly প্যারেন্টাল-কন্ট্রোল বৈশিষ্ট্যসমূহ হল ফায়ার ওএস এর আরো অনন্য বৈশিষ্ট্যগুলির একটি।

কিন্তু পার্থক্য আসলে কী বোঝায়? ওয়েল, যদি আপনি ওয়েব ব্রাউজ করার জন্য, ইমেলের মাধ্যমে যাচ্ছেন, এবং ভিডিওগুলি দেখার জন্য একটি সস্তা ট্যাবলেট চান তবে সেখানে বড় পার্থক্য নেই। যদি আপনি হুপ্স মাধ্যমে জাম্প ছাড়া অ্যানড্রইড অ্যাপ্লিকেশন সমগ্র ইকোসিস্টেম চান, সেক্ষেত্রে আপনি হয়ত একটি আরো সাধারণ অ্যান্ড্রয়েড ট্যাবলেট পেতে চাইতে পারেন। Amazon এর প্রস্তাবিত মানের উপর নির্ভর করে, আপনি একটি সস্তা, $ 50 মূল্যের কিন্ডল ফায়ার ট্যাবলেট পেতে পারেন – কিন্তু আপনাকে Google এর পরিবর্তে Amazon এর অ্যাপস্টোর এবং পরিষেবাগুলি ব্যবহার করতে হবে। এক্ষেত্রে ডিজিটাল বিক্রেতাদের মাধ্যমে আমাজন আপনার কাছে থেকে আরো অর্থ উপার্জন করবে।

ট্যাবলেটের সবচেয়ে সস্তা সংস্করণ এমনকি লক স্ক্রিনের বিজ্ঞাপন গুলি যদি আপনি সরাতে চান তবে সেক্ষেত্রে আপনাকে এর জন্য মূল্য পে করতে হবে। যদি আপনি জানেন যে আপনি কি করছেন, তবে আপনি Google এর পরিষেবাগুলি সেখানে রাখতে পারেন – কিন্তু অ্যামাজন তা করতে চায় না, এবং ভবিষ্যতে এই ফিচার গুলো আরও কঠিন হয়ে যেতে পারে। অ্যামাজন এর প্রস্তাবটি উপযুক্ত কিনা তা আপনার উপর নির্ভর করে এবং আপনি আপনার ট্যাবলেটের সাথে কি করতে চান সেটাও আপনার উপরই নির্ভর করে।

অ্যান্ড্রয়েড, গুগল মোবাইল সার্ভিসেস, এবং এওএসপিঃ

সত্যিই দুই Androids আছে গুগল “অ্যান্ড্রয়েড” সফ্টওয়্যার যা আপনি স্যামসাং, এলজি, এইচটিসি, সোনি, এবং অন্যান্য বড় ডিভাইস নির্মাতাদের ডিভাইসগুলিতে দেখতে পাবেন। এটি শুধু অ্যান্ড্রয়েড নয় – এটি একটি অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস যা নির্মাতারা গুগল দ্বারা প্রত্যয়িত করেছে। এটি “গুগল মোবাইল সার্ভিসেস” এর সাথে সংযুক্ত, যা্র মধ্যে গুগল প্লে স্টোর এবং অন্যান্য গুগল অ্যাপস যেমন জিমেইল এবং গুগল ম্যাপস অন্তর্ভুক্ত। কিন্তু অ্যান্ড্রয়েড একটি ওপেন সোর্স প্রকল্পও। ওপেন সোর্স প্রজেক্টটি কেবল “অ্যান্ড্রয়েড ওপেন সোর্স প্রোজেক্ট” বা AOSP হিসাবে যথেষ্ট পরিমাণে পরিচিত। AOSP কোড একটি অনুমতিপ্রসূত ওপেন-সোর্স লাইসেন্সের অধীনে লাইসেন্স করা হয় এবং কোনও নির্মাতা বা বিকাশকারী কোডটি গ্রহণ করতে পারে এবং এটি তাদের জন্য যেভাবে খুসি ব্যবহার করতে পারেন।

গুগল মোবাইল সার্ভিসেস অ্যান্ড্রয়েড ওপেন সোর্স প্রোজেক্টের অংশ নয়, এবং অনেকগুলি জিনিসকে মানুষ “অ্যান্ড্রয়েড” বলে মনে করে। কিন্তু গুগল প্লে স্টোর এবং গুগল এর সমস্ত সেবা সহ আরও বেশ কিছু ফিচার অ্যান্ড্রয়েডের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত নেই। তারা আলাদাভাবে লাইসেন্স পেয়েছেন। সবচেয়ে সস্তা অ্যানড্রইড ট্যাবলেট চীন এর একটি ফ্যাক্টরি থেকে সরাসরি পান – যেটা ঠিক এই AOSP কোড। যদি আপনি তাদের মধ্যে Google Play চান, তাহলে ট্যাবলেটটি পাওয়ার পর আপনাকে Google এর অ্যাপ্লিকেশনগুলিকে আলাদাভাবে ইনস্টল করতে হবে।

গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করার পরিবর্তে কেন অ্যামাজন ফায়ার ওএস তৈরি করেছে?

স্ক্র্যাচ থেকে শুরু করার পরিবর্তে, অ্যামাজন তার ট্যাবলেটগুলির জন্য নিজের অপারেটিং সিস্টেম তৈরি করতে চেয়েছিল। অ্যামাজন অ্যান্ড্রয়েড AOSP কোডটি গ্রহণ করে এবং “ফায়ার অপারেটিং সিস্টেম” তৈরি করার জন্য এটি পরিবর্তন করে Fire OS তৈরী করে। এটি অ্যামাজন সময় সংরক্ষণ করে কারণ তারা স্ক্র্যাচ থেকে শুরু করার পরিবর্তে Google এর প্রচেষ্টার বন্ধন বাড়াতে পারে। এর মানে হল যে সমস্ত বিদ্যমান অ্যানড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন সহজেই “পোর্টেড” ফায়ার ওএস এর জন্য হতে পারে, যা মূলত একইভাবে অ্যান্ড্রয়েডের মত একই জিনিস।

কিন্তু কেন অ্যামাজন গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করে না? কারণ, আমাজন সমগ্র অভিজ্ঞতা নিজেরাই নিয়ন্ত্রণ করতে চায়। অ্যাপ্লিকেশন কেনাকাটা, ভিডিও ভাড়া, সঙ্গীত ডাউনলোড এবং ইবুকগুলির জন্য আপনাকে Google Play এ হস্তান্তর করার পরিবর্তে, আমাজন আপনাকে Amazon Appstore, প্রাইম তাত্ক্ষণিক ভিডিও, অ্যামাজন সঙ্গীত এবং আমাজন প্রজেক্ট অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার করতে চায়। এটা অ্যামাজন ফায়ার ট্যাবলেট লাইনের বিন্দু, যাইহোক – এটি অ্যামাজন এর পরিষেবাগুলিতে একটি সস্তা উইন্ডো। আর সেই সাথে এই উইন্ডোর মাধ্যমে অ্যামাজন আরও বেশি অর্থ উপার্যন করতে পারে।

Google Play Services শুধুমাত্র Google এর Android এর জন্য

ক্রমবর্ধমান, আরো অনেক কিছু যা একটি সাধারণ ব্যক্তি “অ্যান্ড্রয়েড” হিসাবে বলে মনে করে তা আসলে Google Play Services এবং Google এর নিজস্ব অ্যাপ্লিকেশনগুলির অংশ। গুগল প্লেের বেশ কিছু সাধারণ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপগুলি জিপিএস অবস্থানে, পেমেন্ট এবং অন্যান্য অনেক কিছুতে অ্যাক্সেসের জন্য লিখিত ভাবে Google Play Services ব্যবহার করতে হয়। এই অ্যাপ্লিকেশনগুলিকে সরাসরি একটি ফায়ার OS ডিভাইসে রাখা যাবে না, যদি না সেখানে Google Play পরিষেবাগুলি উপস্থিত থাকে। এ্যামেক্সকে ডেভেলপারদের জন্য বিকল্প API সরবরাহ করতে হবে এবং ডেভেলপাররা তাদের অ্যানড্রয়েড অ্যাপগুলি অ্যামাজন ফায়ার ওএস থেকে গুগল প্লে স্টোর থেকে পোর্ট করার জন্য কিছুটা কাজ করতে হতে পারে। এটি প্রতিটি অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন উপস্থিত না থাকার একটি বড় কারণ।

অ্যামাজন অ্যাপস্টোর বনাম গুগল প্লেঃ

গড় Kindle ট্যাবলেট ব্যবহারকারীর জন্য, সবচেয়ে বড় পরিবর্তনটি Google Play এর পরিবর্তে Amazon এর Appstore এর উপস্থিতি হবে। অ্যানড্রয়েড অ্যাপ ডেভেলপাররা তাদের অ্যাপ্লিকেশনগুলি আমাজন অ্যাপস্টোরের পাশাপাশি গুগল প্লেতে তালিকাভুক্ত করতে পারেন। অনুশীলনের মধ্যে, এর অর্থ হল আপনার কাছে এমন অনেক অ্যানড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশান এর অ্যাক্সেস নেই যা আপনি সাধারণত একটি অ্যানড্রইড ট্যাবলেটের সাথে পাবেন – কিন্তু আপনার বেশ কয়েকটি অ্যাক্সেস আছে। আপনি যে অ্যাপ্লিকেশানগুলি ব্যবহার করেন তা Amazon এর Appstore এ আছে কিনা তা দেখার জন্য আপনি ওয়েব এ Amazon Appstore অনুসন্ধান করতে পারেন।

আমাজন এছাড়াও ডাউনলোডের জন্য তার “Appstore” অ্যাপ্লিকেশন উপলব্ধ। আপনি সাধারণত অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেটগুলিতে আমাজন অ্যাপস্টোর ইনস্টল করতে পারেন এবং Google Play এর পরিবর্তে সেখানে অ্যাপ্লিকেশনগুলি ডাউনলোড করতে পারেন। যেহেতু তারা অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস, এগুলো অ্যান্ড্রয়েড ও ফায়ার OS উভয় এই চালানো যাবে।

কিন্তু আপনি একটি “গুগল অ্যান্ড্রয়েড” ডিভাইসের মধ্যে একটি ফায়ার ট্যাবলেট চালু করতে পারেনঃ

যেহেতু ফায়ার অপারেটিং সিস্টেম তাই অ্যান্ড্রয়েডের কাছে খুব কাছাকাছি, Google Play Store এবং Google প্লে সার্ভিসগুলি ফায়ার ট্যাবলেটের দিকে সহজেই ছড়িয়ে দিতে পারে। তারা একটি সাধারণ অ্যান্ড্রয়েড ট্যাবলেটের মতোই কাজ করবে যেমনটি আপনাকে পুরো Google Play Store এবং Google পরিষেবাগুলির অ্যাক্সেস প্রদান করে। এটি আনুষ্ঠানিকভাবে গুগল বা আমাজন দ্বারা সমর্থিত নয়, কিন্তু এটি অবশ্যই সম্ভব। এটি এমনকি আপনার ডিভাইস rooting প্রয়োজন হয় না। এখানে বড় পার্থক্য হলো, এটি করার জন্য আপনাকে কিছুটা কাজ করতে হবে। এবং, অবশ্যই, এটা সম্ভব যে অ্যাডমিনিস্ট্রেটর ভবিষ্যতে ফায়ার ওএসের ভার্চুয়াল সংস্করণে এটির নিচে ফাটল ধরতে পারে এবং এটি আরো কঠিন করে তুলতে পারে।

ভিডিও দেখার জন্য, বই পড়ার জন্য, সঙ্গীত শোনার জন্য, ওয়েব ব্রাউজ করার জন্য, ইমেল চেক করা এবং ফেসবুকে ব্যবহার করার জন্য একটি সস্তা ট্যাবলেটের জন্য, আমাজন এর কিন্ডল ফায়ার ট্যাবলেটগুলি একটি চমৎকার চুক্তি। অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা যারা হ্যাকিং ছাড়া সম্পূর্ণ প্লে স্টোর এবং গুগল এর সকল অ্যাপস অ্যাক্সেস করতে চান, তাদের জন্য এটি অনন্য!

ধন্যবাদ।

আরও পড়ুনঃ

টিপস এন্ড ট্রিকস

ম্যানুয়ালভাবে আপনার স্টিম গেম ফাইল ব্যাক আপ করবেন কিভাবে?

স্টিম গেম ফাইল ব্যাক আপ
স্টিম গেম ফাইল ব্যাক আপ

ম্যানুয়ালভাবে আপনার স্টিম গেম ফাইল ব্যাক আপ করবেন কিভাবে?

স্টিম তার গেমের ফাইলগুলির একটি ব্যাক আপ তৈরীর জন্য একটি অন্তর্নির্মিত সিস্টেম আছে, তাই আপনি যখন আপনার গেইম টি আন-ইনস্টল করবেন, এবং পরবর্তিতে আপনার পূণরাই সেই গেইম টি খেলার ইচ্ছে হলে তখন আর নতুন করে পুরো গেইম ডাউনলোড করার প্রয়োজন নেই। কিন্তু বেশিরভাগ স্টেমের বৈশিষ্ট্যগুলির মতো, এটি বেশ কিছু সময় ধরে আপডেট করা হয়নি, এবং স্পষ্টভাবে এটি প্রায়ই খেলা পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়াটি ভেঙ্গে পরিচালনা করে। যে উপরে, এটি ধীর, এটা clunky, এবং আপনি নিজের উপর ভাল বুঝতে পারবেন।

ম্যানুয়ালি স্টিমের গেম ফোল্ডার থেকে ফাইলগুলিকে অনুলিপি করে, তারপর আবার খেলা করার জন্য আপনি যখন তাদের কপি করবেন তখন অনেকেই দ্রুত এবং আরো নির্ভরযোগ্য ভাবে কাজ করে। স্টিম ক্যাশিং সিস্টেম মানে যে এটি আপনার নিজের প্রোগ্রামের সমন্বিত টুল এর মধ্যে কোন অসুবিধা আছে। যদি আপনি আপনার গেম ফাইলগুলিকে আলাদাভাবে ব্যাক আপ করতে চান, বিশেষ করে আপনার প্রাথমিক সিস্টেম ব্যাকআপে 100 GB+ সংগ্রহ বা সঞ্চয় স্থান সংরক্ষণের জন্য একটি বহিরাগত ড্রাইভে, এখানে এটি সহজ উপায় এ ব্যাক আপ করতে পারবেন।

ধাপ একঃ গেইম ফাইলটি খুঁজুন 

আপনার standard Steam গেম ইনস্টলেশন ফোল্ডার খুঁজুন। উইন্ডোজ ডিফল্ট অনুসারে, এগুলি এখানে অবস্থিত:

C:/Program Files (x86)/Steam/steamapps/common

macOS এ, ফাইন্ডার খুলুন এবং মেনু বার থেকে Go> ফোল্ডারে যান, এই পথটি প্রবেশ করুন:

~Library/Application Support/Steam/SteamApps/common

এবং লিনাক্স-ভিত্তিক অপারেটিং সিস্টেমে, এটি আপনার স্থানীয় ইউজার নির্দেশিকার মধ্যে রয়েছে:

~/.local/share/Steam/steamapps/common 

এই ফোল্ডারটিকে সাব-ফোল্ডারে বিভক্ত করা হয়েছে, স্টেমের মাস্টার খেলা তালিকাতে ইনস্টল করা প্রতিটি গেমের জন্য। তাদের বেশিরভাগই তাদের নিজ নিজ নামের মতো একই নামের ভাগ করে নেয়, তবে কিছু বিকল্প চরিত্র বা সংক্ষেপে ব্যবহার করে- উদাহরণস্বরূপ, Age of Empires II HD সংস্করণটি “Age2HD।” মনে রাখবেন, আপনি যদি স্টিমের মধ্যে একটি কাস্টম গেম ফোল্ডার সেট করেন, তাহলে আপনার গেমগুলি অন্য কোথাও ইনস্টল করা হবে।

ধাপ দুইঃ গেম ব্যাক আপ করুন 

স্টিম সাধারণ ফোল্ডারে গেমগুলি ব্যাক আপ করার জন্য, শুধুমাত্র অন্য ফোল্ডারে কপি এবং পেস্ট করুন।

গেমগুলি ব্যাক আপ করুন
গেমগুলি ব্যাক আপ করুন

এটাই. সত্যিই, এটা সহজ। মূলত, আপনি তাদের অন্য স্টোরেজ ড্রাইভ হতে চান, উভয় অভ্যন্তরীণ বা বাহ্যিক, কারণ একক ড্রাইভে একই গেমের দুটি কপি বিশেষভাবে উপযোগী নয়। আমি আমার বহিরাগত ব্যাকআপ ড্রাইভে একটি ডেডিকেটেড ডেটা পার্টিশন রাখি, ঠিক তাই প্রত্যেকবার আমি 30 গিগাবাইটের ডাটা পুনরায় ডাউনলোড করতে চাই না যাতে আমিTeam Fortress 2 খেলতে চাই।

uninstall
uninstall

এখন, আপনার প্রাথমিক ড্রাইভ থেকে এটি সরাতে স্টামে ডান-ক্লিক করুন এবং গেমটি আনইনস্টল করুন। যদি আপনার গেমটি আপনার কয়েক মাস ধরে আপনার ব্যাকআপ ফোল্ডারে বসায়, তাহলে সম্ভবত এটিতে একটি আপডেট ডাউনলোড করতে হবে … কিন্তু এটি বেশ কয়েক শত মেগাবাইট, সম্ভবত একটি গিগাবাইট বা দুটি। DOOM জন্য প্রায় 80 গিগাবাইট তুলনায়, এটি উভয় সময় এবং ব্যান্ডউইডথ মধ্যে একটি মহান সঞ্চয়।

ধাপ তিন: গেম পুনরুদ্ধার

গেমগুলি পুনরুদ্ধার করাও সহজঃ প্রথমত, আপনার ব্যাকআপ স্থান থেকে গেম ফোল্ডারগুলি স্টেপ একের মধ্যে পাওয়া স্টিম / স্ট্যাপম্যাপ / সাধারণ ডাইরেক্টরিতে কপি করুন। (আপনি মূল ফোল্ডার মুছে ফেলতে হতে পারে, কখনও কখনও একটি খেলা মুছে ফেলা হয় পরে এমনকি কিছু ফাইল বাকি আছে।) একবার কাজ টি সম্পন্ন হয়ে গেলে, স্টিম নিজেই অপেন হবে।  লাইব্রেরির ট্যাবে ক্লিক করুন, তারপরে আপনার প্রাথমিক স্টিম ফোল্ডারে আপনার পুনরুদ্ধারের গেমটি সন্ধান করুন।  এই মুহূর্তে এটি আনইনস্টল করা হয়েছে; “Install Game.” ক্লিক করুন। এটি নিশ্চিত করুন যে আপনি আপনার গেম ফাইল পুনরুদ্ধার যে ফোল্ডারে ইনস্টল করেছেন তা ঠিক আছে।

গেম পুনরুদ্ধার
গেম পুনরুদ্ধার

এখন এখানে জাদু অংশ: স্টিম “Download” প্রক্রিয়া শুরু করার আগে, এটি যে গেম ফাইলটি ইনস্টল করার জন্য নির্ধারিত স্থানটিকে দ্বিগুণ করে দেবে। স্টিম গেম ফোল্ডারটি পরীক্ষা করে, ফাইলটি ইতিমধ্যেই আছে “discovers” করে এবং সার্ভার থেকে এটি পুনরুদ্ধারের প্রয়োজন হয় না এমন যেকোন ফাইলের জন্য প্রকৃত ডাউনলোডটি বাদ দেয়। স্টিম কয়েক মিনিটের মধ্যে গেইম টি রিস্টোর বা পুনরুদ্ধার করবে। যদি কোনও বড় আপডেটের প্রয়োজন না হয়, তাহলে আপনি সরাসরি খেলতে প্রস্তুত।

আপনার ফাইল টি সেইভ করবে ভুলবেন না।

তাদের গেম ফাইল সংরক্ষণ করে রাখার জন্য একটি আদর্শ অবস্থান নেই। আপনি যা খেলছেন তার উপর ভিত্তি করে, My Documents ফাইলটি, My Games folder বা game data folder কোথাও হতে পারে, অথবা এটি আপনার উপরে উপরে থাকা ধাপগুলি, অথবা অ্যাপ্লিকেশন ডেটা ফোল্ডারের মধ্যে থাকা game ডেটা ফোল্ডারে save হতে পারে। এটি ডেভেলপারের ক্লাউড সার্ভারে বা স্টিমের ক্লাউড সার্ভিস বা অন্য এক ডজন জায়গায় সংরক্ষিত হতে পারে।

পরিষিষ্টঃ 

আপনার ব্যাকআপ করা গেম ইন্সটলেশন ফাইলগুলিও এমন গেমগুলি সংরক্ষণ করতে পারে না যা আসলে আপনার ব্যক্তিগত প্লেটাইমকে প্রতিনিধিত্ব করে। যদি আপনি আপনার গেমগুলি ব্যাকআপ করে থাকেন তবে পরে অ্যাক্সেস করতে পারেন, আপনার গেমটি সংরক্ষণের জন্য দ্রুত Google অনুসন্ধান করুন যাতে আপনার সুরক্ষিত এই ফাইলগুলি সুরক্ষিত থাকে।

আর্‌ও পড়ুনঃ 

কিভাবে

কেন প্রতিটি ক্যামেরা একটি DCIM ফোল্ডার এ ফটো রাখে? কারণ জেনে নিন।

DCIM ফোল্ডার
DCIM ফোল্ডার

কেন প্রতিটি ক্যামেরা একটি DCIM ফোল্ডার এ ফটো রাখে? কারণ জেনে নিন।

ডিজিটাল ক্যামেরা ছবি, ক্যামেরা ফাইল সিস্টেমের জন্য ডিজাইন রুলের একটি ডিরেক্টরী নাম, এটি একটি ডিজিটাল ক্যামেরার জন্য ফাইল সিস্টেমের অংশ। DCIM হলো  ডিজিটাল ক্যামেরার ছবিগুলির জন্য একটি ডিফল্ট ডিরেক্টরি ফোল্ডার। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই  এটি সবকিছু সংগঠিত করে রাখে। যখন আপনি একটি ক্যামেরাতে একটি মেমরি কার্ড রাখেন, তখন ক্যামেরা অবিলম্বে একটি  DCIM ফোল্ডার দেখায়। যদি এমন ফোল্ডার পাওয়া না যায় তবে এটি এমন একটি ফোল্ডার তৈরি করে নেয়।  এটার ফুল মিনিং মূলত, DCIM= Digital Camera Images. DCIM ফোল্ডারটি এবং তার লেআউটটি DCF থেকে আসে, এটি ২০০৩ সালে নির্মিত। DCF এত মূল্যবান কারণ এটি একটি স্ট্যান্ডার্ড লেআউট প্রদান করে।

DCF বা “Design rule for Camera File system”:

DCF হলো একটি- JEITA বা ‘জাপান ইলেকট্রনিক্স এবং ইনফরমেশন টেকনোলজি ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন’ দ্বারা তৈরি একটি স্পেসিফিকেশন। এটি টেকনিক্যালি CP -3461 মাপকাঠি,যা আপনি অকপট স্ট্যান্ডার্ড ডকুমেন্ট এ খনন করতে পারেন এবং এটি অনলাইনে পড়তে পারেন। এটির  প্রথম সংস্করণ 2003 সালে ইস্যু করা হয়, এবং এটি সর্বশেষ 2010 সালে আপডেট করা হয়েছিল। ডিসিএফ-এর স্পেসিফিকেশন আন্তঃবৈচিত্র্য নিশ্চিত করার জন্য একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্য এর সঙ্গে বিভিন্ন প্রয়োজনীয়তা তালিকাভুক্ত করা হয়। একটি উপযুক্তভাবে ফরম্যাট করা devics ফাইল সিস্টেম – উদাহরণস্বরূপ, একটি ডিজিটাল ক্যামেরা মধ্যে প্লাগ করা একটি SD কার্ড – FAT12, FAT16, FAT32, বা exFAT হতে হবে। ২ গিগাবাইট বা মহাকাশের সাথে মিডিয়াটি FAT32 বা exFAT এর সাথে ফরম্যাট করা আবশ্যক। ডিজিটাল ক্যামেরা এবং তাদের মেমরি কার্ড একে অপরের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

DCIM ডিরেক্টরি এবং এর সাবফোল্ডারগুলিঃ 

অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে, ডিসিএফ স্পেসিফিকেশনকে নির্দেশ দেয় যে – একটি ডিজিটাল ক্যামেরা কে “DCIM” ডিরেক্টরির মধ্যে তার ছবিগুলি সংরক্ষণ করতে হবে। ডি,সি,আই এম এর অর্থ হল, “ডিজিটাল ক্যামেরা ইমেজ”।  DCIM ডিরেক্টরিটির মধ্যে  সাধারণত – একাধিক সাবডিরেক্টরি ফাইল রয়েছে। সাব-ডিরেক্টরির প্রতিটি একটি অনন্য তিন অঙ্কের সংখ্যা গঠিত।যেমন,  100 থেকে 999 – এবং পাঁচটি আলফানিউমেরিক অক্ষর রয়েছে।যদিও আলফানিউমেরিক অক্ষর তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়, এবং প্রতিটি ক্যামেরা প্রস্তুতকারী তাদের নিজস্ব নির্বাচন থেকে মুক্ত। উদাহরণস্বরূপ, অ্যাপল পাঁচটি ডিজিটের নাম রাখার জন্য যথেষ্ট ভাগ্যবান, তাই তাদের কোডটি হল APPLE। একটি আইফোনে, ডিসিআইএম ডিরেক্টরিটির  “100APPLE”, “101APPLE” ইত্যাদি সহ-ফোল্ডার রয়েছে।

DCIM ডিরেক্টরি
DCIM ডিরেক্টরি

প্রতিটি সাবডিরেক্টরির ভিতরে তাদের নিজেদের ইমেজ ফাইল থাকে, যা আপনাকে ফটো  নিতে প্রতিনিধিত্ব করে। প্রতিটি ইমেজ ফাইলের নাম চার ডিজিটের আলফামান্বিক কোড দিয়ে শুরু হয় – যা একটি চার ডিজিটের নম্বর অনুসরণ করে ক্যামেরা ফোল্ডার তৈরি করে। উদাহরণস্বরূপ, আপনি প্রায়ই DSC_0001.jpg, DSC_0002.jpg নামক ফাইলগুলি দেখতে পাবেন, এবং এই ধরণের অনেক ফাইল নিশ্চয় দেখে থাকবেন। কোড সত্যিই তেমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার না, কিন্তু আপনি যে ফটোগুলিটি গ্রহণ করেন তা নিশ্চিত করার জন্য এটি সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং প্রয়োজন।

উদাহরণস্বরূপ, লেআউটটি প্রায় এ রকম দেখা যাবেঃ

DCIM

• 100ANDRO

  • DCF_0001.JPG
  • DCF_0002.JPG
  • DCF_0003.WAV

• 101ANDRO

• 102ANDRO

DCIM- Subfolder
DCIM- Subfolder

আপনি .THM ফাইলগুলিও দেখতে পাবেন যা পিপিজি ইমেজ ব্যতীত, অন্য ফাইলগুলির জন্য মেটাডেটা প্রতিনিধিত্ব করে। উদাহরণস্বরূপ বলা যাক, আপনি আপনার ডিজিটাল ক্যামেরার সাথে একটি ভিডিও নিয়েছেন এবং এটি একটি এমপি 4 ফাইল হিসাবে সংরক্ষণ করা হয়েছে। আপনি একটি DSC_0001.MP4 ফাইল এবং একটি DSC_0001.THM ফাইল দেখতে পাবেন। MP4 ভিডিও ফাইলটি নিজে নিজেই  .THM ফাইলে থাম্বনেল এবং অন্যান্য মেটাডেটা তৈরী করে নিবে। এই ভিডিওটি লোড ছাড়া ভিডিও সম্পর্কে তথ্য প্রদর্শন করার জন্য ক্যামেরা দ্বারা এটি ব্যবহৃত হয়।

কেন সবাই এই স্পেসিফিকেশন অনুসরণ করে?

DCIM একটি “de facto” মান, যা অসংখ্য ডিজিটাল ক্যামেরা এবং স্মার্টফোন প্রস্তুতকারীরা গ্রহণ করেছে। ফলে এটি বাস্তব জগতে একটি সুসংগত মান হয়ে উঠেছে। স্ট্যান্ডার্ড DCIM ফরম্যাটটির মূলত ডিজিটাল ক্যামেরার ছবি-ট্রান্সফার সফটওয়্যার। যখন আপনি আপনার কম্পিউটারে এটি সংযোগ করেন তখন ডিজিটাল ক্যামেরা বা এসডি কার্ডে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফটোগুলি সনাক্ত করতে পারে , সেই সাথে তাদের উপর হস্তান্তর করে।

স্মার্টফোনের DCIM ফোল্ডারগুলি একই উদ্দেশ্য পরিবেশন করে। যখন আপনি আপনার কম্পিউটারে কোনও আইফোন বা অ্যানড্রয়েড ফোনে সংযোগ করেন, তখন কম্পিউটার বা ফটো-লাইব্রেরির সফ্টওয়্যারটি ডিসিআইএম ফোল্ডারটি লক্ষ করতে পারে, সেখানে স্থানান্তর করা ছবিগুলি লক্ষ্য করে, এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে এটি করার প্রস্তাব করে। প্রথমবার আপনি যখন ডিসিআইএমটি  দেখতে পান তখন “Photos”  সবচেয়ে সুস্পষ্ট নাম নাও হতে পারে।  কিন্তু এটা আরো গুরুত্বপূর্ণ যে এটি একটি আদর্শ বা স্টান্ডার্ড।

যদি প্রতি ডিজিটাল ক্যামেরা নির্মাতা বা স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেমের নিজস্ব অনন্য ছবির ফোল্ডার থাকে, তবে সফটওয়্যার প্রোগ্রামগুলি স্বয়ংক্রিয়ভাবে একটি সংযুক্ত ডিভাইসে ফটো খুঁজে পেতে সক্ষম হবে না। আপনি একটি ক্যামেরা থেকে একটি এসডি কার্ড নিতে সক্ষম হবেন না এবং সরাসরি ডিভাইসটিকে অন্য ডিজিটাল ক্যামেরায় ঢোকাতে পারবেন না, ডিভাইসটি পুনরায় ফ্যাট বা ফাইল সিস্টেম পুনরায় সাজানো ছাড়া ফটোগুলি অ্যাক্সেস করতে পারবে না।

এজন্যই ডিসিআইএম ফোল্ডারটি ‘পয়েন্ট-টু-ক্যামেরা’ এর ক্যামেরা থেকে স্মার্টফোন এবং এমনকি ট্যাবলেট ক্যামেরা অ্যাপ্লিকেশন থেকেও আমাদের অনুসরণ করেছে। চিত্র স্থানান্তর প্রোটোকল, অথবা পিটিপি, DCF মান হিসাবে যদিও একই নয়, কিন্তু এগুলো একটি অনুরূপ উদ্দেশ্যে কাজ করে। এমটিপি এবং অন্যান্য মানগুলির দ্বারা এটি স্থানান্তরিত হয়েছে, কিন্তু পিটিপি এই মানটি সমর্থন করে এমন ফটো-ম্যানেজমেন্ট অ্যাপ্লিকেশনগুলির সাথে যোগাযোগ করার জন্য অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস এবং আইফোন দ্বারা সমর্থিত।

স্বাভাবিক হিসাবে, আমরা সবাই পুরোনো ও আড়ম্বরপূর্ণ মানদন্ড বহন করছি কারণ এটি স্ক্র্যাচ এর থেকে নতুন কিছু ডিজাইনের চেয়ে সামঞ্জস্যপূর্ণ। আর্টিক্যাল টি পড়ার জন্য ধন্যবাদ। আশা করি DCIM এর ব্যাপারে কিছুটা হলেও ধারণা পেয়েছেন। নতুন নতুন আপডেট পেতে আমাদের সাথেই থাকুন।

আপনার ভালো লাগতে পারেঃ 

Add your widget here