লিনাক্স কি আসলেই কোন অপারেটিং সিস্টেম? । টেকহিলস

লিনাক্স কি আসলেই কোন অপারেটিং সিস্টেম?

আমরা যারা টেকনোলজি নিয়ে ব্যাস্ত থাকি তাদের মাঝে একটা বিরাট ভুল ধারণা আছে। এটা আমি আগে এতটা নজর দিয়ে দেখি নাই। কিন্তু নিজের ক্লাসমেট দের এই বিষয় টা নিয়ে ভুল ভাবনা দেখি, শুধু ভুল ভাবনা হলে ভুল বলা হবে। বলতে পারেন, ভুল জানা। যায় হোক, কি সেই ভুল জানা? লিনাক্স হচ্ছে একটা অপারেটিং সিস্টেম। কিন্তু লিনাক্স কোন অপারেটিং সিস্টেম না, লিনাক্স হচ্ছে একটা কার্নেল। আপনাকে যদি বুঝতে হয়, সবার আগে কার্নেল কি সেটা জানতে হবে।

লিনাক্স কি আসলেই কোন অপারেটিং সিস্টেম? । টেকহিলস

কার্নেল কি

আপনার এন্ড্রোয়েড ফোনে লেখা আছে কার্নেল ভার্সন এত এত! দেখেছেন তো মনে হয়? কিন্তু একটা বার এটা কি সেটা জানার চেষ্টাও করেন নাই। এটা শুধু এন্ড্রোয়েড ফোনে থাকবে এমন কথা না, এটা সকল কম্পিউটার ডিভাইস গুলোতে থাকে। যেখানেই অপারেটিং সিস্টেম ও হার্ডওয়্যার আছে, সেখানেই কার্নেল আছে। কার্নেল অপারেটিং সিস্টেমের সাথে হার্ডওয়্যারের একটা কানেকশন জুড়িয়ে দেয়। একটা কম্পিউটার বা মোবাইলের কি কি হার্ডওয়্যার থাকে? র‍্যাম, হার্ড ডিস্ক, ক্যামেরা আরো অনেক কিছু। এই হার্ডওয়্যার গুলো কাজ করবে কিভাবে? অপারেটিং সিস্টেম কমান্ড দিবে সেই অনুযায়ী কাজ করবে তাই তো??অপারেটিং সিস্টেমের সেই কমান্ড গুলো হার্ডওয়্যারে পৌছানোর মাধ্যম টাই কার্নেল।

আপনি আপনার ফোনের লাইট অন করবেন, ব্যাস ট্যাপ করে দিলেন আর লাইট জ্বলে উঠলো। আসলে বিষয় টা এতই সহজ না। আপনি কমান্ড দিলেন আপনার ফোন কে, আপনার ফোন কমান্ড দিয়েছে আপনার অপারেটিং সিস্টেম কে। আপনার অপারেটিং সিস্টেম কমান্ড দিয়েছে আপনার অপারেটিং সিস্টেমের কার্নেলকে। সেটা এবার কমান্ড করেছে আপনার ফোনের ফ্ল্যাশ লাইটকে। এইতো জ্বলে গেছে, যদিও এটা খুব কম সময়ের মাঝে হয়।

খুব সাধারণ ভাবে দেখেন, কার্ণেল একটা সফটওয়্যার যা আপনার হার্ডওয়্যারের সাথে অন্য সফটওয়্যারের কানেকশন বজায় রাখে। আপনার কম্পিউটার বা মোবাইলের কোন সফটওয়্যারের যা যা প্রয়োজন তা সব কিছু কার্নেল এর কাছে থেকে চেয়ে নেয়। বলতে পারেন নির্ভর থাকে। কোন অ্যাপকে যদি ব্যাকগ্রাউন্ড রান হতে হয় বা কোন অ্যাপ যদি সিপিইউ ব্যবহার করতে চায় বা র‍্যাম ব্যবহার করতে যায় তবে এসকল কাজ প্রথমে কার্নেলের হাতেই থাকে। আপনার ফোন অন করার সাথে সাথে যে বুট অ্যানিমেশন দেখতে পাওয়া যায় এবং ধিরেধিরে সকল প্রসেস রান হতে শুরু করে তো এসকল কাজ শুধু কার্নেলের মাধ্যমেই হতে পারে।

আসলে একটা অপারেটিং সিস্টেমের কার্নেল টাই আসল বিষয়। বাকি যা থাকে, সেই গুলো ইন্টারফেস। কার্নেল ঠিক থাকা মানে পুরো অপারেটিং সিস্টেম প্রায় রেডি। যদিও কম্পিউটারের কার্নেল ও মোবাইলের কার্নেল আলাদা বিষয়। এদের এক চোখে বা এক মাপে দেখা ঠিক হবে না।

লিনাক্স ওএস তাহলে কি??

আসলে লিনাক্স ওএস বলতে কিছু নাই। ধরেন লিনাক্স কার্নেলের উপরে একটা সফটওয়্যার আছে, যেটার নাম উবুন্টু। আর এটাই হচ্ছে সেই ওএস। বোঝার ক্ষেত্রে আপনি সফটওয়্যার বলতে পারেন, কিন্তু এটাকে লিনাক্স ডিস্ট্রো বলা হয়। আমরা যেটাকে লিনাক্স ওএস হিসাবে চিনি আসলে সেই গুলো লিনাক্স ওএস না, সব গুলোই লিনাক্স কার্নেলের ডিস্ট্রো। এখন আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে, তাহলে লিনাক্স ওএস বলতে আমরা যেগুলো বুঝি সেগুলো কি কি? আমরা যেগুলোকে লিনাক্স ওএস হিসাবে চিনি তার মাঝে আছে, উবুন্টু, রেড হ্যাট, সেন্ট ওএস, কালি লিনাক্স ইত্যাদি। কিন্তু সব গুলোই আলাদা আলাদা কোম্পানি পরিচালনা করে। এর মাঝে কিছু আছে বেশির ভাগ ফ্রি। আপনি জানলে অবাক হবেন, আমাদের এন্ড্রোয়েড টাও কিন্তু এই লিনাক্সের উপরে বেজ করেই করা। যেটা আমরা অনেকেই জানি না।

এখন মনে প্রশ্ন আসতে পারে, আমরা উইন্ডোজ, ম্যাক ইউজ করি তার কার্নেল কি?? উইন্ডোজ যে কার্নেল ব্যবহার করেন সেটা হচ্ছে Windows NT। আর ম্যাক ওএস এ কার্নেল হিসাবে ব্যবহার করা হয় XNU. কিন্তু তাদের কার্নেল গুলো ওপেন সোর্স না। অপরদিকে লিনাক্স কার্নেল পুরো টাই ওপেন সোর্স।

শেষ কথা

আশা করি ভাল লেগেছে, কোন প্রশ্ন থাকলে অবশ্যয় কমেন্টে জানাবেন। লিনাক্স নিয়ে আরো বিস্তারিত আশা করি অন্য একদিন আর্টিকেল দিব। আমার মনে যে প্রশ্ন গুলো এসেছে, শুধু সেই প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করেছি।

 

 

Sayed.Pappu

1 comment